১৮ বছর পরও বাস্তবায়ন হয়নি প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি!

নবগঙ্গা নদীতে সেতু নির্মাণ

0
62

Jhenidah-Udaypur-01১৮ বছর পার হলেও ঝিনাইদহের নবগঙ্গা নদীতে সেতু নির্মাণে প্রধানমন্ত্রী প্রতিশ্রুতি আজও বাস্তবায়ন হয়নি। নবগঙ্গা নদীর উপর উদয়পুর ঘাটে সেতু নির্মাণ হবে। যার নাম হবে মুক্তিযোদ্ধা মতিয়ার রহমান সেতু। ১৯৯৬ সালে ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মতিয়ার রহমানের মৃত্যুর পর কবর জেয়ারত করতে এসে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এমন প্রতিশ্রুতি দেন। কিন্তু ১৮ বছর পার হলেও বিন্দুমাত্র সাড়া নেই এ সেতু নির্মাণে বলে দাবি করেছেন এলাকাবাসী।

এলাকাবাসীও আশায় বুক বেঁধেছিলেন। এবার হয়তো তাদের দুঃখের দিন যাবে। কলার ভেলায় আর তাদের পার হতে হবে না। প্রধানমন্ত্রীর এই প্রতিশ্রুতির পর তৎকালীন একান্ত সচিব র.আ.ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিবকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য পত্রও দিয়েছিলেন। কিন্তু আজও সেই স্থানে সেতু নির্মাণ হয়নি। সাধারণ মানুষকে কলার ভেলায় আর বাঁশের সাকোই পারাপার হতে হচ্ছে।

বারইখালী গ্রামের শহিদুল ইসলাম জানান, উদয়পুর আর বারইখালী গ্রামের মাঝ দিয়ে বয়ে গেছে নবগঙ্গা নদী। উদয়পুর গ্রামের শেষ প্রান্তে এই নদীর অবস্থান। এই গ্রামটি ঝিনাইদহ পৌরসভার মধ্যে অবস্থিত। উদয়পুরের নিচে নদীটির যে স্থানে শুরু সেখান থেকে ঝিনাইদহ সদর উপজেলার পোড়াহাটি ইউনিয়নের শুরু। ঝিনাইদহ শহর থেকে পবহাটির মধ্যদিয়ে উদয়পুর, বারইখালী, ইস্তেফাপুর, বালিয়াডাঙ্গা গ্রাম হয়ে মধুপুরে একটি রাস্তা মিশে গেছে। মধুপুর ছাড়া অন্য ৪ গ্রামের মানুষ উদয়পুরের রাস্তা ব্যবহার করে ঝিনাইদহ শহরে আসেন। এতে তাদের মাত্র ৩ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করলেই চলে। আর মধুপুর হয়ে শহরে আসতে হলে অতিরিক্ত ৮ কিলোমিটার ঘুরতে হয়। যে কারণে তারা দীর্ঘদিন উদয়পুর ঘাটে একটি সেতু নির্মাণের দাবি জানিয়ে আসছেন।

উদয়পুর গ্রামের মোহাম্মদ আলী জানান, তাদের গ্রামের সন্তান মুক্তিযোদ্ধা মতিয়ার রহমান। তিনি ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বপালন কালে ১৯৯৬ সালের ১৫ জুলাই মৃত্যুবরণ করেন। তার দাফনের সময় উপস্থিত হন বর্তমান বানিজ্য মন্ত্রী তোফায়েল আহম্মদ। এরপর ১৯৯৬ সালের ৭ আগস্ট তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আসেন মতিয়ার রহমানের কবর জেয়ারতে।

মোহাম্মদ আলী আরও জানান, প্রধানমন্ত্রীর আগমনের খবরে তারা নবগঙ্গার পাড়ে একটি মঞ্চ করে জনসভার আয়োজন করেন। পাশ্ববর্তী কয়েক গ্রামের মানুষ সেখানে সমবেত হন। এলাকার মানুষ শেখ হাসিনার কাছে একটাই দাবি করেন নবগঙ্গা নদীর উপর উদয়পুর ঘাটে একটি সেতু নির্মাণের। যে সেতুটি তারা মুক্তিযোদ্ধা মতিয়ার রহমানের নামে নামকরণের প্রস্তাব দেন। প্রধানমন্ত্রীও গ্রামের মানুষের এই দাবির প্রতি সমর্থন দিয়ে দ্রুত এখানে সেতু নির্মাণের ব্যবস্তা করার প্রতিশ্রুতি দেন। কিন্তু গত ১৮ বছরের সেই স্থানে সেতু নির্মাণ হয়নি।

এ ব্যাপারে এলজিইডির ঝিনাইদহ নির্বাহী প্রকৌশলী রকিব-উল-আমলের সাথে কথা বললে তিনি জানান, পেছনের ঘটনাগুলো তার জানা নেই। তবে বিষয়টি খোঁজ নিয়ে পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

এএজে/সাকি