তেলের দাম কমেছে ব্যারেলে ১০ ডলার

0
48
oil price
ফাইল ছবি
oil price
ফাইল ছবি

উৎপাদন বৃদ্ধি এবং চাহিদা কমার কারণে বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের দাম ব্যারেল প্রতি ১০০ মার্কিন ডলারের কাছাকাছি চলে এসেছে।

শুক্রবার এক খবরে রয়টার্স জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার বিশ্ববাজারে ব্রেন্ট ক্রুড ব্যারেল প্রতি ১০১ থেকে ১০২ মার্কিন ডলারে বিক্রি হয়েছে। জ্বালানি তেলের এ মূল্য গত ১৪ মাসের মধ্য সর্বনিম্ন। পাশাপাশি এই দিন ইউএস ক্রুডের দাম ৯২ দশমিক ৫০ মার্কিন ডলারে নেমে এসেছে, যা গত জানুয়ারির পর এবারই প্রথম।

সব মিলিয়ে চলতি বছরের জুনের পর থেকে বিশ্বের এই প্রধান দুই তেলসূচকের অবনমন ঘটেছে ব্যারেল প্রতি ১০ মার্কিন ডলার।

জ্বালানি বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, ভূ-রাজনৈতিক অস্থিরতার পরেও মধ্যপ্রাচ্যে তেল উৎপাদন অপরিবর্তিত থাকা এবং অন্যতম প্রধান ভোক্তা চীনে অর্থনীতির গতি শ্লথ হয়ে চাহিদা কমার কারণে জ্বালানির তেলের দামের এই অবনমন ঘটেছে।

রয়টার্স জানিয়েছে, বিশ্বের সবচেয়ে বেশি তেল উৎপাদক সৌদি আরবে জুলাই মাসে দৈনিক ১ কোটি ব্যারেল তেল উৎপাদিত হয়েছে। একই সাথে দাঙ্গা-হাঙ্গামার পরেও লিবিয়া তেল উৎপাদন পুরনরুদ্ধার করেছে।

এ সম্পর্কে রাশিয়ান ব্যাংক ভিটিভির তেল বিশেষজ্ঞ আন্দ্রে ক্রায়ুচেনকভ জানান, তেল সরবরাহে কোনো সংকটই নেই।

তিনি বলেন, ইরাকের অস্থিরতা তেলের বাজারে কোনো প্রভাব ফেলেনি। একইসাথে ইউরোপ এবং এশিয়া থেকে তেলের বাজারে কোনো চাপ সৃষ্টি না হওয়াতে তেলের দাম কমছে।

এদিকে আরেক খবরে জানানো হয়েছে, ব্রেন্ট ক্রুডের দাম ১০০ ডলারের কাছাকাছি চলে আসায় তেল উৎপাদকদের সংগঠন ওপেকভুক্ত দেশগুলো আলোচনা শুরু করেছে। তারা তেলের দাম ধরে রাখতে সরবরাহ কমিয়ে দেয়ার চিন্তাভাবনা করছেন। তবে ওপেকের প্রতিনিধিরা জানিয়েছে, আগামী দিনে তেলের চাহিদা বৃদ্ধির জোর সম্ভাবনা আছে। ওই সময়ে তেলের দাম আবার পূর্বের অবস্থানে ফিরে আসতে পারে।