ভারত-পাকিস্তানে বন্যায় মৃতের সংখ্যা ২০০ ছাড়িয়েছে

0
60
jammu-k-floods
ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মিরের একটি এলকায় বন্যার পানি ভেঙে হাঁটছেন দুই ভারতীয় সেনা।

ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীর এবং পাকিস্তানের পূর্বাঞ্চলে প্রবল বর্ষণের ফলে সৃষ্ট আকস্মিক বন্যা ও ভূমিধসে মৃতের সংখ্যা ২০০ ছাড়িয়েছে। শনিবার বিবিসির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

jammu-k-floods
ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের একটি এলাকায় বন্যার পানি ভেঙে হাঁটছেন দুই ভারতীয় সেনা।

কর্মকর্তারা বলছেন, পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত আজাদ কাশ্মীর ও পাঞ্জাব অঞ্চলে বন্যায় এ পর্যন্ত অন্তত ১১০ জন নিহত  হয়েছে। ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু কাশ্মীর অঞ্চলে বন্যায় নিহত হয়েছে প্রায় ১০০ জন। এছাড়া উভয়  এলাকায় শত শত ঘরবাড়ি পানির নিচে তলিয়ে গেছে।

বার্তা সংস্থা এপি জানায়, কাশ্মীরের ভারত অংশে শুক্রবারে ৪৭ জনের প্রাণহানি ঘটে। এর মধ্যে পুঞ্চ অঞ্চলে বাড়ি ধসে ১৫ জন মারা যায়। পৃথক এক ঘটনায় সেতু ধসে একজন প্যারামিলিটারি সৈনিকসহ ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে।

এদিকে, আজ শনিবার ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং বন্যা কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেছেন।

অপরদিকে, মৌসুমী বৃষ্টিপাতের ফলে সৃষ্ট বন্যায় পাকিস্তানের বিভিন্ন অংশে প্রাণহানি ও ক্ষয়ক্ষতির ঘটনা ঘটেছে। বন্যায় দেশটির পাঞ্জাব ও কাশ্মীর অঞ্চল বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। সারা পাকিস্তান জুড়ে বন্যা সতর্কতা জারি করা হয়েছে।

কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, শুধু শুক্রবারেই কাশ্মীরের পাকিস্তান অংশে ৩ সৈনিকসহ ৩০ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। পৃথক আরেক ঘটনায় ছাদ ধসে পাকিস্তানের পূর্ব পাঞ্জাবে ৩৬ জন মারা গেছে।

দেশটির দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের পক্ষ থেকে জানানো হয়, আরও কয়েকদিন ধরে বৃষ্টিপাতের আভাস মিলেছে। ফলে বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি হতে পারে এবং ক্ষয়ক্ষতির মাত্রা বাড়তে পারে।

উল্লেখ্য, কাশ্মীর অঞ্চলে সৃষ্ট বন্যা পরিস্থিতি গত ২ দশকের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ। এ ঘটনায় ওই অঞ্চলের অনেক এলাকার বিদ্যুৎ ও টেলিফোন সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয়েছে। ১ সপ্তাহের জন্য স্কুল কলেজ বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। আক্রান্তদের উদ্ধারে দুই দেশেই সেনা ও বিমানবাহিনীর সদস্যরা কাজ করছে।