পর্নোগ্রাফিতে বাধ্য করায় স্বামীকে খুন অভিনেত্রীর!

0
72
shurti-chandralekha
স্বামীকে খুন অভিনেত্রী শ্রুতি চন্দ্রলেখার- ফাইল ছবি

স্বামীকে হত্যার অভিযোগে দক্ষিণী সিনেমা অভিনেত্রী শ্রুতি চন্দ্রলেখাকে (২২) ব্যাঙ্গালোর থেকে গ্রেফতার করেছে চেন্নাই পুলিশ। পর্নোগ্রাফি সিনেমার জন্য জোরজবরদস্তি করার কারণেই তিতিবিরক্ত হয়ে স্বামীকে খুন করেছেন বলে দাবি শ্রুতির।

শনিবার ভারতের এক বার্তাসংস্থা এ তথ্য জানিয়েছে।

পুলিশ জানিয়েছে, শ্রুতি ও পিটার বিবাহবিচ্ছিন্ন ছিলেন। আলাপ হওয়ার পর তারা পরিণয় সূত্রে আবদ্ধ হন। বিয়ের পর ব্যবসায় লোকসানের কারণে পিটার শ্রুতির সঙ্গে মাদুরাভোয়ালে চলে আসেন। সেখানে পিটার উমাচন্দ্রণ ও প্রিনসনের সঙ্গে যৌথভাবে ব্যবসা শুরু করেন।

কিন্তু ব্যবসায় লোকসানের কারণে উমাচন্দ্রন ও প্রিনসন তাদের লগ্নি করা টাকা ফেরত চায়। কিন্তু অর্থ ফেরত দেওয়ার সঙ্গতি পিটারের ছিল না। চাপের মুখে তিনি স্ত্রী শ্রুতিকে পর্নোগ্রাফি সিনেমা করতে বলেন।

পুলিশকে শ্রুতি জানিয়েছেন, এজন্য প্রায়শই তার ওপর পিটার জোরজবরদস্তি করতেন। তিনি তাকে পর্নোগ্রাফি সিনেমার গ্রুপ সেক্সে অংশ নেওয়ার জন্য চাপ দেন। কিন্তু শ্রুতি তা অস্বীকার করেন।

এরপর পিটার ব্যাঙ্গালোরে গেলে শ্রুতি স্বামীকে হত্যার ছক কষেন। তিনি পিটারের ব্যবসায়িক অংশীদার প্রিনসন ও উমাচন্দ্রনের সঙ্গে যোগাযোগ করেন।

পরিকল্পনা অনুসারে, পিটার বাড়িতে ফিরে এলে শ্রুতি তাকে বিষ মেশানো দুধ খেতে দেন। তা খেয়ে পিটার অজ্ঞান হয়ে পড়লে প্রিনসন ও উমাচন্দ্রন তার গলায় ফাঁস দিয়ে হত্যা করে। এরপর গাঁধীমাথিনাথন, বিজয়, নির্মল, এলিসা ও রফিকের সাহায্যে পিটারের মরদেহ গাড়িতে নিয়ে গিয়ে কবর দেয়।

পিটার নিখোঁজ হওয়ার পর তার ভাই এ ব্যাপারে পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করেন। পুলিশ তদন্তে নেমে ষড়যন্ত্রের কথা জানতে পারে। গত মে মাসে কবর থেকে পিটারের দেহ তোলা হয়।

পুলিশ জানিয়েছে, গত জানুয়ারিতেই শ্রুতির সঙ্গী প্রিনসন ও গাঁধীমাথিনাথন, বিজয়,বিনোথ নির্মল এবং রফিককে গ্রেফতার করা হয়েছে। তবে উমাচন্দ্রন ও এলিসা নামে আরও ২ অভিযুক্ত ফেরার রয়েছে।

এতদিন শ্রুতিও ফেরার ছিলেন। গত বৃহস্পতিবার ব্যাঙ্গালোরে এক প্রযোজকের বাড়ি থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। কয়েকটি তামিল ও কান্নড় সিনেমায় অভিনয় করেছেন শ্রুতি।

এএসএ/