দেশে মাথাপিছু আয় ২ হাজার ৫৫৪ ডলার: পরিকল্পনামন্ত্রী

অর্থনীতির ভিত্তি বছর পুনর্নির্ধারণ করায় মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) আকার ৪১১ বিলিয়ন ডলার। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) নতুন হিসাব অনুযায়ী এই আকার নির্ধারণ করা হয়েছে। একই হিসাবে ২০২০-২১ অর্থবছরে জিডিপি প্রবৃদ্ধির হার প্রাথমিকভাবে ৫ দশমিক ৪৩ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। এবং মাথাপিছু আয় বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ৫৫৪ ডলার। এর আগে, ২০১৯-২০ অর্থবছরে প্রাথমিক হিসাবে জিডিপি প্রবৃদ্ধি ছিল ৩ দশমিক ৪৫ শতাংশ।

আজ মঙ্গলবার (২৩ নভেম্বর) একনেক বৈঠকের পর পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানিয়েছেন।

এসময় পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী বিবিএসের জিডিপির হিসাব তৈরির নতুন প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছেন। এতে অর্থনীতির এই আকার উঠে এসেছে।’ তিনি বলেন, ‘বিবিএস আগে ২০০৫-০৬ সালকে ভিত্তিবছর ধরে জিডিপির হিসাব করতো। কিন্তু নতুন হিসাব করা হয়েছে ২০১৫-১৬ কে ভিত্তিবছর ধরে।’

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, নতুন ভিত্তিবছর ধরায় জিডিপি হিসাবে বিভিন্ন পণ্যের জাল বিস্তৃত হয়েছে। ফলে মাথাপিছু আয় বেড়েছে। একইসঙ্গে জিডিপি প্রবৃদ্ধিও বেড়েছে।

নতুন ভিত্তিবছর অনুযায়ী দেশের মানুষের মাথাপিছু আয় টাকার অংকে দাঁড়িয়েছে ২ লাখ ১৬ হাজার ৫৮৯ টাকা। পুরনো ভিত্তিবছর ২০০৫-৬ অনুযায়ী মাথাপিছু আয় টাকার অংকে দাঁড়ায় ১ লাখ ৮৮ হাজার ৮৭৩ টাকা।

প্রসঙ্গত, প্রতি দশ বছর পরপর দেশের অর্থনীতির সূচকের ভিত্তিবছর পরিবর্তন করা হয়। সেই হিসেবে যথা নিয়মে ২০০৫-০৬ ভিত্তি বছর পরিবর্তন করা হয়েছে। সঙ্গত কারণেই, গড় মাথাপিছু আয়ও ২ হাজার ৫৫৪ ডলারে উন্নীত হয়েছে, যা আগের হিসেবে ছিল ২ হাজার ২২৭ ডলার।

অর্থসূচক/এমএস/এমএস