বাংলাদেশ গার্মেন্টস খাতে যথেষ্ট এগিয়েছে: ভি.কে. সিং

0
53
jarsi-export

ভারতের পররাষ্ট্র বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ড.ভি.কে. সিং বলেছেন, বাংলাদেশের গার্মেন্টস খাত যথেষ্ট এগিয়েছে। এই খাতে বাংলাদেশ-ভারত যৌথ উদ্যোগে বিনিয়োগ করলে বিশ্বের অন্য কোনো দেশ আমাদের সঙ্গে তাল মিলিয়ে এগুতে পারবে না। নিজেদের স্বার্থে উভয় দেশকে এগিয়ে আসতে হবে।

India-Bangladesh
রোববার দুপুরে রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে ভারত-বাংলাদেশ ব্যবসা সম্মেলনে অতিথিরা।

রোববার দুপুরে রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে ভারত-বাংলাদেশ ব্যবসা শীর্ষক সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

ভি.কে. সিং বলেন, ভারতের পূর্ব ও উত্তর-পূর্ব প্রদেশগুলোতে বাংলাদেশিদের জন্য বিনিয়োগের যথেষ্ট সুযোগ আছে। ভারতের বাজার সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে বিনিয়োগ করলে বিনিয়োগকারীরা লাভবান হবেন। দ্রুত বাণিজ্য প্রসারে উপায় নির্ণয় করে এগিয়ে যেতে হবে।

তিনি বলেন, ভারতের মোদি সরকার বাংলাদেশ ভারতের মধ্যে দ্বি-পক্ষিয় সমস্যা সমাধানে অঙ্গিকারবদ্ধ। বাংলাদেশের সব ক্ষেত্রে সহায়তার হাত বাড়াতে রাজি ভারত। দু দেশের মধ্যে অর্থনৈতিক সম্পর্কের পাশাপাশি পারিপার্শ্বিক অন্যান্য সম্পর্কও জোরদার করতে হবে।

এসময় প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রীর অর্থ বিষয়ক উপদেষ্টা ড. মশিউর রহমান বলেন, বাংলাদেশে পণ্য উৎপাদন ব্যয় বেশি। কিন্তু কম দামের পণ্যে ভোক্তার চাহিদা বেশি হওয়ায় ব্যবসায়ীদের লোকসান গুণতে হয়। উৎপাদন ব্যয় কমানোর বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া দরকার।

তিনি বলেন, সীমান্তবর্তী এলাকাগুলোতে ব্যবসা-বাণিজ্যের যথেষ্ট সুযোগ আছে। ভারতে বাংলাদেশি পণ্যের উপর শুল্ক প্রত্যাহার করা হলে সেখানে বাংলাদেশি পণ্য প্রবেশ সহজ হবে। উভয় দেশের মধ্যে ব্যবসায়িক সম্পর্ক জোরদার করতে সীমান্ত নিরাপত্তা বাড়াতে হবে। দু দেশের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক জোরদার করতে হবে।

বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতের হাই কমিশনার পঙ্কজ শরণ বলেন, ভারতের অনেক ব্যবসায়ী বাংলাদেশের ম্যানুফেকচারিং ও অন্যান্যখাতে বিনিয়োগ করতে আগ্রহী। এই বিনিয়োগ বাড়লে বাংলাদেশে কর্মসংস্থান বাড়বে এবং উভয় দেশের বাণিজ্যে দূরত্ব কমবে।

মেঘালয়ের মূখ্যমন্ত্রী ড. মুকুল সাংমা বলেন, মেঘালয়ের হাইড্রো পাওয়ারে বাংলাদেশি ব্যবসায়ীরাও বিনিয়োগ করতে পারেন। সেখানে বিনিয়োগের ভালো পরিবেশ আছে।

ইন্ডিয়ান চেম্বার অব কমার্স (আইসিসি) এবং ইন্ডিয়া-বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (আইবিসিসিআই) যৌথভাবে এই সম্মেলনের আয়োজন করে।

আইবিসিসিআইয়ের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আব্দুল মাতলুব আহমেদের সভাপতিত্বে এসময় আরও বক্তব্য রাখেন-ত্রিপুরার বাণিজ্য ও শিল্পমন্ত্রী তপন চক্রবর্তী, এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি আকরাম উদ্দিন আহমেদ প্রমুখ।

জেইউ/এমই/