ভারতে ফের কমেছে পেট্রোলের দাম

0
34
Petrol_price
ছবি: সংগৃহিত

ভারতে আবারও কমেছে পেট্রোলের দাম। কমেছে রান্না গ্যাসের দামও কমেছে। তবে সামান্য বেড়েছে  ডিজেলের দাম।

ভারতে একাধিক গণমাধ্যম এ তথ্য জানিয়েছে।

‘ফের কমলো পেট্রোল’ শিরোনামে আনন্দবাজারের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ফের কমলো পেট্রোলের দাম। এই নিয়ে একই মাসে তিন বার। কর বাদ দিয়ে প্রতি লিটারে দর কমছে ১.৫১ টাকা। একই সঙ্গে কমেছে ভর্তুকিহীন রান্নার গ্যাসের দাম। ১৪.২ কেজি-র এক একটি এলপিজি সিলিন্ডারের দাম কমলো ১৯ টাকা।

 কর যোগ করে কলকাতায় লিটারে পেট্রোলের দর কমলো ১.৮৯ টাকা। নতুন দর দাঁড়াল ৭৬.১৪ টাকা। তবে ডিজেলের দাম কর বাদ দিয়ে লিটারে নিয়ম মাফিক ৫০ পয়সা বেড়েছে। কলকাতায় কর যোগ করে বৃদ্ধি ৫৯ পয়সা, বর্ধিত দাম লিটারে ৬৩.৮১ টাকা। শনিবার তেল সংস্থাগুলির সূত্রে খবর, সব নতুন দাম মধ্যরাত্রি থেকেই চালু হয়েছে।

দিল্লিতে পেট্রোলের দাম ১.৮২ টাকা কমে হল ৬৮.৫১ টাকা, মুম্বইয়ে ১.৯১ টাকা কমে ৭৬.৪১ টাকা, চেন্নাইয়ে ১.৯২ টাকা কমে ৭১.৫৫ টাকা। পাশাপাশি, ডিজেলের দাম দিল্লিতে কর নিয়ে ৫৭ পয়সা বেড়ে হল ৫৮.৯৭ টাকা। মুম্বইয়ের নতুন দর ৬৩ পয়সা বেড়ে হল ৬৭.২৬ টাকা, চেন্নাইয়ে তা ৬২ পয়সা বেড়ে হয়েছে ৬২.৯২ টাকা।

বিশ্ব বাজারে অশোধিত তেলের দাম কমে আসা এবং ডলারের তুলনায় টাকার দাম কিছুটা বাড়ায় ভারতে কমেছে তেল আমদানির খরচ। তার জেরেই পেট্রোলের দাম কমানোর এই সিদ্ধান্ত বলে তেল সংস্থা সূত্রে খবর। এই দফায় পেট্রোলের দাম কমে যা দাঁড়াল, গত বছরের জুন মাসের পরে তা এত নীচে নামেনি। এ মাসে এর আগে তা কমানো হয় গত ১ অগস্ট এবং ১৫ অগস্ট।

একই কারণে কমানো হল ভর্তুকিহীন রান্নার গ্যাসের দর। প্রসঙ্গত, কোটা অনুযায়ী প্রতিটি গৃহস্থ বছরে ভর্তুকিতে ১২টি সিলিন্ডার পেতে পারেন। তার বেশি লাগলে বাজার দরে তা কিনতে হয়। এই ভর্তুকিহীন সিলিন্ডারের ক্ষেত্রে দিল্লির দাম আগামী কাল থেকে কমে হচ্ছে ৯০১ টাকা।

এ ছাড়া, এক লপ্তে যারা বিপুল পরিমাণ ডিজেল কেনে, তাদের ক্ষেত্রেও দর কমলো। বাজার দরেই তাদের এই ডিজেল কিনতে হয়, যা পাম্পের দরের থেকে বেশি। এখন থেকে তা দিল্লিতে কমছে লিটারে ১.৩২ টাকা। উল্লেখ্য, রেলওয়ে, প্রতিরক্ষা বিভাগ এবং বিভিন্ন রাজ্য সরকারি পরিবহণ সংস্থাগুলি বাজার দরে এই ডিজেল কিনে থাকে। এদেরই ‘বাল্ক ডিজেল’ ক্রেতা হিসেবে চিহ্নিত করেছে তেল সংস্থাগুলি।

তবে গত ২০১৩ সালের জানুয়ারিতে নেওয়া সিদ্ধান্ত অনুসারে ডিজেলের দাম প্রতি মাসে বাড়ছে লিটারে ৫০ পয়সা করে। যতদিন না ডিজেল বিক্রিতে ভর্তুকি শূন্যে নেমে আসে, যার অর্থ বাজারের ভিত্তিতে নির্ধারিত দর এবং বিক্রয় মূল্যের মধ্যে ফারাক না-থাকা, ততদিন এ ভাবেই তা বাড়ানোর পদ্ধতি বহাল রেখেছে কেন্দ্রীয় সরকার।