ভারত ও আফগানিস্তানের বিদায়ঘণ্টা বাজিয়ে সেমিতে নিউজিল্যান্ড

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে আফগানিস্তান হারলে কী করবেন? উত্তরে রবিন্দ্র জাদেজা বলেছিলেন, ব্যাগ-ট্যাগ গুছিয়ে বাড়ি চলে যাবো। এবার সত্যি সত্যি হয়তো ব্যাগ গোছাতে শুরু করে দিয়েছেন জাদেজাসহ ভারতীয় ক্রিকেটাররা।

কেননা সোমবার নামিবিয়ার বিপক্ষে ম্যাচ বাকি থাকলেও, নিউজিল্যান্ডের কাছে আফগানিস্তানের পরাজয়ে আজই বিশ্বকাপ থেকে বিদায়ঘণ্টা বেজে গেছে ভারতের। অবশ্য শুধু ভারত নয়, আবুধাবির জায়েদ স্টেডিয়ামে কিউইদের ৮ উইকেটের জয়ে বিদায় নিশ্চিত হয়ে গেছে আফগানিস্তানেরও।

দুই সহযোগী সদস্য দেশের বিপক্ষে জয় নিয়েই বিশ্বকাপ থেকে ফিরতে হচ্ছে টি-টোয়েন্টির নবশক্তি আফগানদের। আর পাঁচ ম্যাচের মধ্যে চারটিতে জিতে গ্রুপ-২ থেকে সেমিফাইনালে পাকিস্তানের সঙ্গী হলো নিউজিল্যান্ড। সেমিতে তাদের প্রতিপক্ষ কারা হবে, তা জানা যাবে রাতের ম্যাচের পর।

অঘোষিত কোয়ার্টার ফাইনালে পরিণত হওয়া ম্যাচটিতে আগে ব্যাট করে ১২৪ রানের মামুলি সংগ্রহ দাঁড় করিয়েছিল আফগানিস্তান। জবাবে রয়েসয়ে খেলে মাত্র দুই উইকেট হারিয়ে ১১ বল হাতে রেখেই ম্যাচ জিতে নিয়েছে কেইন উইলিয়ামসনের দল।

১২৫ রানের ছোট লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে তিন ওভারেই ২৬ রান তুলে ফেলে নিউজিল্যান্ড। চতুর্থ ওভারের প্রথম বলে ড্যারেল মিচেলকে সাজঘরে পাঠিয়ে দেন মুজিব উর রহমান। আউট হওয়ার আগে ১২ বলে ১৭ রানের ইনিংস খেলেন মিচেল।

অন্য প্রান্তে রানের চাকা সচল রাখেন আরেক ওপেনার মার্টিন গাপটিল। তবে তাকে বেশি দূর যেতে দেননি রশিদ খান। ইনিংসের নবম ওভারে রশিদের গুগলিতে বোল্ড হয়ে যান ২৮ রান করা গাপটিল। এর মাধ্যমে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে ৪০০ উইকেটের মাইলফলকও স্পর্শ করেন রশিদ।

এরপর আর বিপদ ঘটতে দেননি অধিনায়ক কেইন উইলিয়ামসন ও উইকেটরক্ষক ব্যাটার ডেভন কনওয়ে। দুজনের অবিচ্ছিন্ন ৬৮ রানের জুটিতে সহজ জয়ই পায় নিউজিল্যান্ড। উইলিয়ামসন ৪২ বলে ৪০ ও কনওয়ে ৩২ বলে ৩৬ রানে অপরাজিত ছিলেন।

এর আগে ম্যাচটিতে টস জিতে আগে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন আফগান অধিনায়ক মোহাম্মদ নবি। ব্যাট করতে নেমে অধিনায়কের সিদ্ধান্তের যথার্থতা প্রমাণ করতে পারেননি টপঅর্ডার ব্যাটাররা। পাওয়ার প্লে’তেই হারিয়ে ফেলে তিন উইকেট।

আগের চার ম্যাচের প্রতিটিতে পাওয়ার প্লে’র ছয় ওভারে ৪৫’র বেশি রান করেছিল আফগানিস্তান। কিন্তু আজ কিউইদের বিপক্ষে প্রথম ছয় ওভারে তারা করতে পেরেছে ৩ উইকেটের বিনিময়ে মাত্র ২৩ রান।

ছয় ওভারের মধ্যে সাজঘরে ফিরে যান হযরতউল্লাহ জাজাই, রহমানউল্লাহ গুরবাজ ও মোহাম্মদ শাহজাদ। ইনিংসের তৃতীয় ওভারে প্রথম আঘাত হানেন অ্যাডাম মিলনে। উইকেটের পেছনে ডেভন কনওয়ের দুর্দান্ত ক্যাচে বিদায়ঘণ্টা বাজে ১১ বলে ৪ রান করা শাহজাদের।

ট্রেন্ট বোল্টের করা পরের ওভারে জাজাই আউট হন মাত্র ২ রান করে। পাওয়ার প্লে’র শেষ ওভারের প্রথম বলে গুরবাজকে বোকা বানিয়ে লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলেন টিম সাউদি। এ তরুণ ডানহাতি ব্যাটার নয় বল খেলে করতে পেরেছেন মাত্র ৬ রান।

চতুর্থ উইকেটে ৩৭ রান যোগ করেন নাজিবউল্লাহ ও গুলবদিন নাইব। ইনিংসের দশম ওভারের শেষ বলে দলীয় ৫৬ রানের মাথায় সাজঘরে ফেরার আগে ১৮ বলে ১৫ রান করেন গুলবদিন। অধিনায়ক মোহাম্মদ নবির ব্যাট থেকে আসে ২০ বলে ১৪ রান।

একার লড়াইয়ে দলের প্রায় ষাট শতাংশ রান একাই করেন নাজিব। ইনিংসের ১৯তম ওভারে আউট হওয়ার আগে ৪৮ বলে ৭৩ রান করেন তিনি। যেখানে ছিল ছয়টি চার ও তিনটি বিশাল ছয়ের মার। শেষ পর্যন্ত ৮ উইকেটে ১২৪ রানে থামে আফগানিস্তান।

নিউজিল্যান্ডের পক্ষে বল হাতে তিন উইকেট নিয়েছেন বাঁহাতি পেসার ট্রেন্ট বোল্ট। ডানহাতি পেসার টিম সাউদির শিকার দুই উইকেট। এছাড়া ইশ সোধি, জিমি নিশাম ও অ্যাডাম মিলনে নিয়েছেন একটি করে উইকেট।

অর্থসূচক/এমএস

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •   
  •