২০তম বার্ষিকী উদযাপন কর্মসূচি পালন করবে বিএমসিসিআই

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীর উদযাপন উপলক্ষে একযোগে বাংলাদেশ-মালয়েশিয়া চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (বিএমসিসিআই) এর ২০তম বার্ষিকী উদযাপন কর্মসূচি পালন করতে যাচ্ছে।

আয়োজিত এই অনুষ্ঠানটি, ২০ বছর পূর্তি উদযাপনের পাশাপাশি বাংলাদেশের জন্য বিশেষ করে মালয়েশিয়ার প্রতিপক্ষের কাছ থেকে বিদ্যমান মূল বাণিজ্য এবং বিনিয়োগের সুযোগগুলো অন্বেষণ করবে।

বিএমসিসিআই-এর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এ কে এম শহীদুল ইসলামের বিদেহী আত্মার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নীরবতার মধ্য দিয়ে মিট দ্য প্রেস শুরু হয়। সভাপতিত্ব করেন বিএমসিসিআই সভাপতি রকিব মুহাম্মদ ফখরুল ও সঞ্চালনা করেন সৈয়দ আলমাস কবির, ইমিডিয়েট সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট, বিএমসিসিআই, চেয়ারম্যান, বিএমসিসিআই ২০ বছর পূর্তি উদযাপন কমিটির সভাপতি, বেসিসের সভাপতি এবং এফবিসিসিআই পরিচালক। অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে বিএমসিসিআই-এর পরিচালনা পর্ষদ উপস্থিত ছিলেন।

বিএমসিসিআই সভাপতি রকিব মোহাম্মদ ফখরুল (রকি) বলেন, অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির দিক থেকে বাংলাদেশ একটি দ্রুততম বর্ধনশীল দেশ ও মালয়েশিয়া বিশ্বের ষষ্ঠ বৃহত্তম আমদানিকারক দেশ হিসেবে ইতিবাচক ভারসাম্য প্রদানের অপার সম্ভাবনা রয়েছে, আমাদের প্রয়োজন। বর্তমান অর্থনৈতিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে সম্ভাব্যতা অন্বেষণ করা ও দ্বিপাক্ষিক জোট প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে নিশ্চিত করা যেতে পারে। আজ, চেম্বার মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি স্বার্থের বিবর্তনে একটি মাইলফলক এবং বাংলাদেশে মালয়েশিয়ার বিনিয়োগ এবং এর বিপরীতে একটি মাইলফলক প্রতিনিধিত্বকরে, যা আমাদের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের ভিত্তি।

তিনি আরও বলেন, চেম্বার শুধুমাত্র বাংলাদেশ ও মালয়েশিয়া নয়, এর বাণিজ্য অংশীদারদের সুবিধার জন্য বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক মিথস্ক্রিয়া প্রসারিত করবে। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ, এটি আঞ্চলিক প্রেক্ষাপটে দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার বাজারে অর্থনৈতিক ভিত্তি হিসেবে আমাদের প্রভাব বাড়াবে।

বিএমসিসিআইয়ের আয়োজক কমিটির চেয়ারম্যান সৈয়দ আলমাস কবির বলেন, এই উদযাপনের উদ্দেশ্য হল দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার ব্যবসা এবং বিএমসিসিআই সদস্যদের জন্য ব্যবসার সুযোগ সহজতর করা এবং প্রচার করা, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার ব্যবসা এবং বিএমসিসিআই সদস্যদের মাঝে নেটওয়ার্কিং, পরামর্শদান এবং সহযোগিতা বৃদ্ধির জন্য একটি ফোরাম প্রদান করা, জাতীয় ও আন্তর্জাতিক স্তরে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার ব্যবসার মালিক এবং বিএমসিসিআই সদস্যদের ঐক্য বজায় রাখা, বাংলাদেশ এবং মালয়েশিয়া কর্পোরেশন এবং বিএমসিসিআই সদস্যদের পণ্য ও পরিষেবার প্রচার করা যা দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া প্যাসিফিকের অগ্রগতিতে সহায়তা করে।

তিনি উল্লেখ করেছেন যে, স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী প্রধান অতিথি হিসেবে অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকার সম্মতি দিয়েছেন। এ ছাড়া কর্মকর্তা, শিক্ষাবিদ, নীতি নির্ধারক, অর্থনীতিবিদ, গবেষক প্রভৃতিও অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন বলে আশা করা হচ্ছে। দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য ও বিনিয়োগের বিভিন্ন ইস্যু যেমন এফটিএ, সুকুক বন্ড, এলডিসি স্নাতক, রপ্তানি বৈচিত্র্য ইত্যাদি নিয়ে প্রেসের সাথে ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে। বিএমসিসিআই ব্যবস্থাপনা বেসরকারি ব্যবসায়িক খাতের অন্যতম মুখপাত্র হিসেবে গণমাধ্যম ব্যক্তিত্বদের তাদের প্রকাশনায় সমস্যাগুলো তুলে ধরার আহ্বান জানিয়েছে।

অর্থসূচক/আরএমএস/এএইচআর

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
মন্তব্য
Loading...