গম উৎপাদনে সহায়তা দেবে কানাডা: হিদার ক্রুডেন

0
105
Heither Cruden
বাংলাদেশে নিয়োজিত কানাডার হাইকমিশনার হিদার ক্রুডেন। ফাইল ছবি

বাংলাদেশে উন্নত গম উৎপাদনে কানাডা প্রয়োজনীয় সহায়তা দিতে চায় বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশে নিয়োজিত কানাডার হাই কমিশনার হিদার ক্রুডেন।

Hider Cruden
বুধবার সকালে বাংলাদেশের কানাডীয় দুতাবাসের আয়োজনে রাজধানীর লেকশোর হোটেলে ‘উদ্ভাবন ও কৃষি’ শীর্ষক সেমিনার।

বুধবার সকালে বাংলাদেশের কানাডীয় দুতাবাসের আয়োজনে রাজধানীর লেকশোর হোটেলে ‘উদ্ভাবন ও কৃষি’শীর্ষক সেমিনারে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এই কথা বলেন।

হাই কমিশনার হিদার ক্রুডেন বলেন, কানাডার কৃষিজাত পণ্যের একটি গুরুত্বপূর্ণ বাজার বাংলাদেশ। ২০১৩ সালে বাংলাদেশে সাড়ে ৬শ মিলিয়ন ডলারেরও বেশি মূল্যের পণ্য রপ্তানি করেছে কানাডা। এর মধ্যে সাড়ে ৪০০ মিলিয়ন ডলারের বেশি ছিল কৃষিজাত পণ্য। বাংলাদেশের খাদ্য নিরাপত্তায় কানাডা আরও অবদান রাখতে চায়।

তিনি বলেন, বিশ্বে কানাডার উৎপাদিত গম মানসম্পন্ন। বিশ্বের সর্বোচ্চ ৩টি গম রপ্তানিকারকদের একটি কানাডা। ২০১৩ সালে শুধু বাংলাদেশে প্রায় ২৪৪ মিলিয়ন ডলারের ৭৪২ হাজার মেট্রিক টন গম রপ্তানি করেছে কানাডা।

কানাডিয়ান হাই কমিশনার বলেন, বিশ্বে সবচেয়ে বেশি উন্নত প্রটিনসমৃদ্ধ আটাও উৎপাদন করে কানাডা। দেশটির বিজ্ঞানীরা শত বছর ধরে শস্য উন্নয়নে কাজ করছে। কারণ উন্নত খাদ্য ও পনীয়তে গুণগত মান, পুস্টি ও বৈচিত্রতা কানাডার শস্যের অপরিহার্য উপাদান।

২০১৩ সালে বাংলাদেশ-কানাডার মধ্যে ১ কোটি ৮০ লাখ ডলারের বাণিজ্য হয়েছে। ৬৮ শতাংশ কৃষিজাত পণ্য বাংলাদেশে রপ্তানি করেছে কানাডা। এ সময় কানাডা থেকে ৫২৮ মিলিয়ন ডলার মূল্যের গম ও মসুরির ডাল এনেছে বাংলাদেশ; যা আগের বছরের তুলানায় ৫৩ দশমিক ৬৭ শতাংশ বেশি। কানাডায় রপ্তানি করা বাংলাদেশি পণ্যের ৯৫ শতাংশই হলো তৈরি পোশাক।

সেমিনারে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, জনবহুল বাংলাদেশের কৃষি পণ্যের চাহিদা মিটাতে উদ্ভাবন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির গুরুত্ব অনেক বেশি। এই সেমিনার স্থানীয় কোম্পানি, মিলারস, উৎপাদনকারী, রপ্তানি ও আমদানিকাদের কানাডীয় বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে নেটওয়ার্ক তৈরিতে সুযোগ সুষ্টি করবে বলে মনে করেন তিনি।

সেমিনারে আরও উপস্থিত ছিলেন-বাংলাদেশ অ্যাগ্রো-প্রসেসরস অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি অঞ্জন চৌধুরী, আসিসি বাংলাদেশের সভাপতি মাহবুবুর রহমান, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড.মো. রফিকুল হক প্রমুখ।

এসইউএম/এমই/