বিচারকের বিরুদ্ধে অনুসন্ধানে নামছে দুদক

0
44
Dudak

Dudakতড়িঘড়ি করে আসামিদের খালাসের অভিযোগে ঢাকার জননিরাপত্তা আদালতের বিশেষ জেলা ও দায়রা জজ ফারুক আহম্মেদের বিরুদ্ধে অনুসন্ধানের সিদ্ধান্ত নিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

মঙ্গলবার কমিশনের নিয়মিত বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয় দুদক। এ জন্য দুদকের উপ-পরিচালক যতন কুমার রায়কে অনুসন্ধানকারী কর্মকর্তা নিয়োগ দেওয়া হয়।

দুদকের জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রণব কুমার ভট্টাচার্য অর্থসূচককে এসব তথ্য নিশ্চিত করেন।

প্রসঙ্গত, ঢাকার জননিরাপত্তা আদালতের বিশেষ জেলা ও দায়রা জজ ফারুক আহম্মেদ গত ২৬ জুন অবসরে যান। এর আগের ১৮ কার্যদিবসে ২৪ মামলার রায় দেন তিনি। এ বিষয়ে যুগান্তরে ‘মামলা খালাসের রেকর্ড’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হয়।

এর পর ঢাকার বিচারক ফারুক আহাম্মেদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে আইন মন্ত্রণালয়ে প্রতিবেদন পাঠায় সুপ্রিম কোর্ট।

সেই সাথে বিচারপতি বিচারপতি এস কে সিনহা ঢাকার আদালতে গিয়ে তার বিচার করা কয়েকটি মামলার নথি জব্দ করেন।

যুগান্তরের প্রতিবেদনে বলা হয়, তড়িঘড়ি করে ঢাকার জননিরাপত্তা আদালতের বিশেষ জেলা ও দায়রা জজ ফারুক আহম্মেদ অবসরের আগের ১৮ কার্যদিবসে ২৪ মামলার রায় দেন। এসব মামলার আসামিদের তিনি বেকসুর খালাস দিয়েছেন।

এছাড়া তিনি একদিনে ১০ মামলার সব সাক্ষীর জবানবন্দি গ্রহণ ও আসামি পরীক্ষা এবং যুক্তিতর্ক শেষ করেন। শুনানি শেষে চার থেকে ১০ দিনের ব্যবধানে ২০টি মামলা নিষ্পত্তি করেন।

তার নিষ্পত্তি করা মামলাগুলোর নথিপত্র ঘেঁটে দেখা যায়, মামলা খালাসের পাশাপাশি তিনি গত জুন মাসে মাদক মামলার ৪৫ জন আসামিকে জামিন দিয়েছেন। আর ছয় মাসে খালাস দিয়েছেন ৭৭ মামলার আসামিদের।

এছাড়া জানুয়ারি থেকে মে মাসের মধ্যে ১০১ জন আসামির জামিন দিয়েছেন এই বিচারক। ২০১৩ সালে ৭৯ মামলা নিষ্পত্তি করেছেন তিনি। এর মধ্যে ৬০ মামলার আসামিকে খালাস ও ১৯ মামলার আসামিদের সাজা দেন।