কালীগঞ্জে মজুদ ব্যবস্থা না থাকায় নষ্ট হচ্ছে সার

0
35

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে বাফার (বাংলাদেশ ফার্টিলাইজার) গোডাউনে ধারণ ক্ষমতার অতিরিক্ত ইউরিয়া সার মজুদ রাখা হয়েছে। খোলা আকাশের নিচে পড়ে আছে সাড়ে ৮ হাজার মেট্রিকটন সার। সব মিলিয়ে এখানে মজুদ পড়ে রয়েছে ২৭ কোটি টাকার ইউরিয়া সার। তাই এসব সারের গুণগতমান নিয়েও রয়েছে নানা প্রশ্ন।UREA Fertilizer

এ গোডাউনের ধারণ ক্ষমতা ৮ হাজার মেট্রিকটন। কিন্তু এতে রাখা হয়েছে ১১ হাজার মেট্রিকটন সার। আর গোডাউনের বাইরে পড়ে আছে সাড়ে ৮ হাজার মেট্রিকটন সার।

জানা গেছে, কৃষিপ্রধান ঝিনাইদহ, কুষ্টিয়া, মেহেরপুর ও চুয়াডাঙ্গার জেলার ইউরিয়া সারের চাহিদা মেটানোর লক্ষে ১৯৮৪ সালে সরকারিভাবে জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার শিবনগরে প্রায় ৬ একর জমির উপর নির্মাণ করা হয় বাফা সার গোডাউন।

পাকশিসহ বিভিন্ন স্থান থেকেও এনে এখানে মজুদ রাখা হয়। যা অত্র অঞ্চলের ইউরিয়া সারের চাহিদা পূরণ করে। কিন্তু বাফা সার গোডাউনটি নানা সমস্যায় জর্জোরিত। ২২৪ জন সার ডিলার কালীগঞ্জ বাফার গোডাউন থেকে ইউরিয়া সার উত্তোলন করেন। খোলা আকাশের নিচে রাখা হয়েছে এ সারগুলো। ফলে একটু বৃষ্টিতেই সারের গাদার নিচে জমে পড়ছে পানি। ফলে গলে গলে নষ্ট হচ্ছে সার।

অন্যদিকে গোডাউনের বাইরে থাকা সারের গুণগতমান দিনের পর দিন নষ্ট হচ্ছে। সব মিলিয়ে এখানে মজুদ পড়ে রয়েছে ২৭ কোটি টাকার ইউরিয়া সার।

এএনএ/