আদালত থেকে পালালেন ২ চিকিৎসক

0
45

docterদুর্নীতি মামলায় আদালতে আত্মসমর্পণের পর জামিন হবে না বুঝতে পেরে এজলাস থেকে পালিয়েছেন দুই চিকিৎসক।

বুধবার দুপুরে ঢাকার জ্যেষ্ঠ বিশেষ জজ আদালতে এ ঘটনার পর মেডিকেল কলেজে হাসপাতালের সাবেক পরিচালক অবসরপ্রাপ্ত বিগ্রেডিয়ার জেনারেল বজলে কাদেরসহ পাঁচজনকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

পালাতক দুই আসামি হলেন- ঢাকা মেডিকেল কলেজের (ঢামেক) সাবেক সহকারী অধ্যাপক আতিয়ার রহমান ও জ্যেষ্ঠ প্রভাষক মো. মশিউর রহমান।

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) একটি মামলায় বজলে কাদেরসহ সাত আসামি বুধবার জ্যেষ্ঠ বিশেষ জজ মো. জহুরুল হকের আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করেন।

এই সাতজনের মধ্যে বাকি চারজন হলেন – ঢাকা মেডিকেল কলেজে হাসপাতালের সাবেক উপ পরিচালক মো. ফজিউল্লাহ, হাসপাতালের সাবেক হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম (১) ও নজরুল ইসলাম (২) এবং সার্জিক্যাল যন্ত্রপাতির বিক্রেতা প্রতিষ্ঠান হাবিব ট্রেডার্সের মালিক হাবিবুর রহমান।
দুদকের আইনজীবী মীর আহমেদ আব্দুস সালাম জানিয়েছেন, শুনানির পর জামিন হবে না বুঝতে পেরে আদেশের কিছুক্ষণ আগে মশিউর ও আতিয়ার বিচার কক্ষ থেকে চুপচাপ পালিয়ে যান।

পরে আদালত সাত আসামির সবার জামিন আবেদন নাকচ করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিলে ২ জনের চম্পট দেওয়ার বিষয়টি বেরিয়ে আসে।

এ আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর মীর আহমেদ আলী সালাম বলেন, এ ঘটনায় বিচারক অসন্তুষ্ট হয়ে আসামিদের আইনজীবী ও কর্তব্যরত পুলিশকে কারণ দর্শানোর নোটিস দিয়েছেন।

দুদকের সহকারী পরিচালক তাহসিনুল হক ২০১১ সালের ১৬ নভেম্বর শাহাবাগ থানায় এ মামলা দায়ের করেন।

মামলার নথি থেকে জানা যায়, ২০০৯-১০ অর্থবছরে হাসপাতালের মালামাল কেনার জন্য দুই কোটি ৩১ লাখ ৮২ হাজার ৯২০ টাকার দরপত্র হয়। আসামিরা ব্যবসায়ী হাবিবুর রহমানের যোগসাজশে পুরো অর্থ আত্মসাৎ করেন।

তদন্ত শেষে পুলিশ চলতি বছরের ১৫ মে সাত আসামির বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেয়।