এ নিয়ে ৩ বিশ্বকাপে খেলিনি, অভ্যাস হয়ে গেছে: চাহাল

২০২৩ বিশ্বকাপের স্কোয়াডে জায়গা হয়নি যুবেন্দ্র চাহালের। ভারতীয় দলে বিশেষজ্ঞ স্পিনার হিসেবে সুযোগ পেয়েছেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন ও কুলদীপ যাদব। বল হাতে চমক দেখাতে পারেন অলরাউন্ডার রবীন্দ্র জাদেজাও। মূলত তাদের জন্য বিশ্বকাপ দলে জায়গা হয়নি চাহালের।

দল থেকে বাদ পড়ার পর মুখ না খুললেও সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে চাহাল জানিয়েছেন, ‘আমি বুঝতে পারছি মাত্র ১৫ জন প্লেয়ার থাকবে। কারণ এটা বিশ্বকাপ। যেখানে আপনি ১৭-১৮ জন নিতে পারবেন না। আমার কিছুটা খারাপ লাগছে। কিন্তু আমার কাজ হবে ঘুরে দাঁড়ানো। এটা আমার জন্য অভ্যাস হয়ে গেছে এখন। এ নিয়ে তিনটি বিশ্বকাপ হতে চলেছে।’

তিনটি বিশ্বকাপ বলতে ২০২৩ ওয়ানডে বিশ্বকাপ ও ২০২১ ও ২০২২ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের উদাহরণ টেনেছেন চাহাল। দুটি বিশ্বকাপেই দর্শক হয়েছিলেন এই স্পিনার। যদিও ২০১৯ বিশ্বকাপে ভারতের অন্যতম সেরা পারফর্মার ছিলে চাহাল। ৩৬.৮৩ গড়ে নিয়েছিলেন ১২ উইকেট।

ভারতের হয়ে চাহালের অভিষেক হয়েছিল ২০১৬ সালে। এরপর ভারতের হয়ে ওয়ানডেতে তৃতীয় সর্বোচ্চ উইকেট নিয়েছেন এই লেগ স্পিনার। কুলদীপ যাদব বাদে ভারতের দ্বিতীয় সফল স্পিনার তিনি। এর মধ্যে দুটি ফাইফারও রয়েছে। যা ভারতীয় বোলারদের মধ্যে সর্বোচ্চ। ঘরের মাঠে বিশ্বকাপে খেলার কথা ছিল অক্ষর প্যাটেলের। তবে এশিয়া কাপে পাওয়া চোটে এই বিশ্ব আসর থেকেই ছিটকে গেছেন তিনি। ফলে তার জায়গাতেই সুযোগ হয়েছে অশ্বিনের। তবে অনেক সাবেক ভারতীয় ক্রিকেটারই মনে করেন বিশ্বকাপে সুযোগ দেয়া উচিত ছিল চাহালকে। এর মধ্যে রয়েছে ভারতের সাবেক স্পিনার হরভজন সিংও।

চাহাল এখন কাউন্টিতে ব্যস্ত কেন্টের হয়ে খেলতে। বিশ্বকাপের সুযোগ না পাওয়ার পর ফাঁকা সময়টাকে কাজে লাগানোর জন্যই এই সুযোগ লুফে নিয়েছেন তিনি। এ প্রসঙ্গে চাহাল বলেন, ‘এ কারণেই আমি এখানে এসেছি খেলতে। কারণ আমি ক্রিকেট খেলতে চাই যেকোনোখানে, যেকোনোভাবে। আমি এখানে লাল বলে খেলার সুযোগ পাচ্ছি এবং আমি ভারতের হয়ে লাল বলে খেলতে চাই। তাই এটা আমার জন্য দারুণ অভিজ্ঞতা হবে।’

 

অর্থসূচক/এএইচআর

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.