ইবোলা থেকে সাবধান

0
223
ebola
ইবোলা ভাইরাস এখন ছড়িয়ে গেছে পশ্চিম আফ্রিকার সিয়েরা লিওন, লাইবেরিয়া, গিনি ও নাইজেরিয়াতে। প্রাণহানি হয়েছে অন্তত ৯৩২ জনের। যুক্তরাষ্ট্রের দু একটি প্রদেশে ইবোলা ভাইরাস আক্রান্তদের খোঁজ মিলেছে। ভারত ইবোলার ব্যাপারে সতর্কতা জারি করেছে। বাংলাদেশ সরকারও ইবোলা ভাইরাস থেকে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিতে ৯০ দিনের জন্য স্বাস্থ্য সচিবের নেতৃত্বে কমিটি গঠন করেছে।ebolaওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশন (ডব্লিউএইচও) আর্ন্তজাতিক সর্তকতা জারি করেছে। নতুন করে এই ভাইরাস  মহামারী আকার ছড়িয়ে যাওয়ার ইঙ্গিত দিয়েছেন ডব্লিউএইচও-এর প্রধান মার্গারেট চান।বোস্টন মেডিক্যাল সেন্টারের এপিডেমিওলজিস্ট এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের ন্যাশনাল ইমারজিং ইনফেকশনস ডিজিস ল্যাবরেটরিস-এর সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ বিভাগের পরিচালক ড. নাহিদ বাদেলিয়া জানান, কোনো প্রকার চিকিৎসা না নিলেই এটি মারাত্মকভাবে প্রাণঘাতী হয়ে ওঠে।

এটি যেভাবে দেহে প্রবেশ করে:

এই ভাইরাস বাতাসের সঙ্গে সংক্রমিত হতে পারে। এ ছাড়া বাদুড়সহ যেকোনো প্রাণি যদি এই ভাইরাস বহন করে তবে তার সংস্পর্শেও এটি সংক্রমিত হতে পারে। দেহে এই ভাইরাস রয়েছে এমন মানুষের দেহের তরল পদার্থ যেমন- বমি বা ডায়রিয়া ইত্যাদির সংস্পর্শেও এর সংক্রমণ ঘটে।

পরিবেশের যেকোনো উপাদানে বিশেষ তাপমাত্রায় এই ভাইরাস ১ থেকে ২ দিন পর্যন্ত অবস্থান করতে পারে। তাই সবকিছু পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখার মাধ্যমে ইবোলা থেকে বাঁচার সম্ভাবনা থাকে।

সংক্রমণের পর কী হয়:

ইবোলা দেহে সংক্রমিত হলে তা কোষগুলোকে নকল করতে থাকে। এরপর এটি এমন এক প্রোটিন উৎপন্ন করে যা দেহের জন্য ক্ষতিকর। একে বলা হয় ইবোলা ভাইরাস গ্লাইকোপ্রোটিন। এটি রক্ত প্রবাহের শিরা-উপশিরায় মিশে যায়। এটি দেহে রক্ত জমাট বাঁধতে বাধা দেয় এবং রক্ত পাতলা করে দেয়।এটি দেহের স্বাভাবিক প্রতিরোধ ক্ষমতা নষ্ট করে দেয়। এটি কোষের সংকেত নিউট্রোফিলসকে ব্লক করে দেয়। এই ভাইরাস বিপাক ক্রিয়ায় অংশ নেওয়া কোষের সঙ্গে মিশে দেহের অন্যান্য অংশে ছড়িয়ে যায়।ইবোলার লক্ষণগুলো :

ইবোলার সংক্রমণে দেহে এক ধরনের প্রদাহ দেখা দিতে পারে এবং এটাই এর প্রথম লক্ষণ। এই ভাইরাসটি সত্যিই খুব ভয়ংকর। এর আক্রমণে চোখ, কান ও নাক দিয়ে রক্ত বের হতে পারে এবং মৃত্যু নিশ্চিত।
এ ছাড়া নাক দিয়ে বা চোখ দিয়ে রক্ত পড়ার মতো চরম হেমারেজের লক্ষণও প্রকাশ পায়। কিছু মানুষের মধ্যে এর লক্ষণ জোরালোভাবে দেখা দেওয়ার আগেই তারা মারা যান। আবার অনেকের সামান্য রক্ত বের হতে পারে।প্রাথমিক অবস্থায় ফ্লু-এর মতো লক্ষণ প্রকাশ পায়। পুরো অসুস্থ হওয়ার আগে রোগীর বারবার বমি, ডায়রিয়া এবং নিম্ন রক্তচাপ হতে পারে। মূলত দেহের বিভিন্ন প্রত্যঙ্গের কাজ বন্ধ হয়ে যাওয়ার কারণে মানুষের মৃত্যু হয় যার পেছনে রয়েছে ইবোলা।আক্রান্তরা কীভাবে বাঁচেন:

আক্রান্ত মানুষরাও বাঁচতে পারেন তার স্বাস্থ্য কেমন তার ওপর ভিত্তি করে। হতে পারে তারা আক্রান্ত হয়েছেন কিন্তু তা নিতান্ত কম। ইবোলাকে দেহের কোষে প্রবেশের জন্য ত্বকের উপরিতলে সুযোগ থাকতে হবে। পরীক্ষায় দেখা গেছে, কিছু মানুষের জিনগতভাবে বৈশিষ্ট্য এমন যে এই ভাইরাস প্রবেশের তেমন সুযোগ থাকে না। সে ক্ষেত্রে তারা ক্ষতিগ্রস্ত নাও হতে পারেন।ড. বাদেলিয়া জানান, এখন পর্যন্ত এই ভাইরাস থেকে নিরাময়ের উপায় পেতে গবেষণা চালানো হচ্ছে। তারপরও ভাইরাস দেহে প্রবেশের পর একে থামানোর উপায় হলো, এটি কোষের রেপ্লিকা তৈরি শুরুর আগেই তাকে আটকে দেওয়া। অথবা দেহের বিপাক ক্রিয়াকে এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে এমনভাবে তৈরি করতে হবে যেনো তা ইবোলাকে আটকে দিতে পারে।
ইউএম/