অপেক্ষায় চার কোম্পানির শেয়ার পাওয়া বিনিয়োগকারীরা

0
666

IPOCompanies_প্রথমিক গণ প্রস্তাব (আইপিও) পাওয়া চার কোম্পানির বিনিয়োগকারীরা অপেক্ষার প্রহর গুণছেন। কবে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হবে কোম্পানিগুলো, কোন দিন শুরু হবে কোম্পানিগুলোর লেনদেন।

আইপিও’র পর লটারি সমাপ্ত হওয়া চারটি কোম্পানি হলো-তুং হাই নিটিং অ্যান্ড ডায়িং লিমিটেড, ফার ইস্ট নিটিং অ্যান্ড ডাইয়িং ইন্ডাস্ট্রিজ, সুহৃদ ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড ও সাইফ পাওয়ারটেক।

ডিএসই, সিএসই ও কোম্পানিগুলোর সঙ্গে আলাপ করে সর্বশেষ অবস্থা অর্থসূচকের পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো।

তুং হাই নিটিং অ্যান্ড ডায়িং লিমিটেড:  গত ১৯ জুন তুং হাই নিটিং অ্যান্ড ডায়িং লিমিটেডের লটারির ড্র অনুষ্ঠিত হয়। ১৮ মে থেকে ২২ মে পর্যন্ত আবেদন গ্রহণ করা হয়। তবে প্রবাসী বিনিয়োগকারীদের জন্য এ সুযোগ ছিল ৩১ মে পর্যন্ত। এর প্রেক্ষিতে ১৯ জুন লটারি করা হয়।

জানা গেছে, লটারির পর ডিএসইতে তালিকাভুক্তির জন্য আবেদন করেছে কোম্পানি কর্তৃপক্ষ। আগামি সপ্তাহের শেষ দিকে ডিএসই’র পরিচালনা পর্ষদের বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। ওই বৈঠকে তালিকাভুক্তির বিষয়টি থাকেবে বলে ডিএসই সূত্রে জানা গেছে। তবে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) ইতোমধ্যে এ কোম্পানিকে তালিকাভুক্ত করেছে।

জানা যায়, কোম্পানিটির ৩ কোটি ৫০ লাখ শেয়ার ছেড়ে বাজার থেকে ৩৫ কোটি টাকা উত্তোলন করবে।

বিএসইসির তথ্য অনুযায়ী, উত্তোলিত টাকা চলতি মূলধন, মেশিনারিজ ক্রয় এবং টার্ম ঋণ পরিশোধ ও আইপিওর কাজে ব্যয় করবে কোম্পানি। এই কোম্পানির ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে এএফসি ক্যাপিটাল লিমিটেডসহ ও ইমপেরিয়াল ক্যাপিটাল লিমিটেড।

ফার ইস্ট নিটিং অ্যান্ড ডাইয়িং ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড: গত ১৭ জুলাই ফার ইস্ট নিটিং অ্যান্ড ডাইয়িং ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের আইপিওর লটারির ড্র অনুষ্ঠিত হয়েছে। আইপিওতে নির্দিষ্ট সংখ্যক লটের চেয়ে বেশি আবেদন জমা পড়ায় লটারির মাধ্যমে শেয়ারহোল্ডার বেছে নেয় কোম্পানি কর্তৃপক্ষ।

কোম্পানিটি বাজার থেকে ৬৭ কোটি ৫০ লাখ টাকা সংগ্রহ করার জন্য বিএসইসি অনুমোদন দেয়। এর বিপরীতে ৩৯৫ কোটি ১৮ লাখ টাকার আবেদন জমা পড়ে।

এর আগে গত ১৫ জুন থেকে ১৯ জুন পর্যন্ত আবেদন গ্রহণ করা হয়। আর প্রবাসী বাংলাদেশীদের জন্য আবেদনের সুযোগ ছিল ২৮ জুন পর্যন্ত।

বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জের (বিএসইসি) ৫১৩ তম সভায় এই কোম্পানির আইপিও অনুমোদন দেয়।

বিএসইসির তথ্য অনুযায়ী, কোম্পানির ৫ বছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী ৩০ জুন ২০১৩ সমাপ্ত বছর শেষে শেয়ার প্রতি আয় বা ইপিএস ২ টাকা ৫৪ পয়সা। আর এনএভি বা শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য হয়েছে ১৯ টাকা ৮ পয়সা।

কোম্পানিটি শেয়ার বাজার থেকে টাকা উত্তোলন করে বিএমআরই, ব্যাংকের মেয়াদী ঋণ পরিশোধ করবে। কোম্পানিটির ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে আইডিএলসি ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড।

সুহৃদ ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড: গত ৮ জুন থেকে ১২ জুন পর্যন্ত আইপিও’র আবেদন গ্রহণ করে সুহৃদ ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড। আর প্রবাসী বাংলাদেশীদের আবেদন নেওয়া হয় ২১ জুন পর্যন্ত। বিনিয়োগকারীদের মধ্যে শেয়ার বরাদ্দ দিতে গত ১০ জুলাই আইপিও’র লটারির ড্র অুষ্ঠিত হয় সুহৃদ ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের। এ কোম্পানির আইপিও পাওয়া বিনিয়োগকারীরাও অপেক্ষায় আছেন। কবে শুরু হবে লেনদেন।

এর আগে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) ৫১৪তম সভায় সুহৃদ ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের আইপিওর অনুমোদন দেয়া হয়।

সর্বশেষ আর্থিক হিসেব অনুযায়ী এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় বা ইপিএস হয়েছে ১ টাকা ১০ পয়সা। আর এবং প্রতি শেয়ারের সম্পদ মূল্য বা এনএভি ১৪ টাকা ১১ পয়সা।

রাষ্ট্রায়াত্ব বিনিয়োগ প্রতিষ্ঠান ইনভেস্টমেন্ট কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ (আইসিবি) কোম্পানিটির ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব পালন করছে।

সাইফ পাওয়ারটেক: 

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্তির অনুমোদন পাওয়া সাইফ পাওয়ারটেক লিমিটেডের আইপিও লটারির ড্র সম্পন্ন হয়েছে গত বৃহস্পতিবার।

বিএসইসির তথ্য অনুযায়ী, কোম্পানিটি ২০ টাকা প্রিমিয়ামসহ ৩০ টাকা মূল্যে বাজারে ১ কোটি ২০ লাখ শেয়ার বিক্রি করবে। আর এর মাধ্যমে বাজার থেকে সংগ্রহ করবে ৩৬ কোটি টাকা। এর বিপরীতে আইপিওতে ৩৪০ কোটি ৬২ লাখ টাকার আবেদন জমা পড়েছে। সে হিসাবে কোম্পানিটির ৯ দশমিক ৪৬ শতাংশ আবেদন পড়েছে।

এর আগে বাংলাদেশ সিকিউরিটি অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) ৫১৫তম সভায় এই কোম্পানির আইপিও অনুমোদন দেওয়া হয়। এর প্রেক্ষিতে গত ৬ জুলাই থেকে ১০ জুলাই পর্যন্ত আবেদন জমা নেয়া হয়।

জানা গেছে, উত্তোলিত টাকা নতুন ব্যাটারি প্রকল্প এবং আইপিওর কাজে ব্যয় করবে কোম্পানি কর্তৃপক্ষ।

তথ্য অনুযায়ী, কোম্পানির ৩০ জুন ৩০১৩ সমাপ্ত বছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী সমাপ্ত বছরের হিসাবসহ বিগত পাঁচ বছরের অনুযায়ী ওয়েটেড এভারেজ কনসোলিটেড শেয়ার প্রতি আয় বা ইপিএস হয়েছে ৩ টাকা ১ পয়সা। আর নব মূল্যায়িত শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য বা এনএভি হয়েছে ২৪ টাকা ২৯ পয়সা।

জিইউ