জাবিতে পোষ্য কোটা নির্দিষ্টের দাবি

0
55
দুই দফা দাবিতে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) পোষ্য কোটায় আসন সুনির্দিষ্টকরণ এবং ভর্তি পরীক্ষায় অনুত্তীর্ণ পোষ্যদের বিশেষ সুবিধায় ভর্তি বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন হয়েছে।

দুই দফ দাবিতে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন।
দুই দফা দাবিতে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন।

আজ বৃহস্পতিবার সাধারণ শিক্ষার্থীদের ব্যানারে আয়োজিত মানববন্ধনে বিভিন্ন বিভাগের দুই শতাধিক শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন। মানববন্ধন শেষে দুই হাজার শিক্ষার্থীর স্বাক্ষর সম্বলিত একটি স্মারকলিপি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বরাবর প্রদান করা হয়।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিতে ৭ রকমের কোটার প্রচলন রয়েছে। এর ৬টি কোটায় আসন সংখ্যা নির্দিষ্ট থাকলেও পোষ্যকোটায় তা নেই।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সন্তানরা ভর্তি-পরীক্ষায় শতকরা ৩৫ ভাগ নম্বর পেলেই পোষ্য কোটায় ভর্তির সুযোগ পান। অনেক সময় পরীক্ষায় ন্যূন্তম পাস নম্বর না পেলেও তারা ঠিকই ভর্তির সুযোগ পান।

ইতিহাস বিভাগের শিক্ষার্থী ইন্দ্রজিত ভৌমিক বলেন, ‘পোষ্য কোটায় ভর্তির জন্য ৩ নম্বর, কোনো কোনো সময় ৭ নম্বর গ্রেস দিয়ে পাস নম্বর বানিয়ে ভর্তি করানোর ইতিহাস সবাই জানে। নাতনিকে পোষ্য বানিয়ে ভর্তি করার ঘটনাও আমরা শুনেছি। এতে প্রকৃত মেধাবী শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এই অনিয়ম বন্ধ করে প্রতিযোগিতার মাধ্যমে পোষ্য কোটায় ভর্তির ব্যবস্থা করতে হবে’।

এ প্রসঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম বলেন, গ্রেস নম্বর দেওয়ার বিষয়টি দীর্ঘদিন ধরে চলে আসছে। তাই হঠাৎ করে এটি পরিবর্তন করা যাবে না। চলতি বছর থেকে গ্রেস নম্বর না দেওয়ার চেষ্টা থাকবে। তবে পোষ্য কোটায় আসন সংখ্যা সুনির্দিষ্ট করার বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেননি উপাচার্য ফারজানা।