মারাকানায় মেসি না রোবেন

0
38
Netherlands vs Argentina
নেদারল্যান্ডস বনাম আর্জেন্টিনা
বিশ্বকাপে সবচেয়ে ট্রাজিক টিম যদি থাকে, তা হলে সেটা নেদারল্যান্ডস। ইউয়ান ক্রুইফ, ফ্র্যাঙ্ক রাইকার্ড, রুদ খুলিট,ডেনিস বার্গক্যাম্প, প্যাট্রিক ক্লুইভার্ট মতো অনেক বাঘা খেলোয়াড় কমলা সাম্রাজ্য দাপিয়ে বেড়িয়েছেন কিন্তু হাত রাখা হয়নি শিরোপায়। অন্যদিকে ২৮ বছরে কাঙ্খিত সোনালি ট্রফিটা ছুঁয়ে দেখা হয়নি আর্জেন্টিনার। মেসির সামনেও সুযোগ ম্যারাডোনা হয়ে ওঠার। তাই আক্ষেপ ঘোঁচানোর লক্ষ্যে ১৩ জুলাই মারাকানায় ইতিহাস গড়তে চায় দু’দলই।

Netherlands vs Argentina
নেদারল্যান্ডস বনাম আর্জেন্টিনা

বাংলাদেশ সময় রাত ২টায় সাও পাওলোর অ্যারেনা করিন্থিয়ান্সে সেমিফাইনালের দ্বিতীয় মহারণে আজ নেদারল্যান্ডসের মুখোমুখি আর্জেন্টিনা।

১৯৭৮ সালে এই নেদারল্যান্ডসকে হারিয়েই আর্জেন্টিনা বিশ্বকাপের প্রথম শিরোপা ঘরে তোলে। সবমিলিয়ে আটবারের মুখোমুখিতে ৪ বার জিতেছে ডাচরা,৩টি ড্র এবং বিশ্বকাপের জয়টিই আর্জেন্টিনার একমাত্র জয়।বিশ্বকাপের চারবারের মুখোমুখি লড়াইতে নেদারল্যান্ডস জিতেছে ২বার,আর্জেন্টিনা জয় ১টিতে। অপর ম্যাচটি হয়েছে ড্র ।
আর্জেন্টিনা গ্রুপ পর্বে বসিনয়ার বিপক্ষে ২-১, ইরানের বিপক্ষে ১-০, নাইজেরিয়ার বিপক্ষে ৩-২এ জিতেছে। দ্বিতীয় রাউন্ডে সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে ১-০ এবং কোয়ার্টার-ফাইনালে বেলজিয়ামের বিপক্ষে ১-০ গোলের জয় পেয়েছে সাবেলার শিষ্যরা।

Argentina practice
অনুশীলনে নির্ভার মেসিরা

তবে এবারের আসরে স্নাইডার, রোবেন আর ফন পার্সিদের মতো ডিফেন্স কচুকাটা করা আক্রমণের মুখে পড়েনি আর্জেন্টিনা। চোট সারিয়ে দলে ফিরছেন আগুয়েরা। ডি মারিয়ার জায়গায় খেলতে পারেন এঞ্জো পেরেজ। লাভেজ্জি হয়তো রিজার্ভ বেঞ্চেই থাকবেন। ডিফেন্সে রোজোর জায়গায় খেলতে পারেন বাসান্তা।

ডি’মারিয়াকে হারানো আর্জেন্টিনা আগুয়েরার প্রত্যাবর্তনের দিকে তাকিয়ে। সামনে আগুয়েরা, হিগুয়েনরা গতি তুলবেন আর একটু পিছিয়ে মার্কারের আড়ালে খেলতে চাইবেন মেসি!

এদিকে ৪ ম্যাচ পর মার্টিন ডেমিচেলিসের অন্তর্ভুক্তি আর্জেন্টাইনদের রক্ষণে খানিকটা বাড়তি শক্তি যোগাবে। তবে ইজেকুয়েল গ্যারায় বা পাবলো জাবালেটার ওপরই মূলত ভরসা রাখবে আর্জেন্টিনা।

আর্জেন্টিনা দলের মূল সমস্যা দলটা বড় বেশি মেসিনির্ভর। গ্রহের সেরা ফুটবলারই প্রতিটি ম্যাচের পার্থক্য গড়ে দিচ্ছেন। ৪ গোল করেছেন, করিয়েছেন দুটি। ৫ ম্যাচের চারটিতে ম্যান অব দ্য ম্যাচ। কিন্তু তাকে ডাচরা আটকে ফেললে আর্জেন্টাইনদের জন্য ম্যাচ বের করা কঠিন হয়েযেতে পারে।
গ্রুপ পর্বে স্পেনের বিপক্ষে ৫-১, অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৩-২, চিলির বিপক্ষে ২-০ গোলে জয় পেয়েছে নেদারল্যান্ডস । দ্বিতীয় রাউন্ডে তারা মেক্সিকোকে ২-১ এবং কোয়ার্টার-ফাইনালে কোস্টারিকার বিপক্ষে টাইব্রেকারে ৪-৩ গোলের জয় পেয়েছে তারা।
অরেঞ্জরা বরাবরই বৈচিত্র্যপূর্ণ দল। ৪-৩-২-১ পদ্ধতিতে খেলে নিচ থেকে খেলাটা তৈরি করে আক্রমণে যাচ্ছে ডাচরা।পাল্টা-আক্রমণনির্ভর ফুটবল খেলছে তিন স্ট্রাইকার অরিয়েন রোবেন, ওয়েসলি স্নেইডার, রবিন ফন পার্সিকে সামনে রেখে।

Netherlands practice
নতুন কিছু তালিম দিচ্ছেন ফন গল

ফন পার্সি গত ম্যাচে গোল না পেলেও ভালো ফুটবল খেলেছেন। অন্ত্রের সমস্যায় ভোগায় পার্সিকে নিয়ে চিন্তিত ফন গল। রোবেন দলের প্রাণভোমরা। যে গতিতে প্রতিপক্ষ সীমানায় পাল্টা-আক্রমণে যাচ্ছেন,তা উপভোগ করার মতো। দুই প্রান্ত দিয়ে তিনি সমানে প্রতিপক্ষ সীমানায় ঢুকতে পারেন। স্নেইডার অভিজ্ঞ, পরিশ্রমী, বুদ্ধিমান ফুটবলার। আর্জেন্টিনার রক্ষণ তছনছ করে দিতে সক্ষম তারা।

তবে নিজেদের রক্ষণভাগ নিয়ে ডাচদের কিছুটা ভাবনা রয়েছে। বিশেষ করে অ্যাস্টন ভিলা স্টপার রন ভস্নারের চোট শঙ্কাটা রক্ষণভাগ নিয়ে কোচ লুই ফন গলের দুশ্চিন্তা খানিকটা বাড়িয়ে দিয়েছে।

স্টিফেন ডি ভিরিজ ও ব্রুনো মার্টিনস ইন্ডির সঙ্গে রক্ষণভাগে আরও দু-একজনকে দাঁড় করিয়ে দিতে পারেন কোচ ফন গল। নাইজেল ডি জংয়ের অনুপস্থিতিতে বস্নাইন্ড,গিওর্গিনিও উইনালদাম,ডির্ক কুইট ও ওয়েসলি স্নেইডাররা মাঝমাঠ থেকে আক্রমণের উৎস তৈরিতে ভূমিকা রাখবেন।

মেসিরা কি পারবেন ১৯৯০ সালের পর প্রথমবারের মতো আর্জেন্টিনাকে বিশ্বকাপের ফাইনালে তুলতে? নাকি ব্যাক টু ব্যাক ফাইনাল খেলবে ওলন্দাজরা। ভোররাতেই মিলবে সব প্রশ্নের উত্তর।