‘সব প্রতিষ্ঠান এক হাতে নিতেই অভিশংসন নীতিমালা’

0
24
abdur rouf
ফাইল ছবি: সাবেক প্রধান বিচারপতি আব্দুর রউফ
abdur rouf
ফাইল ছবি: সাবেক প্রধান বিচারপতি আব্দুর রউফ

সব সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান এক হাতে নিতেই সরকার বিচারপতিদের অভিশংসনের ক্ষমতা সংসদের হাতে দিচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন সুপ্রিম কোর্টের সাবেক বিচারপতি ও সাবেক প্রধান নির্বাচন কমিশনার মোহাম্মদ আব্দুর রউফ।

বৃস্পতিবার সন্ধ্যায় জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে ওয়ার্ল্ড ওয়াচ সোসাইটি আয়োজিত ‘স্বাধীন বিচার বিভাগের ওপর প্রস্তাবিত সংবিধান সংশোধনী’ এর প্রভাব শীর্ষক গোলটেবিল আলোচনায় তিনি এ মন্তব্য করেন।

আব্দুর রউফ বলেন, ইংল্যান্ড ও ভারতের দোহাই দিয়ে আমরা এমন আইন করতে পারি না। কারণ তাদের মতো আমাদের গণতন্ত্র শক্তিশালী নয়। আমাদের দেশ আমাদের মতো চলবে।

তিনি বলেন, সুপ্রিম কোর্টের জন্য আলাদা মন্ত্রণালয় গঠন করার কথা থাকলেও আজ পর্যন্ত ভয়ে করা হয়নি। ১৯৭২ সালে না বুঝে এ ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে। কিন্তু এখন তা করা উচিত হবে না।

তিনি আরও বলেন, আমাদের সংসদ তো একটি ট্রেডিং কর্পোরেশন। যেখানে আয়-ব্যয়ের হিসাব ছাড়া কিছুই হয় না। অনেক কষ্টে নাম মাত্র সংসদীয় কমিটি করা হয়েছে। তাদের কথা তো কেউই শোনে না। সংসদ সদস্য হয় তো ‘চান্সে’। তাদের হাতে ক্ষমতা দিলে তো বর্তমানে যা আছে তাও শেষ হয়ে যাবে।

সরকারের উদ্দেশে রউফ বলেন, ঘরে বসেই যদি সংসদ সদস্য হওয়া যায় তা হলে তো এমনই হবে। আপনারা তো অনেক আগেই জনগণের আস্থা হারিয়েছেন।

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেন, যে দেশে স্বাধীন বিচার বিভাগ থাকে সে দেশে গণতন্ত্র শক্তিশালী থাকে এবং অর্থনৈতিক অবস্থা ভালো থাকে। বিচারপতিদের অভিশংসনের ক্ষমতা সংসদের হাতে দেওয়ার প্রয়োজন না থাকলেও ভবিষ্যতে সরকারের প্রয়োজন থাকতে পারে।

তিনি বলেন, পরবর্তী নির্বাচন যাতে বিচার বিভাগ বাতিল না করতে পারে সেজন্য এ আইন করতে যাচ্ছে সরকার।

ওয়ার্ল্ড ওয়াচ সোসাইটির চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট লুৎফর রহমানের সভাপতিত্বে গোলটেবিল আলোচনায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সুপ্রিম কোর্টের অ্যাডভোকেট ড. কাজী জাহেদ ইকবাল।

এমআই/সাকি