১১ ঘণ্টা পর মাওয়ায় ফেরি চলাচল শুরু

0
38
ferry
দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া ঘাটে ফেরি চলাচল শুরু- ফাইল ছবি
ferry
১১ ঘণ্টা পর মাওয়ায় ফেরি চলাচল শুরু- ফাইল ছবি

তীব্র স্রোত ও পদ্মার আকস্মিক ভাঙ্গনে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌপথে ১১ ঘণ্টা ফেরি চলাচল বন্ধ থাকার পর সীমিত আকারে পারাপার চালু হয়েছে। তবে রো রো ফেরিঘাটে চলাচল সম্পূর্ণ বন্ধ রয়েছে।

বুধবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে কাওড়াকান্দি ঘাট থেকে ১১টি ফেরি চলাচল শুরু হয় বলে জানান বিআইডব্লিউটিসির ব্যবস্থাপক সিরাজুল হক।

এর আগে স্রোত ও আকস্মিক ভাঙ্গনে মাওয়ার ৩ নম্বর রো রো ফেরিঘাট পদ্মায় বিলীন হয়ে গেলে মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯টা থেকে সব ধরনের ফেরি চলাচল বন্ধ করে কর্তৃপক্ষ। নিরাপত্তার জন্য মাওয়া ঘাটে কোনো ফেরি নোঙ্গর করে না রেখে কাওড়াকান্দি ঘাটে ফিরিয়ে নেওয়া হয়।

বিআইডব্লিউটিসির সহকারী মহাব্যবস্থাপক এ কে এম আশিকুজ্জামান চৌধুরী জানান, পদ্মার তীব্র স্রোত ও ভাঙন এতটাই ভয়ঙ্কর ছিল যে, ফেরি পারাপার সচল রাখার মতো অবস্থা ছিল না।

তিনি জানান, ৩ নম্বর রো রো ফেরিঘাট থেকে শুরু করে লঞ্চঘাটের দিকে ৪০ ফুট এলাকা এবং এর আশপাশের আরও ৬০টি দোকানঘর পদ্মায় বিলীন হয়ে গেছে।

এদিকে রাত থেকে ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় পারাপারে আটকা পড়ে নদীর ২ তীরে অপেক্ষায় থাকা ৫শ’র বেশি যানবাহন ।

পরিস্থিতি বিবেচনায় বুধবার সকাল থেকে কে-টাইপ ও টানা ফেরিসহ মোট ১১টি ফেরি বিশেষ ব্যবস্থায় চালু করা হয়েছে বলেও জানান বিআইডব্লিউটিসির ব্যবস্থাপক সিরাজুল হক।

তিনি বলেন, পারাপার শুরু হলেও তীব্র স্রোতের কারণে দেড়-২ ঘণ্টার পথ পার হতে ৫-৭ ঘণ্টা লেগে যেতে পারে। মাঝ  নদীতে স্রোত তীব্র হওয়ায় টানা ফেরিগুলোকে (ডাম্প ফেরি) সাহায্য করতে ৪টি অতিরিক্ত টাগবোট কাজ করছে।

যাত্রীদের ভোগান্তি লাঘব করতে প্রথম দিকে ফেরিতে কোনো ট্রাক পারাপার করা হবে না বলেও জানিয়েছেন তিনি।

কাওড়াকান্দির ৩টি ঘাটই সচল রয়েছে জানিয়ে সিরাজুল হক বলেন, সকাল ৮টা ২২ মিনিটে কাওড়াকান্দি ঘাট থেকে ফেরি ডাপলু ছেড়ে যায়। এর পর একে একে ফেরি লেন্টিং ও থোবালসহ অন্য সব ফেরি যানবাহন নিয়ে মাওয়ার উদ্দেশ্যে রওনা করে।

এদিকে নৌ পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান বুধবার সকালে মাওয়া ঘাট পরিদর্শন করে দ্রুত রো রো ফেরিঘাট পুনস্থাপন করার নির্দেশ দিয়েছেন।

এ ব্যাপারে করনীয় ঠিক করতে সংশ্লিষ্টদের নিয়ে মাওয়ার পদ্মা রেস্ট হাউজে বৈঠকও করেছেন তিনি।

এএসএ/