ওরা বাঁচতে চায়

0
41
nurtaj

nurtajসুন্দর এই পৃথিবীতে সুস্থভাবে বাঁচতে চায় মেধাবী ছাত্রী নুরতাজ খাতুন (১৩) ও তার ছোট ভাই জামান (৮)। আজ ওরা দু’ভাই-বোন দুরারোগ্য ব্যাধি ক্যান্সারে আক্রান্ত। মলিন ওদের মুখ। প্রতি নিয়ত মৃত্যুর যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছে ওরা।

নুরতাজ খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে অষ্টম শ্রেনীর ছাত্রী। ২০১২ সালে তার শারীরিক অসুস্থায় স্থানীয় ডাক্তার-কবিরাজ দেখিয়ে যখন তার কোন রোগ নির্ণয় করা যাচ্ছিলনা তখন তাকে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের কাছে চিকিৎসার জন্য নেওয়া হলে ডাক্তার পরীক্ষা নিরীক্ষা করে ডাক্তার বলেন সে ক্যান্সার আক্রান্ত।

এক পর্যায়ে তাকে ২০১৩ সালে ১ জুলাই চিকিৎসার জন্য ভারতের মাদ্রাজ নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে দেড়মাস চিকিৎসার পর প্রায় দেড় লক্ষ টাকা ব্যয় করে বাড়ীতে আনা হয়। ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী তাকে ২ মাস পরে আবারও মাদ্রাস নিয়ে যাওয়া হয়। তার জন্য ব্যয় হয় এক লাখ টাকা। ডাক্তারের পরামর্শে আবারও তাকে মাদ্রাস নিয়ে যেতে হবে।

নুরতাজের একমাত্র ভাই জামান স্থানীয় একটি স্কুলে তৃতীয় শ্রেণীতে পড়ে। চলতি বছর ২৫ জুলাই একটি দুঘর্টনায় তার একটি পা ভেঙ্গে যায়। স্থানীয় পর্যায়ে তার চিকিৎসা শেষে অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় তাকে ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়। সেখানে কর্তব্যরত ডাক্তাররা পরীক্ষা নিরীক্ষা শেষে তার বোন (হাড়) ক্যান্সার হয়েছে বলে জানান।

এমতাবস্থায় ওরা দু’ভাই-বোন অর্থের অভাবে উন্নত চিকিৎসার সেবা থেকে বঞ্চিত হয়ে বাড়ীতে ধুকে ধুকে মরছে। তাদের দু’ভাই-বোনের চিকিৎসার জন্য কমপক্ষে ১৫ লাখ টাকার প্রয়োজন। এই টাকাটাই বাঁচাতে পারতে দুটি শিশুর জীবন।

ওদের বাবা শেখ নুর মোহাম্মাদ স্থানীয় একটি বে-সরকারী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারী ও ভুমিহীন। মাতা গৃহিনী। তাদের পক্ষে ওই পরিমান টাকা যোগাড় করা কোনক্রমে সম্ভব নয়। তাই সমাজের বিত্তবান মানুষের কাছে তাদের ক্যান্সার আক্রান্ত সন্তান দু’টির চিকিৎসা ব্যয়ের জন্য আর্থিক সহযোগিতা কামনা করেছেন।

তাদের বাবার সাথে যোগাযোগের জন্য মোবাইল নং- ০১৭১৩-৯১০০৬৬, অথবা অর্থ পাঠানোর ঠিকানা সোনালী ব্যাংক লিমিটেড, ডুমুরিয়া শাখা, খুলনা। সঞ্চয়ী হিসাব নং- ০০২১২৪১২।