এই মৌসুমে ত্বক ও চুলের যত্ন

0
85
ত্বকের যত্ন- ফাইল ছবি
haircare
চুলের যত্ন- ফাইল ছবি

এই রোদ উঠছে তো আবার বৃষ্টি পড়ছে। এ রকম স্যাঁতস্যাতে আবহাওয়ার মধ্যেই প্রত্যেককে সারা দিন ছোটাছুটি করতে হয়। ফলে ত্বক ও চুল অনেকাংশেই নাজুক হয়ে পড়ে, নির্জীব দেখায়। তাই এই সময় বাড়ি ও বাইরে দরকার একটু যত্নের।

এ সময় কিশোর-কিশোরীদের মধ্যে ব্রণের আক্রমণ বেড়ে যায়। মুখের ত্বক তৈলাক্ত হওয়া ও ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণের কারণে ব্রণ পেকে ফুসকুড়ির মতো হয়ে পড়তে পারে।

এছাড়া মশা-মাছি ও নানা প্রকার পোকামাকড়ের উপদ্রবের কারণেও শিশুদের অ্যালার্জি, ত্বকে ফোসকা পড়া বা লাল দানা হওয়ার সমস্যাও দেখা যায়।এ সময় ভেজা চুলেরও সমস্যার অন্ত থাকে না।

তাই এবার অর্থসূচকের পক্ষ থেকে জানিয়ে দেওয়া হলো এই মৌসুমে কিভাবে নেবেন ত্বক ও চুলের যত্ন:

ত্বকের যত্ন:

এ সময়টাতে যতটা সম্ভব ত্বক পরিষ্কার রাখতে হবে। এতে মরা চামড়া দূর হবে এবং ত্বকের ছিদ্রে অক্সিজেন যাবে। মরা চামড়া দূর করার জন্য সপ্তাহে একবার স্ক্রাব ব্যবহার করুন। ঘরে বসেই এটি বানাতে পারেন এভাবে-

চালের গুঁড়া, লেবুর রস, শসার রস ও গাজরের রস-এই উপকরণগুলো মিশিয়ে এক মিনিট ধরে ম্যাসাজ করুন। অ্যালার্জি না থাকলে একটু কাঁচা হলুদ বা নিমপাতা মিশিয়ে নিন। অ্যান্টিসেপটিক হিসেবে কাজ করবে।

মাস্কঃ ত্বক ঠিক রাখতে এবং উজ্জ্বলতা বাড়াতে দিতে পারেন মাস্ক। একটি পাকা কলা, এক টেবিল চামচ চালের গুঁড়া বা ময়দা ও দুই টেবিল চামচ পাকা পেঁপে মিশিয়ে ১৫-২০ মিনিট মুখে লাগিয়ে রাখুন।

রোদে ত্বক পুড়ে যাচ্ছে। শুধু পাকা পেঁপে লাগিয়ে নিন। পোড়া ভাব কমে যাবে।

শুষ্ক ত্বকের অধিকারীরা পরিমাণমতো দুধ ও মধু মেশিয়ে সঙ্গে নিন পেঁপে ও কলার মিশ্রণ। মিশিয়ে ১০-১৫ মিনিট মুখে লাগিয়ে ধুয়ে ফেলুন। ভালো উপকার পাবেন।

চুলের যত্ন

বাতাসে আর্দ্রতার কারণে ছত্রাক জন্ম নেওয়ায় খুশকি বেড়ে যায়। পাশাপাশি চুলের গোড়া নরম থাকায় চুলও পড়ে বেশি। তাই এ সময় চুলেরও একটু বাড়তি যত্ন আবশ্যক।

তাড়াহুড়ো না থাকলে চুলে এ সময় হেয়ার ড্রায়ার ব্যবহার না করাই ভালো। ভেজা চুল আঁচড়ানো থেকে বিরত থাকুন। সপ্তাহে ২ বার না হলেও ১বার চুলে ম্যাসাজ করা উচিত।

নারকেল তেল গরম করে এর সঙ্গে লেবুর রস মিশিয়ে নিন। চুলের গোড়ায় দিয়ে আলতো হাতে কিছুক্ষণ ঘষতে থাকুন। এতে মরা চামড়া বা খুশকি চলে যাবে। একটি তোয়ালে গরম পানিতে চুবিয়ে ১০ মিনিট মাথায় পেঁচিয়ে রাখুন। চুলের গোড়া শক্ত হবে।

মাস্কঃ টক দুই, মেথির গুঁড়া, নিমপাতা ও একটি ডিম ব্লেন্ড করে সপ্তাহে এক দিন মাথায় দিতে পারেন। এরপর ২০-৩০ মিনিটরেখে তা ধুয়ে ফেলুন।

skin-sokh
ত্বকের যত্ন- ফাইল ছবি

এই ক্ষতুতে রিবন্ডিং, স্পাইরাল বাইন্ডিং, আয়রন ও চুলের রং ব্যবহার না করাই ভালো।

এই মৌসুমে ত্বক ও চুলের যত্নে একটু সচেতন থাকা উচিত বলে জানিয়েছেন বারডেম হাসপাতালের চর্ম বিভাগের ডা. মো মনিরুজ্জামান খান। তিনি বলেছেন,

-এ সময় ভারী জামা-কাপড় না পরে হালকা রঙের সুতি পাতলা জামা পরুন। ঘামে ভিজে গেলে দ্রুত পাল্টে নিন। ভেজা কাপড় পরে থাকলে ছত্রাক সংক্রমণের আশঙ্কা বেশি।

-নিয়মিত প্রয়োজনে দিনে ২বার গোসল করুন। জীবাণুনাশক সাবান ব্যবহার করতে পারেন। ঘামে বা বৃষ্টিতে ভিজলে ত্বক ধুয়ে শুকিয়ে নিন।

-সারা দিন জুতা-মোজা না পরে বরং হালকা চপ্পল বা খোলা স্যান্ডেল পরা ভালো। তবে খালি পায়ে হাঁটবেন না। রাস্তায় এখন যত্রতত্র নোংরা পানি জমে আছে। পায়ের ত্বককে এই নোংরা পানি থেকে বাঁচিয়ে রাখুন।

-ভেজা চুল ভালো করে শুকিয়ে নিয়ে তবে বাঁধবেন, নইলে মাথার ত্বকে সমস্যা হতে পারে।

-বাড়িতে কারও ছত্রাক সংক্রমণ হয়ে থাকলে শিশুদের তার কাছ থেকে দূরে রাখুন।

এছাড়া এই মৌসুমে বেশি বেশি ফল খাওয়ারও পরামর্শ দিয়েছেন ডা. মো মনিরুজ্জামান খান। তিনি বলেন, বেল, কলা, পেয়ারা, শসা, টমেটো, গাজর, পাতিলেবু ও জাম্বুরা ত্বক ও চুলে এনে দেয় প্রাণ। এ ছাড়া খালি পেটে ছোলা ভেজানো বা মুগের ডাল ভেজানো খেলে ত্বক জীবাণুমুক্ত থাকবে বলেও জানান এ চর্ম বিশেষজ্ঞ।

এএসএ/