ভারত ছেড়ে চীনের পুঁজিবাজারে ঝুঁকছে বিনিয়োগকারীরা

ভারতের পুঁজিবাজার কয়েক বছর ধরে ভালো অবস্থানে রয়েছে। সেই তুলনায় চীনের পুঁজিবাজার অতটা ভালো ছিলো না। এমন পরিস্থিতির মধ্যেও বিনিয়োগকারীরা মূলত হংকংয়ের সূত্রে চীনের স্টক মার্কেটে বিনিয়োগ করছেন। গত বছরের জুন-জুলাই মাসের পর এই প্রথম এই প্রবণতা আবার দৃশ্যমান হচ্ছে।

ব্লুমবার্গের সূত্রে টাইমস অব ইন্ডিয়া এ তথ্য জানিয়েছে।

সংবাদে বলা হয়, চীন অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে বিভিন্ন ধরনের প্রণোদনা দিচ্ছে, সে কারণে বিনিয়োগকারীরা তাদের পুরোনো প্রিয় বাজার চীনের প্রতি আকৃষ্ট হচ্ছেন। তাঁদের মনে আশাবাদ, অর্থনীতি চাঙা করতে বেইজিং যে প্রণোদনা দিচ্ছে, তাতে চীনের শিল্প খাতের মুনাফা বাড়বে, উৎপাদনও বাড়বে।

জানা যায়, চীনের বাজারের বিষয়ে তাঁরা ক্রমেই আরও আশাবাদী হয়ে উঠছেন। ওয়াল স্ট্রিটের বড় ব্যাংকগুলো এখনো মনে করে, আগামী এক দশক বিনিয়োগকারীদের কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বাজার হবে ভারতের পুঁজিবাজার, যদিও বিনিয়োগকারীরা এ বিষয়ে সতর্ক যে ভারতের বাজারে তালিকাভুক্ত অনেক কোম্পানির স্টক অতিমূল্যায়ন হচ্ছে। সেই সঙ্গে নিয়ন্ত্রক সংস্থার বিভিন্ন পদক্ষেপের কারণে বাজার অস্থিতিশীল হতে পারে।

সংবাদে বলা হয়েছে, উদীয়মান দেশের তহবিল এখন ক্রমবর্ধমান হারে চীনের পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ হচ্ছে। একই সময়ে ভারতের বাজারে তাঁরা বিনিয়োগ কমাচ্ছেন। বৈশ্বিক বিনিয়োগকারীরা মূলত হংকংয়ের সূত্রে চীনের স্টক মার্কেটে বিনিয়োগ করছেন। গত বছরের জুন-জুলাই মাসের পর এই প্রথম এই প্রবণতা আবার দৃশ্যমান হচ্ছে।

ভারতের শেয়ার সূচকের উত্থান কিছুটা কমে গেলেও গত ফেব্রুয়ারি মাসের পর এমএসসিআই চায়না ইনডেক্স বা সূচক গত ফেব্রুয়ারি মাসের পর দ্বিগুণের বেশি বেড়েছে। এই বাস্তবতায় উদীয়মান দেশগুলোর তহবিল ব্যবস্থাপনা কোম্পানিগুলো এখন ভারতের বাজার থেকে বিনিয়োগ সরিয়ে চীনের বাজারে নিতে শুরু করেছেন।

তহবিল ব্যবস্থাপনা কোম্পানি ল্যাজার্ড অ্যাসেটের উদীয়মান বাজার বিভাগের প্রধান জেমস ডোনাল্ড বলেছেন, চীনের বাজারে শেয়ারের দাম কমতির দিকে থাকলেও সেখানে বিনিয়োগের যৌক্তিকতা বেড়েছে। তিনি বলেন, ‘চীনে ল্যাজার্ড অ্যাসেটের যে স্টক আছে, তা বাজারের সূচকের সঙ্গে সম্পর্কিত, কিন্তু ভারতের বাজারে স্টকের অতিমূল্যায়নের কারণে আমাদের স্টক পরিস্থিতির অবনতি হওয়ার আশঙ্কা আছে।’

বিনিয়োগ যে চীনে সরে যাচ্ছে, তার লক্ষণ এখন দেখা যাচ্ছে। যদিও অনেকে মনে করছেন, বিষয়টি নিছক কৌশলগত। ভারতের প্রবৃদ্ধি নিয়ে ইতিবাচক পূর্বাভাস ও নরেন্দ্র মোদির তৃতীয় দফা প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হওয়ার সম্ভাবনার পরিপ্রেক্ষিতে অনেকে মনে করছেন, বিনিয়োগ আবার ভারতে ফিরবে।

অর্থসূচক/

  
    

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.