ভাইকে ছিনিয়ে নিতে পুলিশের সঙ্গে ভাইয়ের ‘গোলাগুলি’, পরে নিহত

কক্সবাজারের টেকনাফে আসামি ছিনিয়ে নেওয়ার সময় দুই পক্ষের সংঘর্ষে খোরশেদ আলম (২২) নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন।

পুলিশের দাবি, মাদকসহ সাত মামলার আসামিকে ছিনিয়ে নিতে পুলিশের ওপর হামলা চালালে গুলিতে ওই যুবকের মৃত্যু হয়। নিহত যুবক সদর ইউনিয়নের মিঠাপানিরছড়া এলাকার হাজী গোলাম হোসেনের ছেলে।

মঙ্গলবার (০৬ জানুয়ারি) রাত পৌনে ১১টার দিকে টেকনাফ সদর ইউনিয়নের মিঠাপানিরছড়া বাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হাফিজুর রহমান জানান, মঙ্গলবার রাতে টেকনাফ সদর ইউনিয়ন রাজারছড়া এলাকা থেকে মাদক মামলাসহ ১১টি মামলার পলাতক আসামি মাদককারবারী শামসুল আলমকে আটক করে থানায় নিয়ে আসার পথে মিঠাপানিছড়া এলাকায় পৌঁছালে আটক আসামির সহযোগীরা অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে ব্যারিকেড দেয়। এ সময় আটক শামসুলকে ছিনিয়ে নেওয়ার জন্য পুলিশের ওপর অতর্কিত হামলা চালালে পুলিশও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি চালায়। উভয়পক্ষের গোলাগুলিতে পুলিশের তিন সদস্য আহত এবং খোরশেদ আলম নামে এক যুবক গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যায়।

তিনি আরও জানান, নিহত যুবকের বিরুদ্ধে ২টি মামলা রয়েছে। আটক শামসুল আলম ওই এলাকার র্শীষ মাদক ব্যবসায়ী।

টেকনাফ সদর হাসপাতালের চিকিৎসক ইস্কান্দার মির্জা জানান, গুলিবিদ্ধ খোরশেদ হাসপাতালে আনার আগেই মৃত্যু হয়েছে।

এদিকে নিহত খোরশেদ আলমের ভাই নুরুল আলমের দাবি, রাতে শামসুলকে রাজারছড়া ফুটবল খেলার মাঠ থেকে অপহরণ করে নিয়ে যাচ্ছে বলে ফোনে খবর আসে। ফোন পেয়ে এলাকাবাসীর সহযোগিতায় মিঠাপানিরছড়া মাদ্রাসার সামনে সিএনজিচালিত অটোরিকশার গতিরোধ করা হয়।

এরপর অটোরিকশার ভেতর থেকে গুলি ছোড়ে। এতে খোরশেদ গুলিবিদ্ধ হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। ঘটনাস্থল থেকে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়াও হলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণ করেন।

অর্থসূচক/কেএসআর

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
মন্তব্য
Loading...