মধ্যরাতে ইউএনওর বাসভবনে তুলকালাম: জড়িতদের বিরুদ্ধে মামলা হচ্ছে

বরিশাল সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মুনিবুর রহমানের সরকারি বাসভবনে হামলার ঘটনা নিয়ে ব্যাপক চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। বুধবার (১৮ আগস্ট) রাতের ওই ঘটনায় পুলিশের ১৫-২০ জন ও আনসারের তিন সদস্যসহ অন্তত ২৫ জন আহত হয়েছেন।

ইউএনওর বাসভবনে দায়িত্বরত আনসার কমান্ডার আম্মাম হোসেন বলেন, ইউএনওর বাসভবনের পাশে শোক দিবস উপলক্ষে লাগানো পোস্টার-ব্যানার অপসারণ করতে আসেন সিটি করপোরেশনের লোকজন। এতে বাধা দেন ইউএনও। এ অবস্থায় সিটি করপোরেশনের লোকজন চলে যান। কিছুক্ষণ পর সিটি করপোরেশনের লোকজনকে নিয়ে পোস্টার-ব্যানার সরাতে আসেন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। তখন ইউএনও রাতে পোস্টার-ব্যানার সরাতে নিষেধ করেন।

এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ইউএনওকে অবরুদ্ধ করেন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেলে গুলি চালানোর অনুমতি দেন ইউএনও। গুলি চালানোর সঙ্গে সঙ্গে তারা পাল্টা হামলা চালান। তখন দুই পক্ষের সংঘর্ষ বেধে যায়। এতে ওসি ও প্যানেল মেয়রসহ কয়েকজন গুলিবিদ্ধ হন। পরে তাদের হাসপাতালে নেওয়া হয়।

এ খবর ছড়িয়ে পড়লে মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক হাসান আহেমদ ওরফে বাবুর নেতৃত্বে ছাত্রলীগের জেলা কমিটির সহ-সভাপতি আতিকুল্লাহ খান মুনিম, সাংগঠনিক সম্পাদক রাজিব খান, সাজ্জাদ সেরনিয়াবাতসহ শতাধিক নেতাকর্মী সেখানে যান। এ সময় নেতাকর্মীরা ইউএনওর বাসায় ইটপাটকেল নিক্ষেপ করেন। বাসভবনের গেট ভেঙে নিচতলায় ঢোকার চেষ্টা করেন।

সংঘর্ষের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এলে হামলাকারীদের সঙ্গে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া হয়। একপর্যায়ে তারা পুলিশের ওপর চড়াও হন। পরিস্থিতি সামাল দিতে অতিরিক্ত পুলিশ ও র‌্যাব মোতায়েন করা হয়। পুলিশ লাঠিচার্জ করে। এ ঘটনায় পুলিশ ও আনসার সদস্যসহ অন্তত ৩০-৪০ জন আহত হন।

সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মুনিবুর রহমান বলেন, শোক দিবস উপলক্ষে উপজেলা পরিষদ কার্যালয় ও আশপাশে পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী কর্নেল (অব.) জাহিদ ফারুকের ব্যানার-পোস্টার লাগানো হয়েছিল। রাতে সিটি করপোরেশনের লোকজনকে নিয়ে ব্যানার-পোস্টার অপসারণ করতে আসেন ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। আমার বাসভবন সংরক্ষিত এলাকায় হওয়ায় বৃহস্পতিবার সকালে এগুলো সরানোর অনুরোধ করলে তারা গালিগালাজ শুরু করেন। একপর্যায়ে আমার বাসভবনে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করতে থাকেন। এতে আনসার সদস্যরা বাধা দিলে হামলা চালানো হয়। পরে পুলিশ প্রশাসনের সহযোগিতা চাওয়া হয়। পুলিশ এসে একজনকে আটক এবং লাঠিচার্জ করলে সংঘর্ষ হয়। পরে আবার জোটবেঁধে হামলা চালান। তখন গুলি চালানো ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে কয়েকজন আহত হন।

বরিশালের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার এনামুল হক বলেন, ইউএনও জানিয়েছেন তার বাসভবন এলাকায় ব্যানার-পোস্টার খুলতে আসে কিছু লোকজন। সংরক্ষিত এলাকা হওয়ায় রাতে ব্যানার খুলতে নিষেধ করেন। এ নিয়ে তাদের সঙ্গে বাগবিতণ্ডা হয়। এমনকি নিষেধ অমান্য করে ইউএনওর বাসভবনে প্রবেশ করতে চাইলে আনসার বাহিনী গুলি চালায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করে। সে সময় ইউএনওর বাসভবনের দিকে কিছু লোক এগিয়ে গেলে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেওয়া হয়। সংঘর্ষে একাধিক পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন।

কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি নুরুল ইসলাম বলেন, ইউএনওর বাসভবনের সামনে থেকে তাদের চলে যেতে বললে হামলা চালান। এ সময় সংঘর্ষে অনেকেই আহত হন।

স্থানীয় সূত্র জানায়, দীর্ঘদিন ধরে পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী কর্নেল জাহিদ ফারুকের সঙ্গে সিটি মেয়র সাদিক আব্দুল্লাহর রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব চলছিল। সম্প্রতি সিটি করপোরেশনের ছয় কাউন্সিলর প্রতিমন্ত্রীর দেওয়া অনুদানের চাল দরিদ্রদের মাঝে বিতরণ করেন। এতে ক্ষুব্ধ হন মেয়র। পরে ছয় কাউন্সিলরের কার্যালয় থেকে বিসিসির কর্মচারীদের তুলে আনা হয়। এসব দ্বন্দ্ব থেকেই বুধবার রাতের হামলার ঘটনা ঘটেছে বলে স্থানীয়রা ধারণা করছেন।

এদিকে ইউএনওর বাসভবনে হামলার ঘটনায় ভিডিও ফুটেজ দেখে জড়িতদের শনাক্তের চেষ্টা চলছে। এরপর তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হবে বলে জানিয়েছেন ইউএনও মুনিবুর রহমান। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এ মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

অর্থসূচক/এএইচআর

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •   
  •