১৬% কমেছে খাদ্যশস্যের দাম

0
98
Central-Asia_Kyrgyzstan_women
ফাইল ছবি
Central-Asia_Kyrgyzstan_women
ফাইল ছবি

বিশ্ববাজারে খাদ্যশস্যের দাম কমছেই। ২০১৩ সালের একই সময়ের তুলনায় চলতি বছরের জুলাই মাসে খাদ্যশস্যের দাম কমেছে ১৬ দশমিক ৬ শতাংশ বা ৩৬ দশমিক ৯ পয়েন্ট। আর জুন মাসের তুলনায় তা ৫ দশমিক ৫ শতাংশ বা ১০ দশমিক ৭ পয়েন্ট কমেছে।

জাতিসংঘের অঙ্গসংগঠন বিশ্ব খাদ্য সংস্থা- এফএও’র সর্বশেষ মাসিক প্রতিবেদনে পণ্যের দাম কমার এ চিত্র উঠে এসেছে। খবর রয়টার্স, ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল এবং ইন্ডিপেন্ডেন্ট এর।

৫৫ টি খাদ্য পণ্যের মূল্য নিয়ে এফএও’র এ সূচক গঠিত। সংস্থার প্রতিবেদন অনুসারে, টানা চতুর্থ মাসের মতো সদ্য শেষ হওয়া মাসে গম, ভুট্টা, পাম তেল, দুধ ও দুধজাত পণ্যের দাম কমেছে। তবে এ সময়ে চিনি ও মাংসের দাম বেড়েছে।

জুলাই মাসে বিশ্ব খাদ্য মূল্য সূচক ৪ দশমিক ৪ পয়েন্ট কমে ২০৩ দশমিক ৯ পয়েন্ট হয়েছে। জুনের তুলনায় দাম কমেছে ২ শতাংশ।

এফএও’র তথ্যানুযায়ী, উৎপাদন ও সরবরাহ পরিস্থিতি ভালো থাকায় আলোচিত খাদ্য পণ্যগুলোর দাম নিম্নমুখী হয়েছে।

সংস্থাটির বরাত দিয়ে রয়টার্স জানিয়েছে, এসব পণ্যের সমন্বয়ে গঠিত ওয়ার্ল্ড ফুড ইন্ডেক্স বা বিশ্ব খাদ্যমূল্য সূচক ৬ মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন অবস্থানে চলে এসেছে।

তবে ভোক্তাদের জন্য সুখবরও শুনিয়েছে জাতিসংঘের এ সংস্থা। এফওএ’র পূর্বাভাস অনুসারে, আগামী ১০ বছরে বিশ্বে পর্যাপ্ত খাদ্য উৎপাদিত হবে। তাই খাদ্য মূল্যে বড় ধরনের উল্লম্ফনের কোনো আশংকা নেই।

সর্বশেষ তথ্যানুযায়ী, জুলাই মাসে বিশ্ব খাদ্য মূচক অবস্থান করছে ১৮৫ দশমিক ৪ পয়েন্টে।

অন্যদিকে আগের মাসের তুলনায় জুলাই মাসে ভোজ্য তেলের সূচক ৭.৭ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১৮১ দশমিক ১ পয়েন্টে। আলোচ্য সময়ে যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ আমেরিকায় পর্যাপ্ত যোগান থাকায় পাম ও সয়াবিন তেলের দাম কমেছে।

জুলাইতে দুগ্ধজাত খাবারের দামও কমেছে। এফএও জানিয়েছে, পবিত্র রমজান উপলক্ষ্যে ওই মাস ইসলামিক দেশগুলোতে দুগ্ধপণ্য মাখনের ক্রয় কমে যাওয়া আমদানি চাহিদাও কমে যায়। ফলে এ দামের পতন হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, সদ্য শেষ হওয়া মাসে দুগ্ধজাত পণ্যের মুল্যসূচক জুন মাসের চেয়ে ১০ দশমিক ৩ পয়েন্ট কমে দাঁড়ায় ২২৬ দশমিক ১ পয়েন্টে। গত বছরের একই সময়ের তুলনায় তা ১৭ দশমিক ৫ বা ৭ দশমিক ২ শতাংশ হ্রাস পায়।

এদিকে টানা পঞ্চম মাসের মতো জুলাই মাসে মাংসের দাম বেড়েছে বিশ্ববাজারে। বেড়ে চলেছে চিনির দামও। এফএও’র সর্বশেষ তথ্যে দেখা যায়, জুলাই মাসে বিশ্ববাজারে মাংসের মূল্যসূচক আগের মাসের তুলনায় ৩ দশমিক ৭ পয়েন্ট বেড়ে গড়ে অবস্থান করছে ২০৪ দশমিক ৮ শতাংশে। গত বছরের একই সময়ের তুলনায় তা ২৫ দশমিক ৪ বা ১৪ দশমিক ১ শতাংশ কমেছে।

অন্যদিকে আন্তর্জাতিক বাজারে চিনির দাম জুনের তুলনায় জুলাইতে ১ দশমিক ১ পয়েন্ট বেড়ে দাড়িয়েছে ২৫৯ দশমিক ১ পয়েন্টে। গত বছরের একই সময়ের তুলনায় জুলাইতে চিনির মূল্যসূচক ২০ দশমিক ২ পয়েন্ট বা ৮ দশমিক ৪ শতাংশ বেড়েছে।

এস রহমান/