আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পেল এনএমআই

0
38
NMI
এনএমআই এর লোগো

আন্তর্জাতিক মানদণ্ডের স্বীকৃতি পেয়েছে দেশের নাবিকদের একমাত্র সরকারি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ন্যাশনাল মেরিটাইম ইনস্টিটিউট (এনএমআই)। আন্তর্জাতিক মান নির্ণয়কারী সংস্থা ‘ডিএনভি-জিএল’এর স্বীকৃতি পাওয়ায় আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানে কাজে কোনো বাধা থাকবে না এনএমআই এর নাবিকদের।

NMI
এনএমআই এর লোগো

মঙ্গলবার প্রতিষ্ঠানের সভাকক্ষে আনুষ্ঠানিকভাবে নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব সৈয়দ মনজুরুল ইসলামের হাতে এই সনদ তুলে দেন ডিএনভি-জিএল বাংলাদেশের কান্ট্রি ম্যানেজার মাসুদ করিম।

আন্তর্জাতিক মানদণ্ডের সনদ গ্রহণ অনুষ্ঠানে সচিব সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম বলেন, এই স্বীকৃতি পাওয়ায় বিশ্বের অন্যান্য দেশের নাবিকদের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের নাবিকদের আর কোনো বাধা নেয়। আইএমও-এর শর্তানুসারে এই প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে দীর্ঘদিন ধরে নাবিকদের উন্নত ও আধুনিক প্রশিক্ষণ দিচ্ছে।

তিনি বলেন, বিশ্ব মন্দার কারণে জাহাজ ব্যবসায় ধস নামায় গত কয়েক বছরে নাবিকদের চাকরির বাজার সংকুচিত হয়েছে। এ অবস্থা থেকে উত্তোরণের জন্য এই স্বীকৃতি উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখবে।

বাংলাদেশের কান্ট্রি ম্যানেজার মাসুদ করিম বলেন, আইএসও ৯০০১:২০০৮ সনদ পাওয়ার ফলে বিশ্বে নাবিক নিয়োগকারী সব সংস্থার প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের নাবিকরা অংশগ্রহণ করতে পারবেন। এই প্রতিষ্ঠানটি আন্তর্জাতিক মান ঠিক রাখছে কিনা তা দীর্ঘদিন পর্যবেক্ষণ করা হয়েছে। ফলাফল ইতিবাচক হওয়ায় ‘ডিএনভি-জিএল’এ প্রতিষ্ঠানকে স্বীকৃতি দিয়েছে।

এনএমআই সূত্র জানায়, ১৯৫২ সালে ‘নাবিক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র’হিসেবে যাত্রা শুরুর পর ২০০৪ সালে নাম পরিবর্তন করে ন্যাশনাল মেরিটাইম ইনস্টিটউট রাখা হয়। এতে ৬ মাসের কোর্স শেষে দেশি-বিদেশি জাহাজে সাধারণ নাবিক হিসেবে যোগ দেন শিক্ষার্থীরা। ৬টি পদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। শুরু থেকেই আন্তর্জাতিক নৌ-সংস্থার (আইএমও) কনভেনশনসহ সব নিয়মকানুন অনুসরণ করেছিল এনএমআই। প্রতিবছর এই ইনস্টিটিউট থেকে ২২৩ জন প্রশিক্ষণার্থী প্রশিক্ষণ নেয়। প্রয়োজনে আসন বাড়ানো হবে বলে জানিয়েছেন এনএমআই-এর অধ্যক্ষ ক্যাপ্টেন ফয়সাল আজিম।

ক্যাপ্টেন ফয়সাল আজিম বলেন, স্বীকৃতির ফলে বিশ্বে নাবিকদের বাজার সৃষ্টিতে সুযোগ বেড়েছে। এটি ধরে রাখতে আরও দায়িত্ববান হতে হবে।

এমই/