বন্যা পরিস্থিতির অবনতি

0
32
Sheikher Jaiga6
বন্যায় প্লাবিত হয়েছে খিলগাঁওয় মাদারটের শেখের জায়গা এলাকা। দৈনন্দিন কাজে একমাত্র অবলম্বন নৌকা। ছবি: খালেদুল কবির নয়ন

দেশের অধিকাংশ প্রধান নদ-নদীতে পানির উচ্চতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। বন্যা দুর্গত ১৭ জেলার মধ্যে ৯ জেলার পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। নতুন করে প্লাবিত হয়েছে আরও কযেকটি এলাকা।

Sheikher Jaiga6
বন্যায় প্লাবিত হয়েছে খিলগাঁওয় মাদারটের শেখের জায়গা এলাকা। ছবি: খালেদুল কবির নয়ন

শনিবার সকাল ৬টায় বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র থেকে বলা হয়েছে, আগামী ৭২ ঘণ্টায় ব্রহ্মপুত্র, যমুনা, পদ্মা এবং রাজধানী ঢাকার আশেপাশের নদীগুলোর পানি আরও বৃদ্ধি পেতে পারে। বুড়িগঙ্গা, বালু, তুরাগ ও টঙ্গী খালের পানি বৃদ্ধির পাশাপাশি মিরপুর পয়েন্টে তুরাগের পানি বিপদসীমা অতিক্রম করতে পারে।

বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের তথ্য অনুযায়ী, শনিবার সকালে ধরলার কুড়িগ্রাম স্টেশন, ঘাগট নদীর গাইবান্ধা, ব্রহ্মপুত্রের চিলমারি, যমুনার বাহাদুরাবাদ, সারিয়াকান্দি, সিরাজগঞ্জ ও আরিচা, আত্রাইয়ের বাঘাবাড়ি, গুর নদীর সিংড়ায়, ধলেশ্বরীর এলাশীন, কালিগঙ্গার তারাঘাট, লক্ষ্যা নদীর লাখপুর ও নারাযণগঞ্জ, পদ্মা নদীর গোয়ালন্দ, ভাগ্যকূল ও সুরেশ্বর, সুরমা নদীর সুনামগঞ্জ, কুশিয়ারা নদীর শেরপুর, সুরমা নদীর দিরাই, কংশ নদীর জারিয়াজাঞ্জাইল পয়েন্টে নদীর পানি বিপদ সীমার ওপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে।

আগামী ৩ দিনে শরীয়তপুর, মাদারীপুর, মুন্সীগঞ্জ, রাজবাড়ী এবং ফরিদপুর জেলার বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হতে পারে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে বন্যা সতর্কীকরণ কেন্দ্র। বগুড়া, সিরাজগঞ্জ, জামালপুর ও টাঙ্গাইল জেলায় বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত থাকতে পারে।

তবে গঙ্গা অববাহিকার নদ-নদীর পানি কমতে শুরু করায় আগামী ৭২ ঘণ্টায় লালমনিরহাট, কুড়িগ্রাম, নীলফামারি, রংপুর, নেত্রকোনা, সুনামগঞ্জ ও সিলেট জেলার বন্যা পরিস্থিতির সামান্য উন্নতি হতে পারে বলে আশা করছে পানি উন্নয়ন বোর্ড।

শুক্রবার দেশের ১৫টি নদীর পানি ২০টি পয়েন্টে বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল। এরমধ্যে ১৩টি পয়েন্টে পানি বৃদ্ধির প্রবণতা অব্যাহত রয়েছে।

ভাটির নদ-নদীগুলোর পানি অব্যাহতভাবে বাড়তে থাকায় ইতোমধ্যে এসব এলাকার কয়েক হাজার মানুষ বাড়ি-ঘর হারিয়েছেন; পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন কয়েক লাখ মানুষ। রোপা, আমন ও সবজি ক্ষেতসহ ফসলের ব্যাপক ক্ষতির আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা। ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে রাস্তা-ঘাট, স্কুল-কলেজ ও হাসপাতালসহ বিভিন্ন অবকাঠামো।

বন্যা কবলিত এলাকাগুলোয় সরকারি ত্রাণ বিতরণের ব্যবস্থা হলেও তা অপ্রতুল বলে অভিযোগ করছেন পানিবন্দি মানুষ।

এমই/