কেমন হতে পারে সাবমেরিন ক্যাবলের ইপিএস ও লভ্যাংশ

0
111
BSCCL
বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল কোম্পানি (বিএসসিসিএল)
BSCCL
বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল কোম্পানি (বিএসসিসিএল)

পুঁজিবাজারে টেলিকম খাতের প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল কোম্পানি লিমিটেডের (বিএসসিসিএল) হিসাব বছর গত ৩০ জুন শেষ হয়েছে। আগামী ২৪ আগস্ট অনুষ্ঠেয় কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদের বৈঠকে হিসাবের নিরীক্ষা প্রতিবেদন পর্যালোচনা করা হবে।একই বৈঠকে নেওয়া হবে লভ্যাংশ সম্পর্কিত সিদ্ধান্ত।বৈঠকের সময় যত এগিয়ে আসছে কোম্পানির শেয়ারহোল্ডারদের মধ্যে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ও লভ্যাংশ নিয়ে ততই বাড়ছে কৌতুহল। বিশেষ করে গত ৩ প্রান্তিকে ধারাবাহিকভাবে মুনাফা কমে যাওয়ায় অনেক শেয়ারহোল্ডার যথেষ্ট উদ্বিগ্ন।

বিনিয়োগকারীদের কৌতুহল মেটাতে বিএসসিসিএল নিয়ে বিশ্লেষণী প্রতিবেদন তৈরি করেছে অর্থসূচক।

বিএসসিসিএল বাংলাদেশের একমাত্র সাবমেরিন ক্যাবল সংযোগের মালিক।কোম্পানিটি ইন্টারনেটের জন্য ব্যান্ডউইথ বিক্রি করে থাকে। দু’বছর আগেও দেশে একচেটিয়া (মনোপলি) ব্যবসা ছিল এ কোম্পানির।কিন্তু দুই বছর আগে সে ব্যবসায় ভাগ বসাতে শুরু করে ৬ টি ইন্টারন্যাশনাল টেরিস্টেরিয়াল ক্যাবললিংক (আইটিসি) কোম্পানি।

বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন রেগুলেটরি কমিশনের (বিটিআরসি) লাইসেন্সধারী এসব প্রতিষ্ঠান ভারত থেকে নিম্নমানের ব্যান্ডউইথ এনে কম দামে বিক্রি করছে।দেশীয় প্রতিষ্ঠানের ব্যান্ডউইথের চেয়ে অনেক কম দামে এ ব্যান্ডউইথ বিক্রি করায় ব্যবহারকারীরা সাবমেরিন ক্যাবল থেকে মুখ ফিরিয়ে নিতে থাকে।কমে যায় ব্যান্ডউইথ বিক্রির পরিমাণ।এতে কোম্পানির মুনাফায় শুরু হয় নিম্নমুখী ধারা।

২০১২-১৩ অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই-আগস্ট) বিএসসিসিএলের ইপিএস ছিল ২ টাকা ৫ পয়সা।গত বছরের প্রথম প্রান্তিকে তা প্রায় ৫০% কমে ১ টাকা ৯ পয়সায় নেমে আসে। দ্বিতীয় প্রান্তিকে ইপিএস প্রায় ৩৬ শতাংশ কমে হয় ৭০ পয়সা।পরের প্রান্তিকে তা আরও ২৪ শতাংশ কমে যায়।তৃতীয় প্রান্তিকে ইপিএস দাঁড়ায় ৫৩ পয়সা।তিন প্রান্তিক মিলিয়ে কোম্পানিটির ইপিএস দাঁড়িয়েছে ২ টাকা ২১ পয়সা।

হিসাব বছরের প্রথম তিন প্রান্তিকের নিম্নমুখী ধারা শেষ প্রান্তেও বজায় ছিল বলে কোম্পানি সূত্রে জানা গেছে। এ হিসেবে আলোচিত প্রান্তিকে ইপিএস হয়ে থাকতে পারে ২৫ থেকে ৩৫ পয়সা। সব মিলিয়ে বিদায়ী বছরে বিএসসিসিএলের ইপিএস দাঁড়াতে পারে ২ টাকা ৪০ পয়সা থেকে ২ টাকা ৬০ পয়সা।

২০১২-১৩ বছরে বিএসসিসিএলের ইপিএস ছিল ৬ টাকা ৬৯ পয়সা।সে বছর কোম্পানিটি ৩৫% লভ্যাংশ দিয়েছিল।২০১৩-১৪ হিসাববছরের সম্ভাব্য ইপিএস আড়াই টাকা হলে লভ্যাংশ হতে থাকতে পারে ২০ থেকে ২৫ শতাংশের মধ্যে।