ইসরায়েলি হামলায় ৩ শীর্ষ হামাস নেতা নিহত

0
25
gaza attack
বুধবার গাজা শহরের দক্ষিণাঞ্চলে ইসরায়েলের হামলার পর ধোঁয়ার কুণ্ডলী।
gaza attack
বুধবার গাজা শহরের দক্ষিণাঞ্চলে ইসরায়েলের হামলার পর ধোঁয়ার কুণ্ডলী।

মিশরে চলমান শান্তি আলোচনা ভেস্তে যাওয়ার পর ফিলিস্তিনের গাজায় বিমান হামলা শুরু করেছে ইসরায়েল। আলোচনা ভেস্তে যাওয়ার জন্য প্রতিবেশী দেশ কাতারকে দায়ী করা হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার ভোররাতে ইসরায়েলি হামলায় হামাসের তিন শীর্ষ নেতাসহ ৬ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন।

গত ৮ মার্চ থেকে গাজায় ইসরায়েলের অভিযানে এ পর্যন্ত প্রায় ২১০০ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে।

হামাস জানিয়েছে, বৃধবার মধ্যরাতের পরে রাফা অঞ্চলে ইসরায়েলের বিমান হামলায় সিনিয়র সামরিক নেতা মোহাম্মদ আবু শামালেহ, মোহাম্মদ বারহুম এবং রাইদ আল আত্তার নিহত হয়েছেন।

গাজা পুলিশ জানিয়েছে, হামলার পর অনেকেই নিঁখোজ রয়েছেন। এরা নিহত হয়েছেন অথবা ধ্বংস্তুপে চাপা পড়ে আছেন।

এর আগে আরেক হামলায় হামাস নেতা মোহাম্মদ দেইফের স্ত্রী এবং ছেলে নিহত হয়। এই হামলায় দেইফ আহত কিংবা নিহত হয়েছেন কিনা জানা যায়নি।

তবে ইসরায়েল বলছে, মোহাম্মদ দেইফ হত্যা করতেই এ হামলা চালানো হয়েছে।

তাকে পাকিস্তানে মার্কিন কমান্ডো হামলায় নিহত ওসামা বিন লাদেনের সাথে তুলনা করে তার মৃত্যুই প্রাপ্য বলে ঘোষণা দিয়েছেন ইসরায়েলের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী গিডেওন সার।

তিনি বলেন, ওসামা বিন লাদেনের মতো দেইফেরও মৃত্যু প্রাপ্য। আমরা সুযোগ পেলেই তাকে হত্যা করব।

আলোচনা ভেস্তে যাওয়ার জন্য পশ্চিম তীরের নিয়ন্ত্রণকারী ফাতাহ মুভমেন্টের পক্ষ থেকে প্রতিবেশী দেশ কাতারকে দায়ী করা হয়েছে।

ফাতাহর এক কর্মকর্তা জানান, আলোচনা সফলতার দিকে এগিয়ে গেলেও কাতারের কারণে তা মাঝপথে ভেস্তে গেছে।

তিনি জানান, মিশরের মধ্যস্থতায় শান্তি আলোচনায় রাজি না হতে কাতার হামাসকে চাপ প্রয়োগ করছে। এমনকি দেশটিতে অবস্থানরত নির্বাসিত হামাস নেতা খালেদ মেশালকে বহিষ্কারের হুমকি দিয়েছে।

তবে হামাস এ অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে অভিহিত করেছে। গাজা নিয়ন্ত্রণকারী সংগঠনটির মুখপাত্র হুসাম বাদরান বলেন, এটা পুরোটাই গুজব। হামাসের সাথে কাতারের সম্পর্ক এ ধরনের নয়।

এদিকে এক বিবৃতিতে ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু গাজায় অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন। তিনি বলেন, গাজায় বিমান হামলা চলবেই।