বাজেট নিয়ে অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে বিএসইসির বৈঠক মঙ্গলবার

0
56
Muhit Khairul

Muhit Khairulআগামি ২০১৪-১৫ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট নিয়ে মঙ্গলবার অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিতের সঙ্গে বৈঠকে বসবে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। বিকাল ৩ টায় অর্থমন্ত্রণালয়ে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। বিএসইসি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানিয়েছে, পুঁজিবাজারের বর্তমান পরিস্থিতির আলোকে মন্ত্রীর কাছে বেশ কিছু সুপারিশ করবে বিএসইসি। এর মধ্যে থাকবে করপোরেট ট্যাক্স কমানো এবং ক্যাপিটাল গেইন ট্যাক্স বা মূলধনী মুনাফা কর আরোপের প্রস্তাব প্রত্যাহারের বিষয়।

বৈঠকে বিএসইসির চেয়ারম্যান প্রফেসর খায়রুল হোসেন এবং সব কমিশনার অংশ নেবেন।

উল্লেখ, আগামি অর্থবছরের জন্য তালিকা-বহির্ভূত কোম্পানির কর হার ৩৭ দশমিক ৫০ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৩৫ শতাংশ করার প্রস্তাব দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী। কিন্তু পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্ট সবার অনুরোধ থাকা সত্ত্বেও তালিকাভুক্ত কোনো খাতের কোম্পানির কর কমাতে রাজী হননি তিনি।

অন্যদিকে প্রথমবারের মতো তিনি ব্যাক্তি পর্যায়ের বিনিয়োগকারীদের ওপর ক্যাপিটাল গেইন ট্যাক্স আরোপের প্রস্তাব করেন। প্রস্তাব অনুসারে, বছরে ১০ লাখ টাকার বেশি ক্যাপিটাল গেইন হলে ৩ শতাংশ এবং এ গেইন বা মুনাফার পরিমাণ ২০ লাখ টাকা ছাড়িয়ে গেলে ৫ শতাংশ হারে কর দিতে হবে।

শেয়ার কেনা-বেচা থেকে যে মুনাফা হয় তা-ই ক্যাপিটাল গেইন ট্যাক্স বা মূলধনী মুনাফা। বর্তমানে শুধু প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদেরকে ক্যাপিটাল গেইনের জন্য ট্যাক্স দিতে হয়।

দীর্ঘদিনের মন্দা বাজারে ক্যাপিটাল গেইন ট্যাক্স আরোপের প্রস্তাবে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। রোববার বাজেট পরবর্তী প্রথম কর্মদিবসে লেনদেনের এক পর্যায়ে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) মূল্যসূচক ডিএসইএক্স ৯৬ পয়েন্ট কমে যায়। পরে আইসিবিসহ কয়েকটি প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর সাপোর্টে সূচক কিছুটা পুনরুদ্ধার হয়।

জানা গেছে, বিএসইসি অর্থমন্ত্রীকে অনুরোধ জানাবেন তালিকাভুক্ত কোম্পানির কর হার কমাতে। বর্তমানে টেলিকম, সিগারেট প্রস্তুতকারক ও আর্থিক খাতের প্রতিষ্ঠান ছাড়া অন্যান্য সব খাতে তালিকাভুক্ত ও তালিকা-বহির্ভূত কোম্পানির কর হারের ব্যবধান ১০ শতাংশ।নতুন প্রস্তাব কার্যকর হলে ব্যবধান কমে হবে সাড়ে ৭ শতাংশ। ব্যবধান কমে গেলে ভালো কোম্পানিগুলো বাজারে আসতে উৎসাহী হবে না।

অন্যদিকে ক্যাপিটাল গেইন ট্যাক্স যৌক্তিক হলেও বর্তমান বাজার পরিস্থিতি বিবেচনায় আগামি অর্থবছর থেকে এটি বাস্তবায়ন না করাই ভালো।