মালয়েশিয়ার নিখোঁজ বিমানের সন্ধান দিল ব্রিটিশ নারী!

0
144
katherin
ব্রিটিশ নারী ক্যাথেরিন
katherin
ব্রিটিশ নারী ক্যাথেরিন

সমুদ্রের টলটলে পানি থেকে দৃষ্টি চলে যায় হঠাৎ আকাশে। দেখি, উড়োজাহাজের মতো কি যেন আগুনে পুড়ছে। শরীরে একটু চিমটি কাটি। ভেবে পাচ্ছিলাম না, আসলে সেটা কি। আবার ভাবলাম, পাগল হলাম নাকি। কারণ কমলা রঙের সাথে এ রকমভাবে উড়োজাহাজ ছোটে- এমন দৃশ্য তো আগে কখনো দেখিনি।

তিন মাস আগে মালয়েশিয়ার নিখোঁজ বিমানের খোজ সম্পর্কে এভাবেই বর্ণনা করছিলেন এক ব্রিটিশ নারী। খবর হাফিংটন পোস্ট ও ইনডিপেন্ডেন্টের।

ব্রিটিশ নারীর ক্যাথেরিণ টি (৪১) বলেন, গত মার্চের ৮ তারিখে হারিয়ে যাওয়া বিমানটি বিধ্বস্ত হওয়ার সময় তিনি দেখেছেন। এসময় তিনি তার স্বামীর সাথে জাহাজে করে ভারত সাগরে ঘুরে বেড়াচ্ছিলেন।

ক্যাথেরিন বলেন, ছুটিতে আমি ও মার্ক হর্ন সমুদ্রের পানিতে বেড়াতে গিয়েছিলাম । রাতে একা একা জেগে ছিলাম। আর হর্ন ঘুমিয়ে ছিলো। সেইসাথে নাবিকও ঘুমিয়ে পড়েছিল। তারা ভারতের কচি থেকে থাইল্যান্ডের ফুকেট হোটেলের দিকে যাচ্ছিল। এ সময়ই উড়োজাহাজটি বিধ্বস্ত হয় বলে জানান তিনি।

অস্ট্রেলিয়ার অনুসন্ধানকারী দল বলছে, এই দম্পতি যে তথ্য দিয়েছে। তাতে বোঝা যাচ্ছে, উড়োজাহাজাটি বিধ্বস্ত হওয়ার সময় ক্যাথেরিণদের জাহাজটি বিমানটির কক্ষপথে বরাবরই ছিল। ধারণা করা হচ্ছে ইন্দোনেশিয়ার কাছাকাছি দক্ষিণ ভারত সাগরে বিমানটি আচড়ে পড়তে পারে।air

প্রসঙ্গত, বিমানটি চীনের উদ্দেশ্য ৮ মার্চ শনিবার স্থানীয় সময় ২টা ৪০ মিনিটে কুয়ালালামপুর থেকে ছেড়ে যায়। কিন্ত ১০টা ৩০ মিনিটে এটি বেইজিং-এ পৌঁছানোর কথা থাকলেও এটি পৌঁছায়নি। ভিয়েতনামী সরকারের ওয়েবসাইটে জানানো হয়, দক্ষিণ ভিয়েতনামের ওপর দিয়ে যাওয়ার সময় বিমানটির রাডার বন্ধ হয়ে গিয়েছিল।

মালয়েশিয়ান এয়ারলাইন্সের বরাত দিয়ে ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, গত তিন মাস ধরে অভিযান চালাচ্ছে তারা।  তবে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত বিধ্বস্ত বিমানের কোন ‘চিহ্ন’ খুঁজে পাওয়া যায়নি।  ৫ জন শিশুসহ ২২৭ জন যাত্রী, এবং ১২ জন ক্রু নিয়ে বিমানটি যাত্রা শুরু করেছিল।

এস রহমান/