ইউরোপে একদিনে ২.৪৪ মিলিয়ন ডলারের টিভি রফতানি ওয়ালটনের

ইউরোপে সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব ক্রিসমাস বা বড়দিন। এই উৎসবকে ঘিরে অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত ইউরোপজুড়ে চলে জমজমাট বেচাকেনা। তাই এই সময়টাকে ইউরোপের প্রধান ব্যবসার মৌসুম হিসেবে বিবেচেনা করা হয়। বর্তমানে ইউরোপ ‘মেড ইন বাংলাদেশ’ খ্যাত ওয়ালটন টিভির বড় রফতানি বাজার। ক্রিসমাস উৎসবকে ঘিরে ইউরোপের কয়েকটি দেশের কাছ থেকে একদিনে ২.৪৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের টিভি রফতানির চুড়ান্ত আদেশ পেয়েছে ওয়ালটন। যা কিনা চলতি মাসেই ইউরোপে রফতানি বা ডেলিভারি দেওয়া হবে।

বৃহস্পতিবার (০২ সেপ্টেম্বর) রাজধানীতে ওয়ালটন করপোরেট অফিসে ‘ইউরোপে একদিনে ২.৪৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের টিভি রফতানি’ শীর্ষক এক সেলিব্রেশন প্রোগ্রামের আয়োজন করা হয়। এতে জানানো হয়, বড়দিনের উৎসবকে ঘিরে সেপ্টেম্বরের ১ তারিখে জার্মানি, গ্রিস, ক্রোয়েশিয়া, রোমানিয়া ও পোল্যান্ডে ২.৪৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের টেলিভিশন রফতানির চুড়ান্ত আদেশ পেয়েছে ওয়ালটন। যা কিনা দেশের টেলিভিশন রফতানি খাতে ওয়ালটনের এক নতুন রেকর্ড। ইউরোপে ওয়ালটন টিভি রফতানির এই বিশাল সাফল্য উদযাপন উপলক্ষ্যে অনুষ্ঠানে এক বিশালাকার কেক কাটা হয়।

এ সময় যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব মেনে উপস্থিত ছিলেন ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের ডেপুটি ম্যানেজিং ডিরেক্টর নজরুল ইসলাম সরকার, এমদাদুল হক সরকার ও ইভা রিজওয়ানা নিলু, ওয়ালটন প্লাজা ট্রেডস এর চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার মোহাম্মদ রায়হান, ওয়ালটনের চিফ মার্কেটিং অফিসার ফিরোজ আলম, ওয়ালটনের সিনিয়র এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর এসএম জাহিদ হাসান ও আমিন খান, ওয়ালটন ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস ইউনিট (আইবিইউ) শাখার প্রেসিডেন্ট এডওয়ার্ড কিম, ওয়ালটন টিভির চিফ বিজনেস অফিসার (সিবিও) প্রকৌশলী মোস্তফা নাহিদ হোসেন, ওয়ালটন এসির সিবিও তানভীর রহমান, ওয়ালটন ফ্রিজের সিবিও প্রকৌশলী আনিসুর রহমান মল্লিক, ইউরোপে ওয়ালটনের হেড অব বিজনেস প্রকৌশলী তাওসীফ আল মাহমুদ, রোমানিয়ায় দায়িত্বপ্রাপ্ত ওয়ালটন আইবিইউ শাখার ভাইস-প্রেসিডেন্ট সাঈদ আল ইমরান, ক্রোয়েশিয়ায় দায়িত্বপ্রাপ্ত ওয়ালটন আইবিইউ শাখার আমিনুল ইসলাম প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে ওয়ালটন টিভির সিবিও প্রকৌশলী মোস্তফা নাহিদ হোসেন বলেন, ২০১৯ সালে ইউরোপে টিভি রফতানি শুরু করে গত দু’বছরে ওয়ালটন টিভি রফতানির পরিমাণ ছিলো প্রায় ৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। এ বছর ইউরোপের বাজারে একদিনেই ২.৪৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের টিভি রফতানির আদেশ পেয়েছে ওয়ালটন। যা সত্যি আশাতীত। এই সাফল্য শুধু ওয়ালটনের জন্যই নয়; দেশের টিভি রফতানি খাতেও এক বিশাল মাইলফলক। ওয়ালটনের ‘ভিশন- গো গ্লোবাল- ২০৩০’ অর্জনে অর্থাৎ ২০৩০ সালের মধ্যে ওয়ালটন বিশ্বের অন্যতম সেরা গ্লোবাল ইলেকট্রনিক্স ব্র্যান্ড হয়ে উঠার ক্ষেত্রেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

ইউরোপে ওয়ালটনের হেড অব বিজনেস প্রকৌশলী তাওসীফ আল মাহমুদ জানান, ওয়ালটন টিভির পিকচার ও মান খুব উন্নত হওয়ায় অতি অল্প সময়ের মধ্যে ইউরোপের জার্মানি, অস্ট্রিয়া, ডেনমার্ক, স্লোভাকিয়ায়, স্পেন, গ্রিস, আয়ারল্যান্ড, পোল্যান্ড, ক্রোয়েশিয়ার, ইটালি, রোমানিয়ারসহ মোট ১২টি দেশে ওয়ালটন টিভির রফতানি বাণিজ্য সম্প্রসারণ হয়েছে। ইউরোপে ২০২০ সালে আগের বছরের চেয়ে ১০ গুণ বেশি টিভি রফতানি করেছে ওয়ালটন। আর ২০২০ সালের মোট রফতানি এ বছরের প্রথম পাঁচ মাসে (জানুয়ারি থেকে মে) ছাড়িয়ে গেছে।

রোমানিয়ায় দায়িত্বপ্রাপ্ত ওয়ালটন আইবিইউ শাখার ভাইস-প্রেসিডেন্ট সাঈদ আল ইমরান বলেন, ওইএম পদ্ধতির পাশাপাশি এ বছর রোমানিয়ায় ওয়ালটন ব্র্যান্ডের নামেই টিভি রফতানি হচ্ছে। ইউরোপের অন্যান্য দেশগুলোর মতো রোমানিয়ার বাজারেও মাত্র কয়েক মাসের মধ্যে ব্যাপক সুনাম অর্জন করেছে ওয়ালটন ব্র্যান্ড টিভি।

ক্রোয়েশিয়ায় দায়িত্বপ্রাপ্ত ওয়ালটন আইবিইউ শাখার আমিনুল ইসলাম বলেন, ভৌগোলিক দিক থেকে ক্রোয়েশিয়া ওয়ালটনের জন্য সুবিধাজনক ও গুরুত্বপূর্ণ বাজার। এখান থেকে মধ্য-ইউরোপ ও বলকাল অঞ্চলের দেশগুলোতে পণ্যে রফতানি বাণিজ্য পথ অনেক সুগম হবে।

জানা গেছে, ৩৫টিরও বেশি দেশে, শতাধিক বিজনেস পার্টনারের মাধ্যমে ‘মেড ইন বাংলাদেশ’ লেবেলযুক্ত টিভি রফতানি করছে ওয়ালটন। ওয়ালটন টিভির মোট রফতানির ৩৪ শতাংশ ডেনমার্কে, ১৮ শতাংশ জার্মানিতে, ২২ শতাংশ গ্রিসে, ১৫ শতাংশ ক্রোয়েশিয়া ও আয়ারল্যান্ডে, ৬ শতাংশ পোল্যান্ডে এবং ৫ শতাংশ আফ্রিকা ও অন্যান্য দেশে হয়েছে।

অর্থসূচক/কেএসআর