লেনদেনে সেরা জ্বালানি ও ওষুধ খাত

0
36
medicine-logo
জ্বালানি ও ওষুধ খাত লেনদেন সেরা

সপ্তাহের ব্যবধানে সর্বোচ্চ লেনদেন হয়েছে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি এবং ওষুধ খাতে। গত সপ্তাহে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) মোট লেনদেনের ১৫ শতাংশ ছিল এ দুটি খাতের। তবে সপ্তাহের ব্যবধানে জ্বালানি খাতে লেনদেন কমেছে ১০ দশমিক ৮ শতাংশ হারে।এদিকে ওষুধ খাতে লেনদেন বেড়েছে ১০ দশমিক ৩ শতাংশ হারে।

তথ্য পর্যালোচনায় জানা যায়, আলোচিত সপ্তাহে জ্বালানি খাতে প্রতিদিন গড়ে ৯৫ কোটি ২৫ লাখ টাকার শেয়ার কেনা-বেচা হয়েছে। আর ওষুধ খাতে ৯০ কোটি ৬৬ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

এদিকে পাট খাতের লেনদেন বেড়েছে ৯৩ শতাংশ। সপ্তাহজুড়ে এ খাতে লেনদেন হয়েছে ১২ লাখ টাকার শেয়ার।তবে ডিএসইতে লেনদেনে কোন অবদান ছিল না এ খাতের। সাধারণ বিমা খাতে লেনদেন বেড়েছে ৫৯ দশমিক ৯ শতাংশ। সপ্তাহজুড়ে এ খাতে লেনদেন হয়েছে ৭ কোটি ৩৬ লাখ টাকার শেয়ার।ডিএসইতে লেনদেনের মাত্র ১ শতাংশ ছিল এ খাতের।

ব্যাংক বহির্ভূত আর্থিক খাতে লেনদেন বেড়েছে ৪৭ দশমিক ৮ শতাংশ। সারা সপ্তাহে এ খাতে ৩২ কোটি ১৫ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। ডিএসইতে মোট লেনদেনের ৫ শতাংশ ছিল এ খাতের অবদান।

তথ্য ও প্রযুক্তি খাতের লেনদেন বেড়েছে ৩২ দশমিক ৪ শতাংশ। সারা সপ্তাহে এ খাতে ১১ কোটি ৪৭ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। ডিএসইতে মোট লেনদেনের ২ শতাংশ ছিল এ খাতের অবদান।

এছাড়া লেনদেন বেড়েছে সিরামিক খাতের ২৫ দশমিক ৯ শতাংশ, প্রকৌশল খাতের ৬ দশমিক ৫ শতাংশ, বিবিধ খাতের ৪ দশমিক ২ শতাংশ, সেবা ও আবাসন খাতের ৮ দশমিক ৮ শতাংশ এবং ভ্রমণ ও অবকাশ খাতে দশমিক ২ শতাংশ।

অপরদিকে লেনদেন কমেছে ১০ টি খাতের। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি লেনদেন কমেছে খাদ্য ও আনুষঙ্গিক খাতের। সপ্তাহের ব্যবধানে এ খাতে লেনদেন কমেছে ৩৬ দশমিক ৯ শতাংশ। সারা সপ্তাহে এ খাতে ১৪ কোটি ১৫ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

এছাড়া মিউচ্যুয়াল ফান্ড খাতের লেনদেন কমেছে ২৯ দশমিক ২৯ শতাংশ, ব্যাংক খাতের ২০ দশমিক ১ শতাংশ, টেলিকমিউনিকেশন খাতের ২৪ দশমিক ৪ শতাংশ, ট্যানারি খাতের ১০ দশমিক ২ শতাংশ, জীবন বিমা খাতের ৮ দশমিক ৮ শতাংশ এবং সিমেন্ট খাতের ৮ দশমিক ১ শতাংশ লেনদেন কমেছে।

অর্থসূচক/এসএ/