‘প্রধানমন্ত্রীর হাতই রক্তে রঞ্জিত’

0
23
Mirza Fakrul BNP
সোমবার নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা খন্দকার মাহবুব হোসেন এবং স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া।

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, বিএনপি নয়; প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতই ‘রক্তে রঞ্জিত’।

Mirza Fakrul BNP
রোববার নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা খন্দকার মাহবুব হোসেন এবং স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া।

রোববার সকালে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন।
গতকাল শনিবার রাজধানীর ওসমানী মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছিলেন, ‘রক্তে পা রেখে ক্ষমতায় এসেছিল বিএনপি’।

শেখ হাসিনার ওই বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, বিএনপি নয়, প্রধানমন্ত্রীর হাতই রক্তে রঞ্জিত। সন্ত্রাস ও হত্যার রাজনীতি বিএনপি করে না। শেখ হাসিনা বিএনপির ৫ শতাধিক নেতাকর্মীকে খুন করেছেন।

২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলায় বিএনপি ও তারেক রহমান জড়িত- এমন বক্তব্যের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে ফখরুল বলেন, তদন্তে উদ্দেশ্যমূলকভাবে এই মামলায় তারেক রহমানকে জড়ানো হয়েছে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, বিচারাধীন বিষয় নিয়ে কথা বলার এখতিয়ার কারো নেই। প্রধানমন্ত্রী নিজে বিচারাধীন বিষয়ে বক্তব্য দিয়ে এই মামলার বিচারকে প্রভাবিত করার চেষ্টা করছেন।সরকারের প্রতি আহ্বান রেখে তিনি বলেন, সরকারকে বলবো এমন কিছু করবেন না যাতে বিচার বিভাগের ওপর মানুষের আস্থা নষ্ট হয়। প্রধানমন্ত্রীর আসনে বসে বিচারাধীন বিষয়ে কথা বললে সে মামলায় অবশ্যই প্রভাব পড়ে।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া বলেন, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় প্রথম চার্জশিট হয় ১/১১ সরকারে। ওই সরকার তারেক রহমানের বন্ধু ছিল না; শত্রু ছিল। তারা তারেক রহমানকে হত্যা করতে চেয়েছিল। ওই সরকার রিমান্ডে নিয়ে নির্যাতন করে তারেক রহমানের মেরুদণ্ড ভেঙে দিয়েছিল। সেই সরকারের আমলেও গ্রেনেড হামলা মামলার চার্জশিটে তারেক রহমানের নাম ছিল না।

তিনি বলেন, সে সময়ে এই মামলায় তারেক রহমানকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের আবদেন জানানো হলেও আদালত তা প্রত্যাখ্যান করে প্রয়োজনে তাকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দেন। কিন্তু তদন্ত কর্মকর্তা জেলগেটে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেননি। কারণ তারা এমন কোনো ক্লু পাননি যে এ ঘটনায় তারেক রহমান জড়িত।

রফিকুল ইসলাম মিয়া বলেন, এই তদন্ত উদ্দেশ্যমূলক। তাদের উদ্দেশ্য হচ্ছে বিএনপিকে রাজনীতি থেকে দূরে রাখা। রাজনৈতিক ‘দূরভিসন্ধিমূলক’ আচরণ থেকে দূরে থাকতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও ঢাকা মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক মির্জা আব্বাস, যুগ্ম মহাসচিব বরকত উল্লাহ বুলু, রুহুল কবির রিজভী, ঢাকা মহনগর বিএনপির সদস্য সচিব হাবিবুন নবী খান সোহেল প্রমুখ।

সাকি/এমই/