সরকারি টাকা আত্মসাৎ : দুই ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে চার্জশিট

Dudakঢাকা জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে এলএ শাখার ভূমি অধিগ্রহণ চেক জালিয়াতির মাধ্যামে যমুনা ব্যাংক থেকে প্রায় ৩৮ লাখ টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগে দুই ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে একটি চার্জশিট দাখিলের অনুমোদন দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

রোববার রাজধানীর সেগুন বাগিচায় দুদকের প্রধান কার্যালয়ে কমিশনের বৈঠকে চার্জশিটটির অনুমোদন দেওয়া হয় বলে জানান কমিশনের জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রণব কুমার ভট্টাচার্য।

দুদক সূত্রে জানা যায়, শাওন কুমার দাস তার নিজের নাম গোপন করে শাহরিয়ার চৌধুরী নাম ব্যবহার করে সরকারের ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য দেওয়া ভূমি অধিগ্রহণ করে। ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য দেওয়া সম্পত্তির ক্ষয়ক্ষতির বিনিময়ে বিভিন্ন সময়ে ৩৭ লাখ ৭০ হাজার ৮১২ টাকা ভুয়া কাগজ পত্র তৈরি করে যমুনা ব্যাংক থেকে উত্তোলন করে। ক্ষতিগ্রস্ত না হওয়া সত্ত্বেও ভুয়া কাগজ তৈরি করার কাজে সহয়তা করার জন্য মেসার্স সেলিম এন্ড ব্রাদার্স এর মালিক মো.সেলিম রেজাসহ শা্ওন দাসের বিরু্দ্ধে চার্জশিট দাখিলের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

আর তদন্ত শেষে যমুনা ব্যাংকের এফএভিপি মো. মমতাজ উদ্দিন চৌধুরী, সিনিয়র এক্সিকিউটিভ অফিসার সাদিক হোসেন, এক্সিকিউটিভ অফিসার তৌফিক মোর্শেদ ও জেলা প্রশাসকের সহকারী অফিসার মো. আব্দুর রউফকে এজহার থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে।
সূত্র আরও জানায়, দুদকের উপ-পরিচালক মো.বেনজির আহমদ অভিযোগটি আমলে নিয়ে তদন্ত শেষে জালিয়াতির সাথে জড়িত মূল ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইন ২০০৯এর ৪(২) এবং মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইন ২০১২ এর ৪(২) ধারা তৎসহ দন্ডবিধির ৪১৯/৪২০/৪৬৭/৪৬৮/৪৭১এবং ১০৯ ধারায় চার্জশিট দাখিল করবেন।

নয়ন/এআর