‘রেজিস্ট্যান্স’ ভাঙ্গার অপেক্ষায় বাজার

0
106
resistance-pupport
শেয়ারবাজার গ্রাফ
resistance-pupport
শেয়ারবাজার গ্রাফ

সম্প্রতি সূচিত গতিশীলতায় অনেক দূর এগিয়েছে বাজার। লেনদেনের পাশাপাশি বেড়েছে বিভিন্ন খাতের শেয়ারের দাম। এর মধ্যেও একটি জায়গায় এসে ঘুরপাক খাচ্ছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান মূল্যসূচক-ডিএসইএক্স।গত ১৪ কার্যদিবস ধরে এ সূচক ৪ হাজার ৫০০ পয়েন্ট থেকে ৪ হাজার ৬০০ পয়েন্টের মধ্যে উঠা-নামা করছে।

টেকনিক্যাল বিশ্লেষকদের মতে, ৪ হাজার ৬০০ পয়েন্ট হচ্ছে ডিএসইএক্স হচ্ছে রেজিস্ট্যান্স লেভেল।এর কাছাকাছি এসে সূচক বাধা পাচ্ছে; রেজিস্ট্যান্স ভাঙ্গতে পারছে না।তবে বাজারে ব্যক্তি ও প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের অংশগ্রহণ যে হারে বাড়ছে, তাতে শিগগীরই হয়তো রেজিস্ট্যান্স ভাঙ্গতে পারে।আর তা ভাঙ্গলে বাজার অনেক দূর যাওয়ার শক্তি পাবে।কিন্তু একটি বড় সময়ের পরও রেজিস্ট্যান্স ভাঙ্গা না গেলে বাজার বেশ নিম্নমুখী হয়ে উঠতে পারে।ডিএসইএক্স অনেক নিচে নেমে আসতে পারে। কারণ ৪ হাজার ৩০০ পয়েন্টের আগে কোনো সাপোর্ট লেভেল নেই।ফলে এর আগে বাজার টেকনিক্যালি কোনো সাপোর্ট পাবে না বাজার।

dsex-resistance
ডিএসইএক্সের উঠা-নামা

গত ১০ আগস্ট ডিএসইএক্স ৪ হাজার ৫০০ পয়েন্ট অতিক্রম করে।দিনশেষে সূচকের অবস্থান দাঁড়ায় ৪ হাজার ৫৩০ পয়েন্ট। ১৯ আগস্ট সূচক বেড়ে ৪ হাজার ৫৭৬ পয়েন্টে উঠে। কিন্তু তার পরদিনই থেকেই আবার তা কমতে থাকে। গত ২৪ আগস্ট এ সূচক কমে দাঁড়ায় ৪ হাজার ৫৪০ পয়েন্ট।পরদিন সূচক ঘুরে দাঁড়ায়।কিন্তু রেজিস্ট্যান্স পয়েন্ট ছুঁই ছুঁই অবস্থা থেকে আবার তা নিচে নেমে আসে। ২৭ আগস্ট ডিএসইএক্সের অবস্থান ছিল ৪ হাজার ৫৯৯ পয়েন্ট, ২৮ আগস্ট তা কমে হয় ৪ হাজার ৫৭৭ পয়েন্ট।রেজিস্ট্যান্স ভাঙ্গতে প্রয়োজন আর ২৪ পয়েন্ট দরকার। আগামী সপ্তাহে সূচকটি ২৪ পয়েন্ট বাড়তে পারবে, নাকি কমে নিচে নেমে আসবে তা-ই এখন দেখার বিষয়।

বিশ্লেষকরা মনে করেন, বাজারে যে গতি সঞ্চার হয়েছে তাতে যে কোনো দিন রেজিস্ট্যান্স ভেঙ্গে যেতে পারে। তাদের মতে, গত দু’তিন দিন বাজারে লেনদেন একটু কম হলেও তা আশংকা জাগানোর মতো নয়। বরং অনেক পরিণত আচরণ এটি। তাদের মতে, আগের দু’তিন সপ্তাহে বড় মূলধনের কোম্পানিগুলোর শেয়ারের দাম অনেক বেড়েছিল। এ সপ্তাহে সেগুলোতে মূল্য সংশোধন হয়েছে। অন্যদিকে সম্প্রতি তালিকাভুক্ত কয়েকটি কোম্পানির শেয়ারে বিনিয়োগের জন্য অনেক বিনিয়োগকারী অপেক্ষা করায় পুরনো শেয়ারে বিনিয়োগ থেকে কয়েকদিন নিষ্ক্রিয় তারা।এ কারণে বাজারে লেনদেন কমেছে। কিন্তু আগামী সপ্তাহে লেনদেনের পরিমাণ আলোচিত সপ্তাহকে ছাড়িয়ে যেতে পারে।