পার্লামেন্ট ভবনে নগ্ন সেলফি, দ্বিধায় সুইসরা

0
39
Swiss parliament
সুইজারল্যান্ডের ফেডারেল কাউন্সিল।
Swiss parliament
সুইজারল্যান্ডের ফেডারেল কাউন্সিল। (ফাইল ছবি)

কর্মক্ষেত্রে সেলফি তোলা নিয়ে নতুন বিতর্ক শুরু হয়েছে সুইজারল্যান্ডে। চলতি মাসের শুরুর দিকে দেশটির পার্লামেন্টের এক নারী কর্মকর্তা কাজের সময় নগ্ন সেলফি তোলার অপরাধে চাকরি হারানোর পর এ বিতর্ক শুরু হয়। সর্বশেষ সুইস পার্লামেন্টের এক সদস্য ও সিটি মেয়র অফিসে বসে বান্ধবীকে সেলফি পোস্ট করার খবর প্রকাশ হওয়ার পর তোলপাড় শুরু হয়ে যায়।

বিবিসি জানিয়েছে, চাকরি থেকে বরখাস্ত হওয়া সুইস পার্লামেন্ট ফেডারেল কাউন্সিলের ওই নারী কর্মী সচিব পর্যায়ে কর্মরত ছিলেন। টুইটার অ্যাকাউন্টে তার পোস্টকৃত নগ্ন সেলফিগুলো পার্লামেন্ট ভবনের ভেতরে তোলা এটা অনেকেই নিশ্চিত। টুইটার অ্যাকাউন্টে তার প্রায় ১১ হাজার অনুসারী রয়েছে।

তিনিও বিষয়টি অস্বীকার করেননি, বরং দাবি করেছেন এটা তার ব্যক্তিগত স্বাধীনতা।

ব্যক্তিগত গোপনীয়তা রক্ষার সুযোগ থাকায় পৃথিবীজুড়ে সুনাম আছে সুইজারল্যান্ডের। কিন্তু কাজের সময় সেলফি তোলা ব্যক্তিগত বিষয় কিনা এ নিয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্বে পড়ে গেছে সুইসরা।

চলতি সপ্তাহে সুইস সংবাদমাধ্যমে সিটি মেয়র গেরি মুলারের অফিসে তোলা সেলফি প্রকাশের পর এ বিতর্ক নতুন মাত্রা পায়।

এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি দাবী করেন, এ সেলফিগুলো যৌন উদ্দেশ্যমূলক নয়। বরং প্রেমমূলক রূপকথা নিয়ে একটি বই সম্পর্কে উচ্চমার্গীয় আলোচনা।

পরবর্তীতে মেয়রের দায়িত্ব থেকে তাকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়, কিন্তু পার্লামেন্টে সদস্যপদ অক্ষুণ্ন থাকে। অথচ এর আগে একই অপরাধে ওই নারী কর্মী চাকরি হারান।

বিবিসি জানিয়েছে, একই অপরাধে দুজন ব্যক্তির প্রতি দুধরনের আচরণ সুইসদের মনে সংশয় তৈরি করেছে।

#বিবিসি অনুসারে সংক্ষেপে অনুলিখিত