সমুদ্রজয়ের একক কৃতিত্ব প্রধানমন্ত্রীর: লতিফ সিদ্দিকী

0
48
latifsiddique
আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী
আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী
আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী

ডাক টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী বলেছেন, সমুদ্রজয়ের একক কৃতিত্ব প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার। তিনি মামলার উদ্যোগ না নিলে এই বিশাল সমুদ্রসীমায় বাংলাদেশের কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা পেত না।

সরকারি সংবাদ সংস্থা- বাসস জানিয়েছে, শুক্রবার টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে লার্নিং এন্ড আর্নিং বিষয়ক কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘১৯৭৪ সালে জাতীয় সংসদে বঙ্গবন্ধু সমুদ্র আইন পাশ করেছিলেন। ১৯৮২ সালে জাতিসংঘে আইনটি পাশ হয়। কিন্তু জিয়া, এরশাদ এবং খালেদা জিয়ার সরকার কেউই বাংলাদেশের সমুদ্র উদ্ধারে উদ্যোগ নেয়নি। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে সমুদ্রসীমা রক্ষায় উদ্যোগী হয়ে মামলা দায়ের করে। ওই মামলার রায়ের মাধ্যমেই মায়ানমার ও ভারতের দখলে থাকা বিশাল সমুদ্র এলাকা ফিরে পায় বাংলাদেশ।

তিনি বলেন, ‘বিএনপি সমুদ্রে হারিয়ে যাওয়া তালপট্টি খুঁজছে। তালপট্টি কোনো বিষয় না, সমুদ্র পেয়েছি এটাই বড় বিজয়।’

ডাক টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয় আয়েজিত কর্মশালায় শিক্ষিত বেকার যুবক-যুবতীরা অংশ নেয়।

আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী এর আগে গত ৯ জুলাই রূপসী বাংলা হোটেলে বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি আয়োজিত ইফতার মাহফিলে বলেছিলেন, ‘সমুদ্রসীমা মামলায় ভারত কিংবা মায়ানমারের কেউ পরাজিত হয়নি। আর বাংলাদেশও জয়লাভ করেনি’।

সেসময় তিনি আরও বলেন, ভারতের সাথে বাংলাদেশের সমুদ্রসীমার একটা মীমাংসা হয়েছে। বাংলাদেশ তাদের সমুদ্রসীমানা সঠিকভাবে ব্যবহার করতে না পারায় আর্ন্তজাতিক আদালতে মামলা করেছে। মামলায় বাংলাদেশকে একটা নির্দিষ্ট পরিমাণ জায়গা দেওয়া হয়েছে। এতে বাংলাদেশের জয়লাভের কিছু নেই।