‘সরকার বিএনপিকে রাজনীতি থেকে দূরে রাখার ষড়যন্ত্র করছে’

0
37
মির্জা ফখরুল
ফখরুল ইসলাম আলমগীর (ফাইল ছবি)
মির্জা ফখরুল
ফখরুল ইসলাম আলমগীর (ফাইল ছবি)

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, রাজনীতি ও নির্বাচন থেকে দূরে রাখতে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানকে ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলা মামলায় জড়ানো হচ্ছে।

শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে দৈনিক আমার দেশ-এর ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদুর রহমানের কারাবন্দীর ৫০০ দিন উপলক্ষে আয়োজিত এক সমাবেশে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে সরকার একটার পর একটা মিথ্যা মামলা দিচ্ছে। দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধেও একের এক মামলা দেওয়া হয়েছে। এখন ২১ আগস্টের গ্রেনেড হত্যা মামলায়ও জড়াচ্ছে।  বিএনপিকে রাজনীতি ও নির্বাচন থেকে দূরে রাখতেই এমনটি করা হচ্ছে।

মির্জা ফখরুল বলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে একাধিকবার মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পরিবর্তন করেছে। সর্বশেষ একজন অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে মামলার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে অভিযুক্ত করা হয়েছে। আর এখন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলছেন, সে সময়ের প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া ও তাঁর মন্ত্রীরাও এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত।মাহমুদুর রহমানকে সরকার ভয় পায় মন্তব্য করে ফখরুল বলেন, এ সরকারের কাছে দাবি জানিয়ে লাভ নেই। সরকারের পতন ঘটিয়েই মাহমুদুর রহমানকে মুক্ত করতে হবে।

মির্জা ফখরুল অভিযোগ করে  বলেন, সরকার বিএনপির বিরুদ্ধে জঙ্গিবাদের মিথ্যা অপপ্রচার চালাচ্ছে।  বিএনপি জঙ্গিবাদে বিশ্বাসী নয়। একে সমর্থনও করে না। আওয়ামী লীগের আমলে এই জঙ্গিবাদের উত্থান ঘটেছে বলে দাবি করেন তিনি।
আলোচনা সভায় মাহমুদুর রহমানকে সাহসী ব্যক্তি অভিহিত করে তার ওপর সরকারের নির্মম নির্যাতনের সমালোচনা করেন ফখরুল।
তিনি বলেন, অবৈধ ও দানব সরকারের কাছে তার মুক্তি চেয়ে লাভ নেই। তাদের পতন ঘটিয়ে মাহমুদুর রহমানকে মুক্ত করতে হবেঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক এমাজ উদ্দীন আহমদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি খন্দকার মাহবুব হোসেন, সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের ভারপ্রাপ্ত আহবায়ক রুহুল আমিন গাজী, নাগরিক অধিকার রক্ষা কমিটির আহবায়ক ফরহাদ মজহার, ইউনিভার্সিটি টিচার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি অধ্যাপক আফম ইউসুফ হায়দার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. সদরুল আমিন, আমার দেশের নির্বাহী সম্পাদক সৈয়দ আবদাল আহমেদ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য এমাজউদ্দীন আহমদের সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে কবি ফরহাদ মজহার, সাংবাদিক নেতা শওকত মাহমুদ, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক পিয়াস করিম প্রমুখ বক্তব্য দেন।