অজ্ঞাত বস্তুটি ঘিরেই অভিযান

0
92

launchমুন্সীগঞ্জের মাওয়া ঘাটের কাছে পদ্মার তলদেশে পাওয়া অজ্ঞাত বস্তুটিকে ঘিরেই উদ্ধার অভিযান চালানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে জেলা প্রশাসন। নদীর অন্যান্য জায়গায় উদ্ধার অভিযান আপাতত পরিত্যক্ত ঘোষণা করেছে প্রশাসন।

রোববার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে মাওয়া ঘাটে পদ্মা সেতুর ডাকবাংলোতে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে জেলা প্রশাসক সাইফুল হাসান এ কথা জানান।

সাইফুল হাসান জানান, পদ্মা নদীতে লঞ্চ ডুবে যাওয়ার জায়গা থেকে প্রায় ৫০ বর্গকিলোমিটার এলাকায় তল্লাশি চালানো হয়। কেবল মাওয়া ঘাটের এক কিলোমিটার এলাকার মধ্যের একটি ধাতব বস্তুর উপস্থিতি ধরা পড়ে। এটি বাদে কোনো কিছুই আমাদের কাছে গ্রহণযোগ্য মনে হয়নি। তাই ওই এলাকাবাদে অন্যান্য জায়গার উদ্ধার অভিযান আপাতত পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়েছে।

সাইফুল হাসান আরও জানান, চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের দুটি জাহাজ ‘কান্ডারি-২’ ও ‘জরিপ-১০’ ওই এলাকায় অনুসন্ধান কাজ চালাচ্ছে।

তিনি জানান, কোস্টগার্ড, নৌবাহিনী, বিআইডব্লিউটিএসহ অন্যান্য সব বাহিনীর উদ্ধারকাজ প্রত্যাহার করা হয়েছে। তাদের প্রত্যাহার করা হলেও ডুবুরিরা উদ্ধারকাজে সহায়তা করবে।এ ছাড়া লাশ উদ্ধারে নিয়মিত টহল অব্যাহত থাকবে।

গতকাল শনিবার পদ্মার তলদেশে যে ধাতব বস্তু শনাক্ত করতে সক্ষম হয় উদ্ধারকর্মীরা। চট্টগ্রাম বন্দরের অনুসন্ধানকারী নৌযান কাণ্ডারি-২ এর যন্ত্রে এ ধাতব বস্তুর অবস্থান ধরা পড়ে। তবে এ ধাতব বস্তু পিনাকেরই কিনা সে সম্পর্কে এখনও নিশ্চিত হতে পারেনি তারা।

উদ্ধার কর্মীরা জানিয়েছেন, ধাতব বস্তুটির দৈর্ঘ্য ৪৯ থেকে ৫২ ফুট। ডুবে যাওয়া পিনাক-৬ এর দৈর্ঘ্য ৫১ ফুট। পিনাক কাত হয়ে ডুবেছিল আর সংকেত পাওয়া বস্তুটিও কাত হয়ে আছে। ধাতব বস্তুটি ঘটনাস্থল থেকে ৪শ’ থেকে ৫শ’ মিটার দূরে রয়েছে বলে জানায় তারা।

চট্টগ্রাম বন্দরের প্রধান হাইড্রোগ্রাফার ক্যাপ্টেন মঞ্জুরুল করিম চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, পিনাক-৬ ডুবে যাওয়ার কাছাকাছি ১ কিলোমিটার ভাটিতে ধাতব কিছুর খোঁজ পাওয়া গেছে। এটি স্রোতের সঙ্গে সরে যাচ্ছে।

এদিকে, শনিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বরিশালের মেহেদিগঞ্জ থেকে এক নারীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

এ নিয়ে লঞ্চডুবির ঘটনায় ৪৮ জনের লাশ উদ্ধার করা হলো। এখনও নিখোঁজ রয়েছে ৬৫ জন।এর মধ্যে ২৮ জনের পরিচয় মিলেছে। ১৫ জনকে বেওয়ারিশ হিসেবে দাফন করা হয়েছে।

গত সোমবার কাওড়াকান্দি থেকে মাওয়া আসার পথে তিন শতাধিক যাত্রী নিয়ে ডুবে যায় পিনাক-৬।