‘বিটিভির মডেলে গণমাধ্যম চালাতে সম্প্রচার নীতিমালা’

0
110
Anu Mohammad
আনু মোহাম্মদ: ফাইল ছবি

সরকার বেসরকারিটিভি চ্যানেলগুলোকে বিটিভির মডেলে পরিচালিত করতেই গণমাধ্যমবিরোধী সম্প্রচার নীতিমালা প্রনয়ণ করছে বলে মন্তব্য করেছেন তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ বিদ্যুৎ ও বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক আনু মোহাম্মদ।

Anu Mohammad
আনু মোহাম্মদ: ফাইল ছবি

সোববার বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে গণসংহতি আন্দোলনের উদ্যেগে ‘জাতীয় সম্প্রচার নীতি, গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ও গণতন্ত্র’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে তিনি এ মন্তব্য করেন।

আনু মোহম্মদ বলেন, ৭খুন, লঞ্চ দুর্ঘটনা, সীমান্ত হত্যার ঘটনার মতোকিছু সত্য প্রকাশ করায় সরকার উদ্বিগ্ন। তাই গণমাধ্যমকে কঠোর নিয়ন্ত্রণ করতে এই নীতিমালা করা হয়েছে।

তিনি বলেন, সরকার যা বলে গণমাধ্যমগুলো তো সেটাই প্রচার করে। তাহলে নতুন করে সম্প্রচার নীতিমালা তৈরি কার দরকার কি?

মালিকের অভ্যন্তরীন চাপ থেকে মুক্ত হয়েসংবাদকর্মীরা কীভাবে স্বাধীনভাবে সংবাদ পরিবেশন করতে পারবেন-এই নীতিমালা প্রনয়ণ করা জরুরি বলে মত দেন অধ্যাপক আনু মোহাম্মদ।

‘বন্ধু রাষ্ট্রের সাথে সম্পর্কের অবনতি হয় এমন কোনো সংবাদ পরিবেশন করা যাবে না’-এরসমালোচনা করে তিনিবলেন, এই নীতি অনুসারে ভারত তিতাস নদীতে বাঁধ দিলেও তাদের বিপক্ষে সংবাদ পরিবেশন করা যাবে না। সীমান্ত হত্যাকাণ্ড, নদীর ন্যায্য হিস্যা কিংবা টিকফার মত বিষয় নিয়ে কথা বলতে পারবেনা।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যামিরেটাস অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, দেশে স্বৈরশাসক বা জরুরি অবস্থা জারি না করে কিভাবে এমন গণমাধ্যমবিরোধী নীতিমালা প্রনয়ণ হয়।

তিনি বলেন, ব্রিটিশ ও পাকিস্তান আমলেও গনমাধ্যমের কণ্ঠরোধ করার চেষ্টা করা হয়েছিল। তখন সাংবাদিক সমাজ ঐক্যবদ্ধ হয়ে এর বিরোধিতা করেছিল। কিন্তু এখন সাংবাদিক সমাজ ঐক্যবদ্ধ নয়। অনেকেইএ বিষয়ে নীরব রয়েছেন।

গণসংহতি আন্দোলনের সমন্বয়ক জুনায়েদ সাকি বলেন, স্বাধীন কমিশন গঠন করার কথা বলছে সরকার। কিন্তু এই স্বাধীন কমিশন কতটা স্বাধীন হবে-তা ইতিমধ্যে সাংবাদিকদের হুমকির মাধ্যমে সমাজ কল্যাণমন্ত্রী ঈঙ্গিত দিয়েছেন।

এই সম্প্রচার নীতি মত প্রকাশের অধিকারের উপর ক্রসফায়ার আর স্বাধীন কমিশন আসলে এক ধরনের ‘মিডিয়া র‌্যাব’হতে যাচ্ছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

গণসংহতি আন্দোলনের কেন্দ্রীয় সমন্বয়ক কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট আব্দুস সালামের সভাপতিত্বে এসময় আরও বক্তব্য দেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের অধ্যপক আহমেদ কামাল, ঢাবির গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক রুবায়েত ফেরদৌস, প্রথম আলোর যুগ্ম সম্পাদক সৌরভহাসান, বাসদের কেন্দ্রীয় নেতা বজলুর রমিদ ফিরোজ প্রমুখ।

জেইউ/এমআই/এমই/