মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ কার্যক্রম মূল্যায়ন করবে এপিজি

0
50
apg-macau
এপিজি সম্মেলনের প্রথম দিনে প্রতিনিধিরা
apg-macau
এপিজি সম্মেলনের প্রথম দিনে প্রতিনিধিরা

বাংলাদেশে মানি লন্ডারিং ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন প্রতিরোধ কার্যক্রমের ব্যাপ্তি ও কার্যকারিতা মূল্যায়ন করবে আন্তর্জাতিক সংস্থা এপিজি।এ লক্ষ্যে আগামী বছরের শেষভাগে সংস্থার বিশেষজ্ঞ প্রতিনিধি দল ঢাকা সফর করবে। তবে এ মূল্যায়ন কার্যক্রম যৌথভাবেই হবে।

মানি লন্ডারিং ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন প্রতিরোধ বিষয়ক আন্তর্জাতিক সংস্থা এশিয়া/প্যাসিফিক গ্রুপ অন মানি লন্ডারিং (এপিজি) এর মিউচুয়াল ইভাল্যুয়েশন প্রস্তুতি সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়েছে। আজ রোববার ম্যাকাউ শহরে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিশেষজ্ঞ দলের প্রধান লিন্ডসে চান ও সদস্য সুজি হোয়াইট, ক্রিস্টোপার এবং ঝা হং উপস্থিত ছিলেন।ম্যাকাউ সফররত বাংলাদেশ প্রতিনিধি দল সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এদিকে এপিজির বার্ষিক সাধারণ সভা আজ রোববার মাকাউয়ে শুরু হয়েছে।তবে এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হবে আগামীকাল সোমবার।

আজকের সভায় বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের সাথে বাংলাদেশে মানি লন্ডারিং ও সন্ত্রাসী অর্থায়ন প্রতিরোধ বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়।এতে বাংলাদেশের কার্যক্রম এপিজে কর্তৃক বিশেষভাবে প্রশংসিত হয়।

সম্মেলনে বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের নের্তৃত্ব দেন ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব ড. আসলাম আলম। মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা ফেরদৌস খান,বাংলাদেশ  ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স বিভাগের উপ-প্রধান ও বাংলাদেশ ব্যাংকর নির্বাহী পরিচালক ম. মাহফুজুর রহমান প্রতিনিধি দলের সদস্য হয়ে সভায় অংশ নিয়েছেন।দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এম এইচ সালাহউদ্দিন (অব:), বাংলাদেশ পুলিশের এডিশনাল ডিআইজি এস এম হাফিজুর রহমান, আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব কাজী আরিফুজ্জামান, ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স বিভাগের কর্মকর্তা দেব প্রসাদ দেবনাথ, কামাল হোসেন এবং মোহাম্মদ আব্দুর রব প্রতিনিধি দলে রয়েছেন।

বার্ষিক সভার অংশ হিসেবে মিউচুয়্যাল ইভাল্যুয়েশন কমিটির বৈঠক হয়। এতে আগামী বছর বাংলাদেশের কার্যক্রম মূল্যায়নের সিদ্ধান্ত হয়।

উল্লেখ, এর আগে আরও দু’বার মিউচুয়্যাল ইভাল্যুয়েশন অনুষ্ঠিত হয়েছে।২০০৮ সালে অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় মিউচুয়াল ইভাল্যুয়েশনের প্রতিবেদনের ভিত্তিতে বাংলাদেশকে প্রথমে ‘ধূসর’ পর্যায়ে চিহ্নিত করা হয়।পরে অর্থমন্ত্রীর নেতৃত্বে সমন্বয় কমিটি গঠনের মাধ্যমে সময়োপযোগী পরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করা হলে এপিজিতে বাংলাদেশের অবস্থানের উন্নতি ঘটে।মানি লন্ডারিং ও সন্ত্রাসী অর্থায়ন প্রতিরোধ বিষয়ে বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন বলে স্বীকৃতি পায়।

তাছাড়া ২০১৩ সালের জুলাই মাসে দক্ষিণ আফ্রিকার সান সিটিতে অনুষ্ঠিত এগমন্ড গ্রুপের বার্ষিক সভায় বাংলাদেশকে সদস্য পদ দেওয়া হয়।