চলে গেলেন ইয়াসিনও

0
56
road_accident
ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে বাসচাপায় তরুনীর মৃত্যু- ফাইল ছবি
road_accident
ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে বাসচাপায় তরুনীর মৃত্যু- ফাইল ছবি

মাস তিনেক আগে বিহারি ক্যাম্পে ঘটে যাওয়া সহিংসতায় তার পরিবারের ৯ সদস্য একসঙ্গে পুড়ে মারা যায়। দগ্ধ এক কন্যা এখনো চিকিৎসাধীন। ইয়াসিন আলীই (৫৫) ছিলেন নিজের পরিবারের একমাত্র সুস্থভাবে জীবিত মানুষটি। শনিবার সড়ক দুর্ঘটনা কেড়ে নেয় তার সুস্থতাও। দুপুরের দিকে মারা যান তিনি।

এ বিষয়ে পল্লবী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) বিপ্লব কিশোর শীল সাংবাদিকদের বলেন, দুর্ঘটনার কথা শুনেছি। খোঁজ নেওয়া হচ্ছে।

জানা গেছে, সকালে মেয়ে ফারজানার জন্য ওষুধ আনতে কালশীর বিহারি ক্যাম্পের বাড়ি থেকে নিউমার্কেটে যাওয়ার উদ্দেশে বের হন ইয়াসিন মিয়া। পল্লবীর পূরবী সিনেমা হলের সামনে থেকে বাসে ওঠার সময় পাশ দিয়ে যাওয়া আরেকটি বাস তাকে সজোরে ধাক্কা দিয়ে পালিয়ে যায়। আহত অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে ইয়াসিন মিয়াকে পার্শ্ববর্তী একটি হাসপাতালে নিয়ে যান স্থানীয় লোকজন। পরে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে চিকিত্সাধীন অবস্থায় বেলা ২টার দিকে ইয়াসিন মারা যান। তার লাশ ঢাকা মেডিকেল কলেজের মর্গে রয়েছে।

উল্লেখ, চলতি বছরের জুনে শবে বরাতের রাতে পটকা ফোটানোকে কেন্দ্র করে স্থানীয়দের সঙ্গে বিহারি ক্যাম্পের বাসিন্দাদের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এই ঘটনার জের ধরে দুর্বৃত্তরা আগুন দেয় কুর্মিটোলা বিহারি ক্যাম্পে অবস্থিত ইয়াসিন আলীর ঘরে। তখন দগ্ধ হয়ে মারা যান ইয়াসিনের পরিবারের ৯ সদস্য। ফারজানা নামে তার অগ্নিদগ্ধ এক কন্যা এখনো চিকিৎসাধীন।

সাকি/