পাউবো পুনর্গঠন চায় ১৯ সংগঠন

0
31
wdb
wdb
অস্বাভাবিক জোয়ারের প্লাবন: ত্রাণ ও স্থায়ী প্রতিরক্ষার উপায়”শীর্ষক সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা।

বাঁধ নির্মাণ ও ব্যবস্থাপনায় পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) পুনর্গঠনের দাবি করেছে ১৯টি উপকূলীয় অধিকার ভিত্তিক সংগঠন।

সোমবার জাতীয় প্রেসক্লাবের ছোট হল রুমে ‘অস্বাভাবিক জোয়ারের প্লাবন: ত্রাণ ও স্থায়ী প্রতিরক্ষার উপায়”শীর্ষক এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি করেন সংগঠনগুলোর নেতারা।

জোয়ারের প্লাবনে আক্রান্ত উপকূলীয় দরিদ্রদের পুনর্বাসনের দাবিতে সংবাদ সম্মেলনটির আয়োজন করে উদ্দীপন, উন্নয়নধারা ট্রাস্ট, এফডিএ, কোস্ট ট্রাস্ট, জনউন্নয়ন সংস্থা, ডাক দিয়ে যাই, ডোক্যাপ, দ্বীপ উন্নয়ন সংস্থা, নওয়াবেকী গণমুখী ফাউন্ডেশন, পদক্ষেপ, প্রান, প্রান্তজন, সংগ্রাম, সমাজ, সাগরিকা, সাস, সিডিপি, স্যাপ-বাংলাদেশ এবং হিউম্যানিটি ওয়াচ।

কোস্ট ট্রাস্টের উপ-পরিচালক সৈয়দ আমিনুল হক বলেন, পানি উন্নয়ন বোর্ডকে অবশ্যই বিকেন্দ্রিক ও স্থানীয় জনগণের কাছে দায়বদ্ধ করতে হবে। বেড়িবাঁধ নির্মাণ ও ব্যবস্থাপনার জন্য সরকার, এনজিও, বিশেষজ্ঞ এবং পেশাদার প্রতিষ্ঠানের সমন্বয়ে একটি জনঅংশগ্রহণমূলক উদ্যোগ নিতে হবে। বন্যার কারণে গৃহহীনদের ঘর নির্মাণ করে দিতে হবে। আমন ধান নষ্ট হয়ে যাওয়ায় অন্তত আগামী মার্চ পর্যন্ত তাদের খাদ্য সহায়তা দিতে হবে।

তিনি বলেন, আগামীর রবি শস্যে কৃষকদের বিশেষ সহায়তা দিতে হবে। সরকারি বিভিন্ন সেফটি নেট কর্মসূচির আওতায় ক্ষতিগ্রস্ত ও প্রান্তিক পরিবারের জন্য সেবাসমূহ দ্বিগুণ করতে হবে। বিশেষ করে দরিদ্র জেলে পরিবার, নারী ও অপ্রাপ্তবয়স্ক প্রধান পরিবারকে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের সংস্কারের দাবি জানিয়ে আমিনুল হক বলেন, এ প্রতিষ্ঠানকে উপজেলা পরিষদ ও জেলা প্রশাসকের কাছে দায়বদ্ধ করতে হবে। বেড়িবাঁধ নির্মাণ প্রথাগতভাবে ঠিকাদারদের দিয়ে না করিয়ে এ প্রক্রিয়ার মধ্যে স্থানীয় সরকার ও দরিদ্র মানুষের সংগঠনসমূহকে সম্পৃক্ত করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, প্রয়োজনে বাংলাদেশের সেনাবাহিনীকে নিয়োগ করে তাদের উন্নয়ন দক্ষতা ও প্রযুক্তির সুবিধা নিতে হবে। যেমন কক্সবাজারের মেরিন ড্রাইভ নির্মাণে তারা অত্যন্ত দক্ষতার পরিচয় দিয়েছে।

এসময় তিনি উপকূলীয় ভূমি রক্ষায় ঝুঁকিপূর্ণ স্থানে কংক্রিট ব্লক ও সি-ডাইক নির্মাণের মাধ্যমে স্থায়ী সমাধান করার দাবি জানান।

দুর্যোগ বিশেষজ্ঞ ও বাংলাদেশ ডিজাস্টার ফোরামের সদস্য গওহর নঈম ওয়ারা বলেন, সেপ্টেম্বরের ৮-৯ তারিখের দিকে চাঁদের আকর্ষণে বড় জোয়ারের সম্ভাবনা রয়েছে। তাই এখনই স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানসমূহকে এ ব্যাপারে স্থানীয়ভাবে সতর্কতা সৃষ্টির উদ্যোগ নিতে হবে। পশ্চিমবঙ্গে ইতিমধ্যে এ ধরনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

কোস্ট ট্রাস্টের নির্বাহী পরিচালক রেজাউল করিম চৌধুরীর সঞ্চালনায় সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন উন্নয়নধারা ট্রাস্টের সদস্য সচিব আমিনুর রসুল বাবুল, কোস্ট ট্রাস্টের সহকারী পরিচালক মোস্তফা কামাল আকন্দ প্রমুখ।

 

এমআই/