চলুন ঘুরে আসি সোনাদিয়া দ্বীপ, কুতুবদিয়া, রামু ও টেকনাফ

0
370

trvelsদেশের ভ্রমণ রাজধানী হিসাবে বিখ্যাত কক্সবাজার জেলা। কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের পাশা-পাশি এর  আশ-পাশের দর্শনীয় স্থান গুলো যেমন:- ইনানী, হিমছড়ি, মহেশখালী, সোনাদিয়া দ্বীপ, কুতুবদিয়া, রামু, টেকনাফ, সেন্টমার্টিনসহ হরেক রকমের পর্যটন স্থান। তাই কক্সবাজার ভ্রমণের সাথে উল্লেখিত স্থানগুলো দেখার সময় ও প্রস্তুতি নেওয়া হবে সবচেয়ে বুদ্ধিমানের কাজ।

সোনাদিয়া দ্বীপ

আকর্ষণীয় দ্বীপ সোনাদিয়া কক্সবাজারের বিপরীত দিকে।এখানে শীতে প্রচুর অতিথি পাখির দেখা মেলে। প্রায় ৪৬৩ বর্গ কিলোমিটার আয়তনের এ দ্বীপটিতে কক্সবাজার থেকে গিয়ে আবার সন্ধ্যার আগেই ফিরে আসা সম্ভব। আর যেতে হবে ইঞ্জিন বোটে।

কুতুবদিয়া

জেলার আরেকটি দর্শনীয় স্থান কুতুবদিয়া দ্বীপ। প্রায় ২১৬ বর্গ কিলোমিটার আয়তনের এ দ্বীপে দর্শনীয় স্থান হলো প্রাচীন বাতিঘর, কালারমা মসজিদ এবং কুতুব আউলিয়ার মাজার। কক্সবাজারের কস্তুরী ঘাট থেকে ইঞ্জিন বোট কিংবা স্পিড বোটে কুতুবদিয়া যাওয়া যায়। স্পিড বোটে সময় লাগে ৪৫ মিনিট আর ভাড়া ১৭০-২৩০ টাকা। আর ইঞ্জিন বোটে সময় লাsonadiaগে ২ ঘন্টার মতো আর ভাড়া ৬০-৭০ টাকা।

রামু

কক্সবাজার শহরের পার্শ্ববর্তী একটি থানা রামু। এখানে রয়েছে বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের বেশ কিছু কেয়াং ও প্যাগোডা। এসবের মধ্যে উল্লেখ যোগ্য হলো লামারপাড়ার বৌদ্ধ কেয়াং, রামকোট হিন্দু মন্দির বৌদ্ধ কেয়াং। কক্সবাজারের কলাতলী থেকে জিপে কিংবা মাইক্রোবাসে এখানে আসতে পারেন। ভাড়া পড়বে ৪৫-৫০ টাকা।

টেকনাফ

পাহাড়, নদী আর সমুদ্রের অনন্য এক মিলনস্থল বাংলাদেশের সর্ব দক্ষিণের ভূমি টেকনাফ। কক্সবাজার থেকে সড়কপথে এ জায়গাটির দূরত্ব প্রায় ৮৫ কিলোমিটার। নাফ নদী বাংলাদেশ ও মিয়ানমারকে এখানেই পৃথক করেছে। পাহাড়ের উপর থেকে নাফ নদীর অপরূপ সৌন্দর্য বিরল দৃশ্য। টেকনাফের সমুদ্র সৈকতটিও খুবই সুন্দর। বাংলাদেশের সবচেয়ে পরিচ্ছন্ন সৈকত বলা যায় এটিকে। এছাড়া এখানকার ঐতিহাসিক মাথিনের কূপ, শাহ পরীর দ্বীপ, কুদুম গুহা, টেকনাফ নেচার পার্ক উল্লেখযোগ্য দর্শনীয় স্থান। কক্সবাজার থেকে বাস ও মাইক্রোবাসে টেকনাফ আসা যায়। বাসে এখানকার ভাড়া ১০০-১৩০ টাকা। আর মাইক্রোবাসে ১২০-১৫০ টাকা। কক্সবাজার থেকে টেকনাফের বাস ছাড়ে আন্তজেলা বাস টার্মিনাল থেকে আর মাইক্রোবাসগুলো শহরের কলাতলী এবং টেকনাফ বাইপাস মোড় থেকে ছাড়ে। থাকার জন্য পর্যটন মোটেল নে টং ছাড়া এখানে আছে সাধারণ মানের কয়েকটি হোটেল। নে টং এ প্রতিদিনের রুম ভাড়া ১০০০-১৫০০টাকা। আর অন্যান্য সাধারণ মানের হোটেলে ৩০০-৫০০ টাকায় থাকার ব্যবস্থা আছে।

সাকি/taknaf