প্রতীক্ষা আর প্রতিশোধের মিশন মারাকানায়

0
36
Germany vs Argentina
জার্মানি বনাম আর্জেন্টিনা
আজ মারাকানায় আতশবাজির নিচে দাঁড়িয়ে বিশ্বকাপটা উঁচিয়ে ধরবেন ফিলিপ লাম নাকি লিওনেল মেসি? কার গোলে ফাইনালের মীমাংসা হবে, লিওনেল মেসি নাকি টমাস মুলার। নয়ার নাকি রোমেরো কার হাতে আটকাবে বিপক্ষের বিশ্বকাপ জয়ের সোনালী স্বপ্ন। ফিরবে ৮৬ নাকি ৯০। আজকের শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচকে ঘিরে এমন হাজার প্রশ্নের গুঞ্জন। ১৯৮৬ ও ১৯৯০ সালের বিশ্বকাপ জয়ই দেশ দুটির ফুটবল রূপকথার সর্বশেষ পৃষ্ঠা। এতে সোনালি আরেকটি অধ্যায় যোগ করার সুযোগ আর্জেন্টিনা-জার্মানির সামনে।

Germany vs Argentina
জার্মানি বনাম আর্জেন্টিনা

রোববার বাংলাদেশ সময় রাত ১টায় শুরু হতে যাওয়া ফাইনালে আর্জেন্টিনা চাইবে মেক্সিকো আর জার্মানি ইতালির স্মৃতি ফিরিয়ে আনতে।

আর্জেন্টিনা বনাম জার্মানি মানে তো লাতিন আমেরিকা বনাম ইউরোপও। কিন্তু এত বছর ধরে লালিত ফুটবলের এই ২ ঘরানার মূল সুরটাই তো বদলে গেছে এবার। লাতিন আমেরিকার আর্জেন্টিনা খেলছে ইউরোপিয়ান দলগুলোর মতো হিসাবী ফুটবল আর ইউরোপের জার্মানি যেন লাতিন আমেরিকান কোনো দল। জার্মানি জিতলে নতুন একটা ইতিহাসও লেখা হবে। লাতিন থেকে ১ম বিশ্বকাপ জিতবে ইউরোপের কোনো দল। জার্মান শিবিরের দৃষ্টি সেই ইতিহাসগড়া সাফল্যের দিকেই।

কোচ জোয়াকিম লো বলেই দিয়েছেন, তাদের সামনে এখন ইতিহাস লেখার সুযোগ। অতীতে লাতিন আমেরিকায় সবসময় ওই মহাদেশের দলগুলোই প্রাধান্য বিস্তার করেছে। এবার আমরা ইউরোপিয়ান দল হয়ে এখান থেকে ট্রফি নিয়ে যেতে চাই।

world cup 1990
১৯৯০ বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনাকে হারিয়ে শিরোপা ঘরে তোলে জার্মানি

আর বিশ্বকাপ ফাইনালের মঞ্চে সম্ভাব্য মহানায়কদের বিমুখ করাটা তো জার্মানদের অভ্যাস। ১৯৫৪ সালের পুসকাস, ১৯৭৪ এ ইয়োহান ক্রুইফ কিংবা ১৯৯০ তে ম্যা রাডোনাদের কান্নাই এর প্রমাণ। ওই দুর্ভাগাদের দলে আজ মেসিকেও ঠেলে দিতে চাইবে জার্মানরা।

সেমিফাইনালে হিটলার নাকি ভর করেছিল জার্মানদের ওপর। ব্রাজিলের বিপক্ষে সেই অবিশ্বাস্য জয়ে জার্মান আত্মবিশ্বাস এখন তুঙ্গে। মুলার বলেছেন, জানি না খেলাটা কী ধরনের হবে। তবে আমাদের কী করতে হবে সেটি আমরা ভালো করেই জানি।
বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ গোলের মালিক ক্লোসার আছে ফাইনালে হারার কষ্ট। সেই কষ্ট আর পেতে রাজি হবেন না মিরোস্লাভ ক্লোসা। ‘বিশ্বকাপ ফাইনালে হারার যন্ত্রণাটা আমি খুব ভালোমতোই জানি। আবার এই অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে যাওয়ার কোনো ইচ্ছাই আমার নেই।’

অন্যদিকে জার্মানির বিপক্ষে জিতে বিশ্বকাপ ট্রফিতে চুমু এঁকে দেওয়ার জন্য ক্যারিয়ারের সব অর্জন বিসর্জনেও মেসির আপত্তি নেই। আর একটা ধাপ পেরোলেই আমার স্বপ্ন সত্যি হবে। সেজন্য ক্যারিয়ারে এখন পর্যন্ত যা যা জিতেছি, সব কিছু ছাড়তে রাজি আছি। বিশ্বকাপের সঙ্গে আর কোনো কিছুর তুলনা হয় না।

maradona 1986 wc
জার্মানিকে হারিয়ে ১৯৮৬ এ শিরোপা ওঠে ম্যারাডোনার হাতে

ডি মারিয়া, হিগুয়েন, আগুয়েরোর মতো ফুটবলার আছে আর্জেন্টিনার। জাবালেতা, ম্যাসচেরানোর মতো খেলোয়াড়রা থাকবেন রক্ষণ সামলাতে। গোলবারের নিচে বিশ্বস্ত রোমেরোর হাত তো আছেই। সব মিলিয়ে সুবর্ণ সুযোগ থাকছে আর্জেন্টিনার সামনেও।

জার্মানিকে ফেভারিট মেনেই সাবেলা বললেন, জার্মানি ব্রাজিলকে যেভাবে হারিয়েছে, একইভাবে হারাতে পারে যে কাউকে। তবে আমাদের আক্রমণভাগের ফুটবলাররাও ভয়ঙ্কর। তাছাড়া আমরা ফাইনাল খেলছি জয়ের জন্যই।
মারাকানায় সোনালি ট্রফিটায় চোখ দু’দলেরই। ২৪ বছরের অপেক্ষা ঘোচানোর স্বপ্ন দেখছে জার্মানি,আর্জেন্টিনারও চাওয়া ২৮ বছর ধরে না পাওয়া কাপটাই। ফুটবল বিধাতার কৃপা হবে কার প্রতি, জানতে অপেক্ষা মাত্র কয়েক ঘণ্টার।