কবি শামসুর রাহমানের মৃত্যুবার্ষিকী আজ

0
53
shamsur-rahman
শামসুর রাহমান- ফাইল ছবি

বিংশ শতাব্দীর তিরিশের দশকের ৫ মহান কবির পর আধুনিক বাংলা কবিতার প্রাণ পুরুষ হিসেবে বিবেচনা করা হয় শামসুর রাহমানকে। আজ ৮ম মৃত্যুবার্ষিকী তার। তিনি ২০০৬ সালের ১৭ আগস্ট মৃত্যুবরণ করেন।

কবির জন্ম ১৯২৯ সালের ২৩ অক্টোবর ঢাকার মাহুতটুলিতে নানা বাড়িতে। তার পৈত্রিক বাড়ি নরসিংদী জেলার রায়পুরায় পাড়াতলী গ্রামে। জীবিতকালে ২ বাংলায় সমান জনপ্রিয়তার কারণে তাকে নাগরিক কবিও বলা হয়।

কবির উল্লেখযোগ্য কবিতাগুলো হলো- ‘বর্ণমালা, আমার দুখিনী বর্ণমালা’, ‘আসাদের শার্ট’, ‘স্বাধীনতা তুমি’, ‘তোমাকে পাওয়ার জন্য হে স্বাধীনতা’। এসব কবিতার মধ্যে তার বিদ্রোহী চেতনার বহিঃপ্রকাশ ঘটে। ১৯৮৭ সালে স্বৈরশাসন আমলে পরপর ৪ বছর ধরে ‘শৃংখল মুক্তির কবিতা’, ‘স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে কবিতা,’ ‘সামপ্রদায়িকতার বিরুদ্ধে কবিতা’ এবং ‘সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে কবিতা’ লিখেন কবি শামসুর রাহমান।স্বৈরশাসনের পতন হলে তিনি লিখেন ‘গণতন্ত্রের পক্ষে কবিতা’।

তার প্রকাশিত প্রথম কাব্যগ্রন্থ ‘প্রথম গান, দ্বিতীয় মৃত্যুর আগে’ ১৯৬০ সালে প্রকাশিত হয়। কাব্য, উপন্যাস, প্রবন্ধ, শিশুতোষ গ্রন্থসহ তার রচিত শতাধিক বই রয়েছে।

সাহিত্যে অনন্য অবদানের জন্য আদমজী সাহিত্য পুরস্কার, বাংলা একাডেমি পুরস্কার, একুশে পদক, নাসির উদ্দন স্বর্ণপদক, জীবনানন্দ পুরস্কার, আবুল মনসুর আহমেদ স্মৃতি পুরস্কার, সাংবাদিকতার জন্য মিতসুবিশি পুরস্কার, স্বাধীনতা পদক ও আনন্দ পুরস্কার লাভ করেন। এছাড়াও ভারতের যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় এবং রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে কবিকে সম্মান সূচক ডি লিট উপাধি দেওয়া হয়।

মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আজ সকাল ১১টায় বনানী কবরস্থানে কবির কবরে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা করবে জাতীয় কবিতা পরিষদ, শামসুর রাহমান স্মৃতি পরিষদ ও তার পরিবার। এছাড়া দিনভর রাজধানীতে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠন।

এএসএ/