জিয়া হত্যায় খালেদা লাভবান: হানিফ

0
195
Mahbub Ul Alam Hanif
মাহবুব উল আলম হানিফ (ফাইল ছবি)
মাহবুব উল আলম হানিফ
মাহবুব উল আলম হানিফ (ফাইল ছবি)

জিয়া হত্যায় খালেদা জিয়া জড়িত থাকলেও থাকতে পারেন বলে মনে করেন দেশবাসী। জিয়াউর রহমান হত্যায় সবচেয়ে বেশি খালেদা জিয়া লাভবান হয়েছেন বলে দাবি করেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ।

বুধবার বেলা ১১টায় ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের পক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এই দাবি করেন।

শেখ হাসিনার দেশে ফেরা এবং জিয়াউর রহমানের হত্যাকাণ্ড নিয়ে গতকাল মঙ্গলবার বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের দেওয়া বক্তব্যের জবাবে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

মাহবুব উল আলম হানিফ বলেন, সবাই জানে, খালেদা জিয়ার সঙ্গে জিয়ার সম্পর্ক ভালো ছিল না। এ জন্য দুই বার ক্ষমতায় থাকার পরও তিনি বিচার (জিয়া হত্যার) করেননি।

গত সোমবার গণভবনে আওয়ামী লীগের যৌথ সভায় আওয়ামী লীগের সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছিলেন, বেঁচে থাকলে জিয়াউর রহমানকেও বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার আসামি করা হতো।

শেখ হাসিনার এ বক্তব্যের প্রতিক্রিয়া জানাতে গতকাল নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে বিএনপি। ওই সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুল মন্তব্য করেন, শেখ হাসিনার ১৯৮১ সালে দেশে ফেরার সঙ্গে জিয়াউর রহমানের হত্যাকাণ্ডের সম্পর্ক আছে কি না, তা নিয়ে জনগণের মনে প্রশ্ন আছে। বিএনপি ক্ষমতায় গেলে নতুন করে জিয়া হত্যার তদন্ত করা হবে। শেখ হাসিনা দেশে ফিরেছিলেন ১৭ মে আর জিয়াউর রহমান শহীদ হয়েছেন ৩০ মে।

শেখ হাসিনার দেশে ফেরা এবং জিয়াউর রহমানের হত্যাকাণ্ড নিয়ে মির্জা ফখরুলের মন্তব্যের কড়া সমালোচনা করে বিএনপির উদ্দেশে হানিফ বলেন, তারা কোনো দিন এই বিচার করতে চায়নি। এমনকি তদন্তও করেনি। তাদের অভ্যাস বরাবরের মতোই মিথ্যাচার করা। এ বক্তব্য ফখরুল সাহেবের রাজনৈতিক অসততা প্রমাণ করেছে।

বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে তারেক রহমানের ‘কটূক্তি’ সমর্থন করায় মির্জা ফখরুলের সমালোচনা করেন হানিফ। তিনি বলেন, পদ-পদবি হারানোর ভয়ে এমন নির্লজ্জ মিথ্যাচার করছেন ফখরুল সাহেব। নয়তো তারেকের মতো এমন অর্ধশিক্ষিত মানুষের কাছ থেকে এগুলো শিখতে হবে কেন? তিনি একজন শিক্ষক মানুষ। তবে কি তিনি এত দিন কিছুই জানতেন না?

তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে আনা হবে কি না? এমন প্রশ্নের জবাবে হানিফ বলেন, যারা ইতিহাস বিকৃতি করছে, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া যায় কি না? তা আইন মন্ত্রণালয় খতিয়ে দেখবে।

আওয়ামী লীগের এই যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, এটা তো সর্বজন স্বীকৃত যে, তিনি (জিয়া) হত্যাকারীদের আশ্রয়-প্রশ্রয় দেন। তিনিও খুনের সঙ্গে জড়িত। জিয়া বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের রাজনৈতিক ও সরকারিভাবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। বেঁচে থাকলে অবশ্যই খুনি রশিদ-ফারুকের সঙ্গে তার বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হতো।