রোহিঙ্গা ক্যাম্পে হামলার ঘটনায় মামলা: গ্রেপ্তার ১০

কক্সবাজারের উখিয়ার বালুখালী রোহিঙ্গা শিবিরে একটি মাদরাসায় সন্ত্রাসী হামলায় শিক্ষক-ছাত্রসহ ৬ রোহিঙ্গা নিহত হওয়ার ঘটনায় এজাহারভুক্ত ২৫ জন এবং অজ্ঞাত আরও ২০০ থেকে ২৫০ জনের নামে উখিয়া থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

নিহত আজিজুল হকের বাবা নুরুল ইসলাম বাদী হয়ে শনিবার (২৩ অক্টোবর) রাতে মামলাটি দায়ের করেন। এদিকে এ মামলার এজাহারভুক্ত পাঁচজনসহ পুলিশ ১০ আসামিকে গ্রেফতার করেছে বলে জানিয়েছে এপিবিএন।

এদের মধ্যে এজাহারভুক্ত ১১ নম্বর ক্যাম্পের এ ২ ব্লকের আবু আলমের ছেলে মজিবুর রহমান (১৯), ক্যাম্প ৮ ডব্লিও’র এফ ২৯ ব্লকের আবু তৈয়বের ছেলে দিলদার মাবুদ ওরফে পারভেজ (৩২), একই ব্লকের সৈয়দ আহমদের ছেলে মোহাম্মদ আইয়ুব (৩৭), ৯ নম্বর ক্যাম্পের জি ১৯ ব্লকের নূর বাশারের ছেলে ফেরদৌস আমিন (৪০), একই ক্যাম্পের জি ৩৯ ব্লকের মৌলভী জাহিদ হোছেন এর ছেলে আব্দুল মজিদ (২৪)। এছাড়াও সন্দেহভাজন হিসেবে ১৩ নম্বর ক্যাম্পের এফ ব্লকের আলী আহম্মদের ছেলে মোহাম্মদ আমিন (৩৫), একই ক্যাম্পের বি/৩ ব্লকের আবু সিদ্দিকের ছেলে মোহাম্মদ ইউনুস ওরফে ফয়েজ (২৫), ১২ নম্বর ক্যাম্পের জে ৬ ব্লকের মো. ইলিয়াছের ছেলে জাফর আলম (৪৫), ১০ নম্বর ক্যাম্পের জি ৭ ব্লকের ওমর মিয়ার ছেলে মোহাম্মদ জাহিদ (৪০) ও ১৩ নম্বর ক্যাম্পের ডি ২ ব্লকের মৃত নাজির আহম্মদের ছেলে মোহাম্মাদ আমিন (৪৮) গ্রেফতার করা হয়েছে।

রোহিঙ্গা শিবিরে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় নিয়োজিত ৮ আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়ান এপিবিএন এর অধিনায়ক,পুলিশ সুপার মেহাম্মদ সিহাব কায়সার খান জানান, এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে এ পর্যন্ত ১০ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এদের মধ্যে পাঁচজন মামলার এজাহারভুক্ত আসামি। অন্যরা সন্দেহভাজন। ঘটনায় জড়িত অন্যান্যদের ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

গত শুক্রবার ভোর রাত সাড়ে ৩টার দিকে উখিয়ার বালুখালীর ১৮ নম্বর ক্যাম্পের এইচ-৫২ ব্লকে ‘দারুল উলুম নাদওয়াতুল ওলামা আল-ইসলামিয়াহ’ মাদরাসায় হামলা চালায় অস্ত্রধারী রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা। এ হামলায় মাদরাসায় অবস্থানরত ছাত্র শিক্ষকসহ ৬ জন রোহিঙ্গা মারা যায়। আহত হন অন্তত আরও ১৫ জন।

 

অর্থসূচক/এএইচআর